নাটকীয় জয়ে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ডকে টপকে গেল পাকিস্তান - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

    নাটকীয় জয়ে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ডকে টপকে গেল পাকিস্তান

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৯ জুন, ২০১৯

    ক্রীড়া ডেস্ক:
    সেমিফাইনালের স্বপ্ন টিকিয়ে রাখতে জয়ের বিকল্প নেই পাকিস্তানের সামনে। আর বিশ্বকাপ থেকে সবার আগে বিদায় নেওয়া আফগানিস্তানের লক্ষ্য একটা জয়। কঠিন সে সমীকরণে থেকে শেষ পর্যন্ত নাটকীয় জয় তুলে নিয়েছে ১৯৯২ এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। আফগানদের ৩ উইকেটে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলও পাকিস্তান। সে সাথে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ডকে টপকে পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে সরফরাজ বাহিনী।

    বিশ্বকাপের ৩৬তম ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তানকে ২২৮ রানের সহজ লক্ষ্য দেয় আফগানিস্তান। সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আফগান স্পিনারদের তোপে পড়ে পাক ব্যাটিং শিবির। শেষ পর্যন্ত ইমাদ ওয়াসিম ও ওহাব রিয়াজ ব্যাটে চড়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাবর-ফখররা। ৪৯ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন ইমাদ। ১৫ রানে অপরাজিত থাকেন রিয়াজ।

    এর আগে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই মুজিব-উর-রহমানের এলবির ফাঁদে পড়ে পাকিস্তানি ওপেনার ফখর জামান। ফখরের বিদায়ের পর রানে চাকা সচল রাখে ইমাম-বাবর। দুই জনে গড়েন ৭২ রানের জুটি। ব্যক্তিগত ৩৬ রানে ইমামকে ফেরান মোহাম্মদ নবী। ৯ রানের ব্যবধানে আবারও আঘাত হানেন তিনি। এবার নবীর শিকার বাবর। মাত্র ৫ রানের জন্য ক্যারিয়ারের ১৫তম অর্ধশতক তুলতে পারেননি বাবর।

    অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মোহাম্মদ হাফিজ ও হারিস সোহেল কিছু সময় মাঠে থাকলেও মুজিব-রশিদে তাদেরও ফিরতে হয় ড্রেসিং রুমে। হাফিজ মুজিবের বলে ১৯ আর সোহেল রশিদের বলে ২৭ রান করে আউট হন। এদিন পাক অধিনায়ক সরফরাজ ১৮ রান করে রান আউট হয়ে ফিরেন।

    প্রথমে ব্যাট করে আসগর ও নজি্বুল্লাহর ব্যাটে ভর করে ৯ উইকেটে ২২৭ রান তোলে আফগানিস্তান। এতে পাকিস্তানের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২২৮ রান। আসগর ও নজিবুল্লাহ দুজনেই দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান করে করেন। আর রহমত শাহ খেলেন ৩৫ রানে ইনিংস।

    হেডিংলিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিং করতে নামে আফগানিস্তান। শুরুতে দারুণ সম্ভাবনা দেখারেও আফগানরা হোঁচট খেয়েছে বার বার। ২৭ রানে ওপেনিং জুটি ভাঙে তাদের। শাহিন শাহ আফ্রিদির বলে আউট হন ওপেনার গুলবাদিন নাইব। ১৫ রানে উইকটের পেছনে ক্যাচ দেন তিনি। দ্বিতীয় উইকেট পড়ে পরের বলে। শূন্যতে ফিরে যান হাসমতউল্লাহ শহীদি। এরপর একটা বাজি ধরে আফগান শিবির। চার নম্বরে ব্যাটিংয়ে পাঠায় উইকেটরক্ষক ইকরাম আলিখিলকে। এতে সফলতা পায় ফিল সিমন্সের শিষ্যরা।

    মারমুখি ব্যাট করে রহমত শাহ রান তোলেন দ্রুত। তবে ৩৫ রানে বাবর আজমকে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। ইমাদ ওয়াসিমের বলে মিড উইকেটে খেলতে গিয়ে কাভার অঞ্চলে ক্যাচ তুলে দেন এ ডানহাতি। রহমতকে আউট করে বিশ্বকাপে প্রথম সাফল্য পান ইমাদ। চতুর্থ উইকেটে ইকরাম ও আসগর আফগান গড়েন ৬৪ রানের জুটি। আফগানিস্তানের ইনিংসে এটাই ছিল সর্বোচ্চ জুটি। ৪২ রানে আসগর আউট শাদাবের বলে। ইকরামকে আউট করেন ইমাদ।

    মোহাম্মদ নবী এ দিন বেশি দূর নিজের ইনিংস টেনে তুলতে পারেননি। ১৬ রানে তাকে ফেরান ওয়াহাব রিয়াজ। নজীবুল্লাহ জাদরান একপ্রান্তে দারুণ ব্যাট করলেও ৪২ রানে ফিরে যান আফ্রিদির বলে। পাকিস্তানের হয়ে গত ম্যাচের মতো সফল হলেন এ বাঁহাতি পেসার। ১০ ওভারে ৪৭ রানে চার উইকেট পান তিনি। ডেথ ওভারে মাত্র ৪৩ রান তুলতে পেরেছে আফগান শিবির।

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর