নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইন ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ১০:০০ অপরাহ্ন

    নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইন ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৬ জুন, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক, লালসবুজের কণ্ঠ;


    চলতি মাস শেষে ভারতে নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইন কার্যকর হতে যাচ্ছে। এ আইন প্রযুক্তি খাতে ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে বলে সরকারকে সতর্ক করেছে দেশটির প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্বকারী সংস্থা দি ইন্টারনেট অ্যান্ড মোবাইল অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়া (আইএএমএআই)। খবর রয়টার্স।

    সংস্থাটি নতুন আইন কার্যকরের সময় আরো এক বছর পেছানোর কথাও জানিয়েছে। ভারতে ফেসবুক, গুগল, রিলায়েন্সসহ বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্ব করে আইএএমএআই।

    সম্প্রতি দেশটির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের কাছে নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে সমালোচনাপূর্বক চিঠি পাঠিয়েছে। ২৭ জুন থেকে আইনটি কার্যকর হবে।

    অন্যান্য পরিবর্তনের মধ্যে ভারতের কম্পিউটার ইমার্জেন্সি রেসপন্স টিম (সিইআরটি) দেশে অবস্থানরত প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোকে তথ্য চুরিসহ যেকোনো সাইবার হামলার বিষয়ে ৬ ঘণ্টার মধ্যে জানানোর নির্দেশনা রেখেছে।

    পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানগুলোকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে গত ছয় মাসের রেকর্ড সংরক্ষণ করতে বলেছে।

    আইএএমএআইয়ের পাঠানো চিঠিতে সাইবার হামলার ঘটনা জানানোর সময় ৬ ঘণ্টা থেকে বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

    পাশাপাশি বিশ্বে যেকোনো সাইবার হামলা বা দুর্ঘটনার তথ্য জানানোর স্ট্যান্ডার্ড সময় ৭২ ঘণ্টার কথাও উল্লেখ করা হয়। সিইআরটি ভারতের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত।

    সংস্থাটি অ্যামাজনের মতো ক্লাউড পরিষেবা প্রতিষ্ঠান ও ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) প্রতিষ্ঠানগুলোকে পাঁচ বছর আগের গ্রাহকদের তথ্য ও আইপি অ্যাড্রেস পুনরুদ্ধারের নির্দেশনাও দিয়েছে। এমনকি যারা পরিষেবা নেয়া বন্ধ করে দিয়েছে তাদেরও।

    চিঠিতে আইএএমএআই জানায়, এ ধরনের কঠোর নির্দেশনা অনুসরণে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। পাশাপাশি আইন ভঙ্গের কারণে জেল জরিমানাসহ যে শাস্তির বিধান করা হয়েছে তাতে অনেক প্রতিষ্ঠান ভারতে তাদের কার্যক্রম ও পরিষেবা বন্ধ করে দেবে।

    চলতি সপ্তাহের শুরুতে আইএএমএআইয়ের চিঠির বিষয়ে দেশটির ১১টি বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সম্মতি প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানগুলো জানায়, নতুন আইন ভারতে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনাকে কঠিন করে তুলছে।

    আইনের বিষয়ে নয়াদিল্লি জানায়, সাইবার নিরাপত্তার জন্য নতুন আইন কার্যকর জরুরি। কেননা এ ধরনের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে। কিন্তু ঘটনার তদন্তে যে ধরনের তথ্য প্রয়োজন, প্রতিষ্ঠানগুলো যথাসময়ে সেগুলো সরবরাহ করতে পারে না।

    নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইনের চাপের মুখে ভারতে সব কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে এক্সপ্রেস ভিপিএন।

    ভিপিএন ব্যবহারে প্রবর্তিত নতুন নিয়মের অংশ হিসেবে এখন থেকে প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবহারকারীদের আসল নাম, আইপি অ্যাড্রেস, ব্যবহারের ধরনসহ বিভিন্ন তথ্য সংরক্ষণ করতে হবে।

    এক বিবৃতিতে এক্সপ্রেস ভিপিএন ইন্টারনেট ব্যবহারের স্বাধীনতা রহিত করতে ভারত সরকারের উদ্যোগে অংশ না নেয়ার কথা জানিয়েছে।

    সেই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি অনলাইনে ব্যবহারকারীর তথ্য ও পরিচয়ের সুরক্ষা নিশ্চিত এবং মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়টি চর্চায় আগ্রহী বলেও জানায়।

    প্রতিষ্ঠানটি জানায়, নতুন আইনে ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতায় তেমন কোনো প্রভাব পড়বে না। এছাড়া ভারতের ব্যবহারকারীদের কোনো তথ্যও সংরক্ষণ করা হচ্ছে না বলেও জানানো হয়।

    এক্সপ্রেস ভিপিএনের দাবি, সাইবার নিরাপত্তায় প্রণীত নতুন আইনটি খুবই উন্মুক্ত এবং এর অপব্যবহারের সম্ভাবনা রয়েছে।

    আইনপ্রণেতারা যে সুফলের জন্য আইন প্রণয়ন করেছেন তার তুলনায় এর অপব্যবহারে ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি।


    লালসবুজের কণ্ঠ/তন্বী

    2Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর