নকশি কাঁথা বুনে সাবলম্বী হচ্ছেন নারীরা,যাচ্ছে বিদেশেও - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন

    নকশি কাঁথা বুনে সাবলম্বী হচ্ছেন নারীরা,যাচ্ছে বিদেশেও

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯

    আসাদুজ্জামান মিঠু,বরেন্দ্র অঞ্চল:
    পল্লী কবি জসিমউদ্দীনের সেই নকশি কাঁথার কবিতাটি অন্য সব কবিতার চেয়ে অন্যরকম। গ্রাম গঞ্জে নিপুন হাতে সুঁই সুঁতায় দিয়ে সব সুন্দর সুন্দর নকশাই তৈরী হয় নকশী কাঁথা। সেই সময় পল্লী কবি জসীমউদ্দিন সেই গ্রাম গঞ্জের নারীদের নকশী কাঁথা নিয়ে কবিতাটি রচনা করেছিলেন।

    বহু পুরানো ঐতিহ্য এটি। আর সেই পরোনো ঐতিহ্যটির এখন ও ধরে রেখেছেন বরেন্দ্র অঞ্চলে বেশির ভাগ গ্রামের নারীরা।


    গ্রামের নারীদের কাছে যেন সেই পুরোনো ঐতিহ্য এখন ও নতুন হয়ে আছে। গ্রামের কিশোরী থেকে মধ্য বয়সী পর্যন্ত বৃদ্ধ নারীরা ও এখন এই পেশায় জড়িয়ে পড়েছে । তাদের শৈল্পিক হাতে নিপুন সুঁই সুঁতায় তৈরী হয়ে থাকে এই নকশী কাঁথা। আর এই কাঁথা হাত বদল হয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। সেই সঙ্গে যাচ্ছে বিদেশেও।

    এর মধ্যে রাজশাহীর তানোর উপজেলার বাধাইড় ইউপির বদলপুর গ্রামের প্রায় শতাধিক নারী নকশি কাঁথা তৈরি কাজ। দীর্ঘ ৮ বছর যাবত তারা এই নকশি কাঁথা সুঁই সুঁতায় দিয়ে তৈরি করে আসছে। প্রথমে গ্রামের সংখ্যায় কম নারী এই পেশায় থাকলে ও বর্তমানে আস্তে আস্তে পুরো গ্রামের নারীরা জড়িয়ে পড়েছেন এই পেশায়। স্বামীর ঘর সংসার করে অবসর সময়ের তারা এই কাজ করেন। আর এই কাজের বিনিময়ে তারা যে পরিমান মুজুরি পান তাই দিয়েই সংসারের অন্য খুাটি নাটি জিনিস কিনে থাকেন তারা।

    বদলপুর গ্রামের নারীরা লালসবুজের কণ্ঠকে জানান, ঃ দীর্ঘ ১০ বছর আগে তানোর উপজেলার বদলপুর গ্রামে গৃহবধু হয়ে আসে চাপাইনবাবগঞ্জের কালিনগর গ্রামের গোলেনুর বেগম। বিয়ের পর থেকেই তিনি তার বাবার বাড়ি কালিনগর থেকে ২ থেকে ৩ টা করে প্রথম নকশি কাঁথা এনে কাজ করতেন। তার দেখা দেখী গ্রামের অন্য নারীরা ও তার কাজ দেখে উৎসাহিত হয়। বর্তমানে এ গ্রামে কিশোরী থেকে মধ্য বয়সী প্রায় শতাধিক নারী এই কাজ করছেন। গোলেনুর বেগম জানান তিনি এই নকশি কাঁথা প্রায় শতাধিক নারী কে দিয়ে কাজ করছেন। এক জন একটি কাঁথা কাজ শেষে করতে ২৫ থেকে ৩০ দিন সময় লাগে। এই এক জন একটি কাঁথার কাজ শেষ করে মুজুরি হিসাব ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা দিতে হয়।

    গোলেনুর বেগম আরো জানান, আমি গরিব মানুষ। নিজের পুঁজি না থাকায় আমি চাপাইনবাবগঞ্জের কালিনগর গ্রামের নকশি কেথা ব্যবসায়ী আঃ মান্নানের কাছ থেকে নকশী কাঁথা যাবতীয় উপকরন নিয়ে এসে গ্রামের নারীদের দেন। কাজ শেষে কাঁথা গুলো পুনরায় মহাজনের হাতে তুলে দিলেই সম্পর্ন্ন মুজুরি দিয়ে পান। বিনিময়ে তিনি প্রতিটি কাঁথা থেকে মান ভেদে ৫০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত মাহজনের কাছ থেকে পান। শুক্রবার সরে জমিন এই গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কোথাও ৩ জন কোথাও ৬ জন আবার ২ জন থোকা থোকা হয়ে নারীরা কাঁথা নিয়ে বিভিন্ন গল্প করছেন। সঙ্গে নকশি কেথার কাজ করছেন।

    গ্রামের ৭ম শ্রোণীর পড়–য়া ছাত্রী তাসলীমা,গৃহবধু লিপি আরা, সাজিনুর বেগম সহ অন্য অন্য নারীরা সবাই কাঁথা সুঁই সুঁতায় নকশী তুলতে ব্যস্ত রয়েছেন। ফাঁকে তাদের সাথে কথা হয়। তারা জানান স্বামীর ঘর সংসার ঠিক রেখে অবসর সময়ে তারা এই কাজ করেন। তাতে মাস শেষে একটি কাঁথা শেষ করতে পারলে ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা পান। যা সংসারের খুটি নাটি অন্য জিনিস পত্র কেনা যায়।

    ঐ গ্রামের রিমা নামে আলিম পড়–য়া ছাত্রী লালসবুজের কণ্ঠকে জানান তিনি ও পড়া লেখার ফাঁকে অবসর সময়ে গ্রামের অনান্য নারীদের মত নকশী কাঁথার কাজ করেন। একটি কাঁথা সাইজে ৪/৬ হাত নকশা ছাপানো থাকে। সুতা কালার ভেদে মহাজনেরা তাদেরকে দেয়। তারা শুধু হাতে সুঁই সুঁতায় নকশী তুলে দেন। তিনি আরো জানান এ কাজ করতে প্রতিদিন গড়ে ৫ থেকে ৬ ঘন্টা সময় ব্যায় করতে হয়। সেই অনুযায়ী মহাজনরা মজুরী হিসাবে যেটি তাদের দেয় তা অতি সামান্য। কষ্ট অনুযায়ী তাদের ডবল মজুরী দেওয়া উচিত।

    354Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর