1. [email protected] : News room :
ধৈঞ্চা চাষে সফল হচ্ছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাষীরা - লালসবুজের কণ্ঠ
শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

ধৈঞ্চা চাষে সফল হচ্ছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাষীরা

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক:
জনপ্রিয় সবুজ সার হিসেবে পরিচিত ও খড়ির কাজে ব্যবহৃত ধৈঞ্চা চাষে সফল হচ্ছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাষীরা। খরচ কম হওয়ায় ও অধীক ফলনের কারনে অনেকেই ধৈঞ্চা চাষ করছেন। তাদের মধ্যে শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম মারুফ ও বিনোদপুর ইউনিয়নের জালাল উদ্দীন।

মোবারক ইউনিয়নের ধৈঞ্চা চাষী নুরুল ইসলাম মারুফ জানান,ম্যানেজমেন্টে বিভাগ হতে মাষ্টার্স শেষ করার পরে এক রকম বেকার ছিলাম। চাকুরির জন্য বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেও ভাল চাকুরি মিলেনি। ফলে নিজেদের জমিতে কম খরচে ভাল ফসল উৎপাদনের চিন্তা করে বর্তমানে নিজেদের ঘোড়াদহ বিলে ৩ বিঘা জমিতে ধৈঞ্চায় চাষ করেছেন তিনি। তিনি জানান,এক বিঘা জমিতে ৩ কেজি বীজ লাগে। প্রতি কেজি বীজ ৪০ টাকায় কিনে বপণ করেন। ধৈঞ্চ্যা চাষে বীজ ছাড়া আর কোন খরচ হয়না।

মাত্র ৫-৬ মাসের মধ্যে মাত্র ৩৬০ টাকা খরচ করে বিঘা প্রতি ধৈঞ্চার খড়ি বিক্রি করে আয় করা যায় ১৫-১৬ হাজার টাকায়। এ ছাড়া এছাড়া কোন জমি উর্বর না থাকলে গাছগুলো কেটে ওই জমিতে ফেলে পচিয়ে দিলে সর্বত্তোম সবুজ সার হিসেবে উর্বরতা বাড়ায়। তিনি বলেন,অল্পপুঁজিতে ধৈঞ্চা চাষ করে একদিকে যেমন অর্থনৈর্তিক ভাবে সাবলম্বি হওয়া যায়,তেমনি জমির ফসল ফলাতেও প্রধান স্যার হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

শিবগঞ্জের একটি ধৈঞ্চা ক্ষেত

একই কথা বলেন,বিনোদপুর এলাকার ধৈঞ্চা চাষী জালাল উদ্দীন। তিনি জানান,প্রতিবছর আড়াই থেকে তিন বিঘা জমিতে ধৈঞ্চ্যা চাষ করে সারা বছরে বাড়ীতে যে পরিমান জ্বালানীর দরকার হয় তা এখান হতেই ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন জমির মালিকের কাছে বীজ বিক্রি করেও টাকা আয় করা সম্ভব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের উপ পরিচালক মঞ্জুরুল হোদা বলেন,ধৈঞ্চা চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মীরা কাজ করছেন। চলতি বছরে জেলায় প্রায় আড়াইশ হেক্টোর জমিতে ধৈঞ্চা চাষ হয়েছে। যা আগামীতে আরও বাড়বে।

শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকতা এসএম আমিনুজ্জামান জানান,এক বিঘা ধৈঞ্চা চাষ করে ৫ থেকে ৬মন বীজ পাওয়া যায়। সে বীজ কৃষকদের কাছে বিক্রি হয় প্রায় এক হাজার টাকা মনে। ফলে ধৈঞ্চা যেমন সর্বত্তোম সবুজ সার হিসেবে ব্যবহার হয় অন্য দিকে জ্বালানী ও বীজ হতেও অর্থ পাওয়া যায়।

220Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর