1. [email protected] : News room :
নাচোলে পিটিয়ে হত্যায় মামলা, তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে ধুম্রজাল! - লালসবুজের কণ্ঠ
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন

নাচোলে পিটিয়ে হত্যায় মামলা, তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে ধুম্রজাল!

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১০ জুলাই, ২০১৯

নাচোল প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে পাওনা টাকার জেরে শফিকুলকে পিটিয়ে হত্যা করা হলেও মামলাটি রহস্যজনক কারণে নাচোল থানায় মামলা রেকর্ড না হওয়ায় মৃতের পিতা গত ২ মে ২০১৯ চাঁপাইনবাবগঞ্জ আমলী আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। প্রেক্ষিতে নাচোল থানা পুলিশ বাদীর অভিযোগটি রেকর্ড পূর্বক আদালতে দাখিল করেছেন বলে ওসি মিন্টু রহমান জানিয়েছেন।

কিন্তু নিহত শফিকুলের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট নিয়ে শুরু হয়েছে ধুম্রজাল।

তবে নাচোল থানা পুলিশ বরাবরই দাবি করে আসছেন- ময়নাতদন্ত রিপোর্টে স্বাভাবিক মৃত্যু উল্লেখ রয়েছে।

অপরদিকে একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলকে জেলা সিভিল সার্জন জানিয়েছিলেন- পোষ্টমর্টেম রিপোর্টে ‘আঘাত জনিত কারণে নাড়ি ফুটা হয়ে পচন ধরে মৃত্যু হয়’। শফিকুলের মৃত্যু রহস্য নিয়ে শুরু হয়েছে ধুম্রজাল!

বাদী ইয়ার বক্স আশঙ্কা করছেন আদৌ তার ছেলের হত্যার সুষ্ঠু বিচার পাবেন কিনা?

তবে টেলিভিশনে হত্যার বিষয়ে প্রতিবেদন প্রচার হওয়ার পর থেকে বাদী ও তার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে আসামীরা পক্ষ।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, নিহত শফিকুলের পিতা ইয়ার বক্স, স্ত্রী সুলতানা বেগম, ছেলে সোহেল রানা ও একমাত্র মেয়ে সোনিয়া খাতুন জানান, নিহত শফিকুলের ছেলে সোহেল রানার বউ তালাকের বিষয়ে চাচাতো খালা মিনারা খাতুনের নিকট ১১ হাজার টাকা ধার সরূপ নিয়েছিল শফিকুল। কিন্তু মিনারার ভাই নাচোল উপজেলার পীরপুর গ্রামের অহিরুদ্দীনের ছেলে শরিফুল ধারের ১১ হাজার টাকা চাইলে শফিকুল তাকে ওই টাকা দিতে অস্বীকার করে।

এ নিয়ে গত চলতি বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারী কৌশলে শফিকুলকে নিয়ামতপুর যাবার কথা বলে মোটর সাইকেল নিয়ে আসতে বলে মামা শরিফুল। মামার কথামতো মোটরসাইকেল নিয়ে পীরপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপস্থিত হলে মামা শরিফুল ইসলাম ভুলু (৪২) ও তার দলবল ওই মুহুর্তে পাওনা টাকা চাওয়ার এক পর্যায়ে বেধড়ক পিটিয়ে মোটরসাইকেলটি কেড়ে নেয়। আহত শফিকুল পীরপুর গ্রামের মধ্যপাড়ায় মামা শরিফুলের বাড়িতে আবারও তার মোটরসাইকেলটি ফেরত চাইতে গেলে শরিফুল, একই গ্রামের তাইজুদ্দীনের ছেলে বেলাল (৩৩) ও ইতেশ (৩২) ও মিনারা খাতুনের স্বামী আব্দুল হামেদ (৩৪) একযোগে শফিকুলকে মাটিতে ফেলে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে।

খবর পেয়ে শফিকুলের স্বজনরা সঙ্গাহীন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ওইদিন নাচোল উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। রোগির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক শফিকুলকে রামেক হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শফিকুল মারা যায়। স্বজনরা ওই রাতেই নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার মিরাপাড়া গ্রামে লাশ দাফনের ব্যবস্থা করে।

পরে পুলিশ লাশ নাচোল থানা নিয়ে আসে। পরদিন ২৫ ফেব্রুয়ারী নিহত শফিকুলের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠালেও থানায় কোন অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করেননি। পরে ময়নাতদন্ত শেষে ২৫ ফেব্রুয়ারী মিরাপাড়ায় শফিকুলের দাফন সম্পন্ন হয়।

শফিকুলের বৃদ্ধ পিতা ইয়ার বক্স অভিযোগ করে বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসার অজুহাতে দীর্ঘদিনেও হত্যা মামলা গ্রহণ করেননি নাচোল থানা পুলিশ। বিচারের আশায় নিহতের পিতা ইয়ার বক্স চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিজ্ঞ আদালতে গত ২১ মে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ বিষয়ে নাচোল থানার ওসি (তদন্ত) মিন্টু রহমান জানান, বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশনায় মামলা রেকর্ড পাঠানো হয়েছে।

11Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর