প্রিয় মানুষের জন্য ভিড় চাঁপাইনবাবগঞ্জের কুরিয়ারে - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৪২ পূর্বাহ্ন

    প্রিয় মানুষের জন্য ভিড় চাঁপাইনবাবগঞ্জের কুরিয়ারে

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯

    নিজস্ব প্রতিবেদক
    এখন বাজারে খিরসাপাত ও গোপাল ভোগ, ন্যাংড়াসহ কয়েক জাতের গুটি আম বেশি দেখা যাচ্ছে। আর এসব আমের নাম মানেই চাঁপাইনবাবগঞ্জ। কে না চাই চাঁপাইনবাবগঞ্জের সুমিষ্ট আমের স্বাদ নিতে। সারাদেশের অনেক মানুষ অপেক্ষায় থাকে কখন চাঁপাইয়ের আম পাকবে। আম বাজারে আসার আগ হতেই চলে বুকিং বাণিজ্য। দেশের বিভিন্ন জায়গা হতে পরিচতি ব্যক্তি,আত্মীয় অথবা বিভিন্ন আম সংশ্লিস্টদের সঙ্গে কথা বলে আম কিনেন অনেকে। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি বে সরকারি দফতরের কর্মকর্তারা তাদের ঊর্দ্ধতণ কর্মকর্তাদের খুশি করতেও দেশের বিভিন্নস্থানে আম পাঠিয়ে থাকেন। বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা লেনদেনের পর চাহিদা অনুযায়ী সে আম কুরিয়ারযোগে পাঠানো হয় বিভিন্ন গন্তব্যে। ফলে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ব্যাস্ত সময় পার করছেন তারা।

    বর্তমান সময়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে চলছে রমরমা আম-বাণিজ্য। শুধু বাণিজ্য নয়, আমকে ঘিরে উৎসবমুখর পরিবেশ চারদিকে। আর এই উৎসবে শরিক হতে মন চায় সবার। কিন্ত দূর-দূরান্ত থেকে অনেকে আসতে পারেন না এ জেলায়। তাদের চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের স্বাদ পাইয়ে দিচ্ছে কুরিয়ার সার্ভিসগুলো। এছাড়া জেলার বাইরে অনেকের আত্মীয়স্বজন থাকায় তাদের নিকট আম পাঠাতে ভিড় করছেন এখানকার মানুষ। জেলা থেকে অর্ধশতাধীক কুরিয়ার সার্ভিস এ সেবা দিয়ে আসছে। ফলে জমে উঠেছে কুরিয়ারের ব্যবসা। তবে কুরিয়ার সার্ভিসগুলোর বিরুদ্ধে সার্ভিস চার্জ ইচ্ছেমত নেয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। আবার কোন কোন কুরিয়ারে আম গায়েব হওয়ারও খবর পাওয়া গেছে।

    চাঁপাইনবাবগঞ্জের এসএ পরিবহন, সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস, আহমদ পার্সেল সার্ভিস, করতোয়া, জননী, কন্টিনেন্টাল, এসআর, এজেআর কুরিয়ার, এমটি কুরিয়ার সার্ভিসে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আম পাঠাতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। তাদের আত্মীয়স্বজন, ভাই-বোন,বিভিন্ন ক্রেতাসহ বিভিন্ন জনের কাছে আম পাঠাতে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাড়িয়ে বুকিং দিচ্ছেন কুরিয়ার সার্ভিসগুলোতে। শান্তিমোড় হতে থেকে খুলনায় এক অফিসে আম পাঠানোর জন্য জননী কুরিয়ার সার্ভিসে প্রায় ঘন্ঠাখানেন ধরে অপেক্ষা করছেন সৌরভ আলী। তিনি বলেন,প্রতি বছর আমের মৌসুম আসলেই বিভিন্নস্থান হতে আমের জন্য ফোন আসে। কাউকে ফ্রিতে আবার কারও কাছে টাকা নিয়ে আম পাঠাতে হয়।

    কানসাট এলাকার নাসিমা বেগম জানান,ফরিদপুরে একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করতাম। সে সুবাদে বিভিন্নজনের সঙ্গে পরিচিত বাড়ে। অনেকে আম চেয়ে ফোন করে। তাদের কথা রাখতে কুরিয়ারে আম পাঠাতে এসেছি। তবে আমের চাইতে কুরিয়ার খরচ বেশি। ২০ কেজি আম পাঠাতে প্রায় সাড়ে সাড়ে তিনশ টাকা খরচ হল।

    সংশ্লিষ্টদের তথ্যমতে,চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে সরাসরি রাজধানীতে আম পাঠাতে প্রতি কেজিতে তারা সার্ভিস চার্জ নিচ্ছেন ১০-১৩ টাকা এবং রাজধানীর বাইরে ১৭ টাকা। অর্ধশতাধীক কুরিয়ারে তাদের নিজস্ব পরিবহনে গন্তব্যে আম পাঠিয়ে থাকে। জেলার বিভিন্নস্থান হতে প্রায় দুই শতাধীক কুরিয়ারের গাড়ী বিভিন্নস্থানে ছেড়ে যায়।
    প্রতিদিনই সকাল ৮টা থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত আমের বুকিং করছেন তারা। এদিকে কুরিয়ারে শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালাচ্ছেন অনেকে।

    355Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর