নাগেশ্বরীতে আবারও দুধকুমার নদের তীব্র ভাঙ্গন - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন
    শিরোনাম

    নাগেশ্বরীতে আবারও দুধকুমার নদের তীব্র ভাঙ্গন

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২

    কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি


    দুই দফা বন্যার পর আবাররও কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে দুধকুমার নদের পানি বাড়তে শুরু করেছে। পানি বাড়ার সাথে সাথে দুধকুমার নদে দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙ্গন। গত কয়েকদিনের ভাঙ্গনে ইতোমধ্যে নদীগর্ভে চলে গেছে আবাদি জমি, রাস্তাঘাট, মসজিদসহ বেশ কয়েকটি ঘরবাড়ি।

    এমন ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের বড়মানী, আনছাড়ের হাট, আয়নালের ঘাট, বেরুবাড়ী ইউনিয়নের সবুজপাড়া এবং কালীগঞ্জ ইউনিয়নেও। এছাড়াও ভাঙনের মুখে পড়েছে বড়মানি এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের অস্থায়ী বাঁধ।

    ইতোমধ্যে বাঁধটির প্রায় ১০০ফুট দুধকুমারের পেটে চলে গেছে। বাঁধটি ভেঙে গেলে শত শত বিঘা আবদী জমি এবং কয়েকটি গ্রামের বসত ভিটা ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়বে। ইতিমধ্যে ভাঙনের হুমকিতে থাকা বসত ভিটা সরিয়ে নিচ্ছে মানুষ। যদিও ওই এলাকায় নদী শাসন ও ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডে কাজ চলমান রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ পানি উন্নয়ন বোর্ডে কাজের ধীরগতি নদী ভাঙনের অন্যতম কারণ। ইতোমধ্যে পাশের গ্রাম আনছাড়ের হাটা এলাকায় ভাঙনেি বসত ভিটাসহ সহায়সম্বল হাড়িয়েছেন আমিনুর রহমান, বাচ্চু মিয়া, আবুল হোসেন, মরিয়ম বেগমসহ অনেকে।

    বামনডাঙা ইউনিয়নের আনছাড়ের হাট এলাকার মরিয়ম বেগম জানান, জুন মাসের শেষের দিকে তার বাড়িঘর নদের পেটে চলে যায়। ২০ শতক আবাদী জমিও চলে গেছে ভাঙ্গনে। এখন পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন
    তারা। বড়মানি গ্রামের জমির হোসেন জানান, তিন চারদিন থেকে ভাঙ্গন তিব্র হয়েছে। এবার বাঁধ ভাঙনের মুখে পড়েছে। হুমকিতে রয়েছে শতশত বিঘা আবাদী জমি ও ঘরবাড়ি। অনেকে ঘরবাড়ি সড়িয়ে নিচ্ছে। তিনি আরোও জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবহেলায় গ্রামটির অনেকবাড়ি ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা এনামূল হক জানান, দুধকুমার নদী শাসন ও তীর রক্ষায় এই এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাজ চলমান রয়েছে। তাদের কাজের ধীরগতি ও অবহেলায় ভাঙ্গনে বাড়িঘর ও স্থাপনা বিলিন হচ্ছে।

    কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, নাগেশ্বরী উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নে দুধকুমার নদীর তীর রক্ষার কাজ চলমান রয়েছে। কাজের ধীরগতির অভিযোগ সত্য নয় । আমরা চলতি বছর জানুয়ারী মাসে কাজ শুরু করেছি যা ২০২৫ সালে শেষ হবে। মাঝখানে বন্যার কারণে কাজ বন্ধ ছিলো। আর চলমান ভাঙ্গন রোধে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ও জিও টিউব ফেলা হচ্ছে।

    হৃদয়/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর