1. [email protected] : News room :
নেতাদের ভুল স্বীকার করতে নির্দেশ মমতার - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০৮ পূর্বাহ্ন

নেতাদের ভুল স্বীকার করতে নির্দেশ মমতার

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:
লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির উত্থানে উদ্বিগ্ন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে সংগঠনের দায়িত্ব¡ নিয়ে দলের শুদ্ধিকরণে উদ্যোগী হয়েছেন। নির্বাচনের পরে দলে পর্যালোচনার সময় দলের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের আচার-আচরণ ও জনসংযোগের অভাব নিয়ে বহু অভিযোগ সামনে উঠে এসেছে। সেগুলোর অধিকাংশই যে ভিত্তিহীন নয়, তার প্রমাণ তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী নিজেও পেয়েছেন। আর তাই দলের শুদ্ধিকরণে তিনি গুরুত্ব দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে তিনি পরামর্শদাতা হিসেবে সঙ্গে নিয়েছেন দেশের অন্যতম নির্বাচন কৌশলি বলে পরিচিত প্রশান্ত কিশোরকে। বিভিন্ন রাজ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের হয়ে স্ট্র্যাটেজি তৈরি করে প্রশান্ত কিশোর তাদের সাফল্য এনে দিয়েছেন। সাম্প্রতিক লোকসভা নির্বাচনেই প্রশান্ত কিশোরের সংস্থা অন্ধ্র প্রদেশে ওয়াই এস আর কংগ্রেসকে জয়ী করার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন। আর এবার প্রশান্ত কিশোরকে ডেকে আনা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। মমতার ভাইপো তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ই পিসিকে বুঝিয়েছেন প্রশান্ত কিশোরের সাহায্য নেবার জন্য।
একাধিকবার প্রশান্ত কিশোর মমতার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠক করেছেন অভিষেকের সঙ্গেও। এমনকি বিভিন্ন জেলার নেতৃত্বকে নিয়ে মমতা যে বৈঠক করছেন তাতেও হাজির থাকছেন প্রশান্ত কিশোর। এই প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শেই নাকি মমতা দলের নেতা ও কর্মীদের উদ্দেশ্যে অপ্রিয় নির্দেশ দিয়ে চলেছেন।

কয়েকদিন আগেই দলের নেতাদের কাটমানি (বিভিন্ন প্রকল্পের অর্থ কেটে রাখা বা ঘুষ নেওয়া) ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এর ফলে দলের মধ্যে প্রবল অসন্তোষ তৈরি হলেও মমতা কোনো কথাই বলছেন না। রাজ্যের প্রায় সর্বত্র কাটমানি ফেরতের দাবিতে তৃণমূল কংগ্রেসের বিভিন্ন স্তরের নেতাদের ঘেরাও করে মুচলেকা আদায় করা হচ্ছে। অনেকে অর্থ ফেরতও দিচ্ছেন। এই পরিস্থিতির মাঝেই গত শুক্রবার দলের বিধায়কদের ভুল সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছেন।

মমতার পরামর্শ, কোনো ভুল হয়ে থাকলে এড়িয়ে যাবেন না। ভুলের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে জনসংযোগের মাধ্যমে তা শুধরানোর চেষ্টা করুন। বিধায়কদের অনেকের আচার-আচরণ, বিলাসী জীবনযাপন যে জনবিচ্ছিন্ন হওয়ার অন্যতম কারণ, তা বুঝিয়ে এদিন মমতা বলেছেন, সাধারণভাবে মানুষের সঙ্গে মিশতে হবে। বিধায়কদের সহজ-সাধারণ জীবনযাপন করতে হবে। বিধায়কদের অনেকের ঔদ্ধত্য যে ‘নেতিবাচক’ বার্তা দিয়েছে, তাও সংশোধনের চেষ্টা করতে পরামর্শ দিয়েছেন মমতা। মানুষের অভাব-অভিযোগ শুনে তা দ্রুত প্রতিকারের চেষ্টা করতেও বলেছেন তিনি।

এদিকে দলের নেতা ও কর্মীদের পুলিশ প্রশাসনের উপর ভরসা না করারও নির্দেশ দিয়েছেন। পুলিশ প্রশাসনের উপর নির্ভরতার ফলে সাধারণ মানুষের কাছে যে ভুল বার্তা গিয়েছে সেকথাও মমতা দলকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন।

14Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর