নওগাঁয় কমেছে চালের দাম - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৫৮ পূর্বাহ্ন

    নওগাঁয় কমেছে চালের দাম

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৬ জুন, ২০২২

    রাজশাহী প্রতিবেদক:


    বেশ কিছু ধরেই নওগাঁয় চালের বাজারের অস্থিরতা বিরাজ করছিলো। কিন্তু কয়েক দিনের ব্যবধানে নওগাঁর পৌর খুচরা চাল বাজারে প্রকারভেদে কেজি প্রতি ২ থেকে ৩ টাকা দাম কমেছে।

    খুচরা ব্যাবসায়ীরা বলছেন, চালের সরবরাহ বাড়ায় দাম কমেছে। এছাড়া ধানের দাম বস্তা প্রতি ১০০-১৫০ টাকা কমে যাওয়ায় পাইকারি মোকামে চালের বস্তা প্রতি (৫০ কেজি) ১০০ থেকে-১৫০ টাকা কমেছে চালের দাম।

    সোমবার (৬ জুন) সকালে নওগাঁ পৌর খুচরা চাল বাজার ঘুরে দেখা যায়, গত কয়েকদিন আগে কাটারীভোগ চাল ৭৪ থেকে ৭৬ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও বর্তমানে সেই চাল ৭০ থেকে ৭২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

    স্বর্না-৫ চাল ৪৭ থেকে ৪৮ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা। জিরাশাইল ছিল ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা কেজি।

    বর্তমানে ৬০-৬২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। উনত্রিশ ৫৫ থেকে ৫৬ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও বর্তমানে ৫২ থেকে ৫৪ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

    পৌর খুচরা চাল বাজারে চাল কিনতে আসা কুদ্দুস নামের এক রিকশাচালক বলেন, ‘১ টাকা ২ টাকা কমিয়ে কী হবে, যা ইনকাম হয় চাল কিনতে গিয়েই শেষ হয়ে যায়।’

    আরেক ইন্দ্রিস বলেন, ‘এক মাস ধরে ১, ২ করে ১০ টাকা বাড়িয়েছেন মিল মালিকরা। এখন ২ টাকা কমালে গরিবের কী লাভ হবে? যতটুকু বাড়িয়েছে ততটুকু কমালে স্বস্তি আসবে।’

    পৌর খুচরা চাল বাজারের ব্যবসায়ী তাপস কুমার জানান, কয়েকদিনের ব্যাবধানে মোকামগুলোতে চালের দাম কমেছে। ৫০ কেজির বস্তা প্রতি ১০০ টাকা কমেছে।

    ফলে দাম কমেছে খুচরা বাজারে। তবে চাহিদা মত চাল পাওয়া যাচ্ছে না মোকামগুলতে। যেখানে আমাদের দৈনিক চাহিদা ১০ বস্তা, সেখানে পাওয়া যাচ্ছে ৫-৬ বস্তা।

    নওগাঁর মিল মালিক আনিছুর রহমান জানান, শুরু থেকেই বাজার থেকে বেশি দামে ধান কিনতে হয়েছে। তাই বেশি দামেই চাল বিক্রি করতে হয়েছে।

    তবে এখন বাজারে ধানের দাম কম। কয়েকদিনের ব্যবধানে সব ধরনের ধানের দাম মণ প্রতি কমেছে দেড় থেকে দুইশত টাকা। এজন্য চালও কম দামে বিক্রি হচ্ছে।

    তিনি আরও জানান, অবৈধ মজুদদারদের বিরুদ্ধে সরকারের যে অভিযান সেটি অব্যাহত রাখতে হবে। তাহলে সামনে দিনে ধান চালের দাম আরও কমবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

    জেলা প্রশাসক (ডিসি) খালিদ মেহেদী হাসান জানান, প্রশাসনের অভিযানের ফলে বাজারে চালের দাম কমেছে। এছাড়া ধান-চালের মজুত বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে প্রশাসন ও খাদ্য অধিদপ্তরের একাধিক দল মাঠে কাজ করছে এবং তা চলমান থাকবে।

    যেখানে ধান-চালের মজুতের বিষয়ে কোনো অসঙ্গতি পাওয়া যাচ্ছে, সেখানে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। চালের বাজার পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।


    টি,আর/তন্বী

    12Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর