1. [email protected] : News room :
দেড়শ বছরের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে চাঁপাইয়ের দমমিস্টি ও রসগোল্লা - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন

দেড়শ বছরের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে চাঁপাইয়ের দমমিস্টি ও রসগোল্লা

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি
৫০ বছর আগে মিস্টি (রসগোল্লা) ছিল এক থেকে দুই টাকা কেজি। ৫০ বছরে পাল্টেছে মিস্টির রকম ও বেড়েছে দাম ও ধরণ। বর্তমান শিবগঞ্জের কয়েকটি বাজারে ১৪০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা দামে পাওয়া যাচ্ছে কয়েক পদের মিস্টি। এসবের মধ্যে রয়েছে লালমন,শাহী চমচম,ঐতিহ্যবাহী আসল ও সাবেক- আদি চমচম,দুধসর,রসমালাই,রাজভোগ.দমমিস্টি,রসগোল্লাসহ ১০-১২ পদের মিস্টি। তবে এখনও রেকর্ড ভাংতে পারেনি শিবগঞ্জের ৬/৭ টি মিস্টির দোকান ছাড়াও কানসাট,মনাকষা,চককির্তী ও সোনামসজিদ এলাকায় দোকানের মিস্টি মনাকষা ও সাহাপাড়া এলাকার দমমিস্টি ও চককির্তী ত্রিমোহনী টুলুর সাদা রসগোল্লা।

অর্ডার দিলে বালিশ মিস্টি বা ২ থেকে ৫ কেজি ওজনের একটি চমচম বানিয়ে দিতে পারেন শিবগঞ্জের মিস্টির দোকানদার শ্রী রিপন সাহা ও করুন কুমার সাহাসহ কয়েকটি মিস্টির দোকানদার। শিবগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী ছোট চমচমের পাশাপাশি পাওয়া যায় বাম্পার ( ২০০- ৫০০ গ্রাম ওজন একেকটি ) চমচম।

ভোক্তার কাছে মনাকষা ও সাহাপাড়া এলাকার প্রয়াত সুধির ও হাবল শাহ , জাব্বার ও কালি পদ ও কালু র দোকানের দমমিস্টি এবং ত্রিমোহনী টুলুর দোকানের সাদা রসগোল্লা কয়েক বছর ধরেই সুনাম ধরে রেখেছে। এক বছর থেকে কিছু নতুন পদের মিস্টি তৈরী হচ্ছে শিবগঞ্জ বাজারে দুরুল হোদার রেস্টুরেন্টে । তবে সদরে নবাব মিস্টান্ন ভান্ডারের তৈরী কয়েক পদের নতুন ও পুরাতন মিস্টি শিবগঞ্জের অন্যান্য মিস্টিকে হার মানায়।

জানাগেছে,শিবগঞ্জে প্রায় দেড়শ বছর আগে শ্রী অনন্ত লাল সাহা এর হাতে শুরু হয় মিস্টির দোকান। এরপর তার ছেলে শ্রী নরেন্দ্র নাথ সাহা প্রায় একশ বছর আগে বাবা শ্রী অনন্ত লাল সাহার মিস্টির দোকান ব্যবস্যা ধরে রাখতে হাল ধরেন সংসার ও দোকানের। একই সময় শিবগঞ্জে আরো এক মিস্টির দোকান ছিল মদন লাল সাহার,সেটি চালাচ্ছে তার মরহুম সন্তান গোস্ট বিহারীর এর সন্তান শ্রী কার্তিক ও শ্রী কৃষনা। শ্রী নরেন্দ্র নাথ সাহা এর ৬ ছেলের মধ্যে ৪ ছেলে তাবল সাহা,হাবল সাহা,বিজয় সাহা ও ইন্দ্রভূষন সাহা শিবগঞ্জ ও মনকষায় বংশ পরম্পরার ব্যবসা ধরে রাখতে তা এখন চলে আসছে তার ও তাদের ছেলে ও নাতিপোতাদের হাত ঘুরে। প্রয়াত শ্রী নরেন্দ্র নাথ সাহার পৌত্র ও প্রয়াত শ্রী তাবল সাহার ছেলে চমচম ও মিস্টির দোকানদার শ্রী করুন কুমার সাহা ও বিজয় সাহার ছেলে শ্রী রিপন সাহা জানান, তাদের সহ তার অপর চাচা ইন্দ্রভূষন সাহার ঐতিহ্যবাহী আসল ও সাবেক- আদি চমচম দোকানে দিনে অন্তত ৫ মন চমচম বিক্রি হয়। শ্রী নরেন্দ্র নাথ সাহার মৃত্যুর পর তার ছেলে তাবল সাহা তার বাবার চমচম ও মিস্টির দোকান পরিচালনা করতো। তাবল সাহার মৃত্যুর পর এক দোকান থেকে তার ২ ভাই ও ছেলেরা পৃথক তিনটি দোকান করে নাম দেন ঐতিহ্যবাহী আসল ও সাবেক- আদি চমচম ও মিস্টির দোকান। দেশের বিভিন্ন স্থানের মানুষ শিবগঞ্জে আসলেই এক সময়ের খ্যাত আদি চমচমের প্যাকেট নিয়ে যাওয়া ছাড়া বাড়ি ফেরাটাই ছিল বেমানান,তাই হাতে একটা চমচমের প্যাকেট থাকতোই। যা এখনও তা চলে আসছে। তবে সেই কারীগর না থাকায় খ্যাতিতে কিছুটা দাগ পড়েছে চমচমের।

বিনোদপুর ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক মোঃ হারুন অর রশিদ টুকু ও স্থানীয় সাংবাদিক জামাল হোসেন পলাশ জানান মনাকষা বাজারে কালুর মিস্টি ও দমমিস্টি,সাহাপাড়া জাব্বারের দোকানের দম মিস্টি ও ত্রিমোহনীর টুলুর রসগোল্লা দেশসেরা হবে আশা করা যায়।

শিবগঞ্জের স্থানীয়রা মিস্টি খেলে রসগোল্লা ও দমমিস্টিকে প্রথম তালিকায় রাখেন। দুই ঈদ মৌসুমে চলে মিস্টির রমরমা ব্যবসা। ফুরসোত থাকেনা কারীগর ও দোকানীর। ও পরীক্ষার রেজাল্ট এর সময়। শিবগঞ্জ মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক হোসেনুল হায়দার ও ত্রিমোহনী এলাকার রেজাউল করিম বুলবুল জানান সাহাপাড়া বাজারে প্রয়াত জাব্বার এর দোকানের দমমিস্টি এবং ত্রিমোহনী এলাকায় টুলুর সাদা রসগোল্লা এখন পুরানো ঐতিহ্য ধরে রেখেছে,স্বাদে এখনও ছেদ পড়েনি। কয়েকজন স্থানীয় মিস্টি ভোক্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান শিবগঞ্জে আদি‘র তিন চমচম ও মিস্টির দোকানের চমচম ও মিস্টি যেমন তীব্র মিস্টি তেমনি পুরাতন সুনাম হারাতে বসেছে,আগের মত স্থানীয়রা তেমন এই মিস্টিকে গুরুত্ব দেন না,যতখানি দেন আরো মফস্বলের দমমিস্টি ও রসগোল্লাকে। বেশীর ভাগ দোকানে আসল দূধের ক্ষিরসা ও ম্যাওয়া ( দুধ থেকে তৈরী মিস্টি কাঁচামাল ) দিয়ে মিস্টি না বানিয়ে কম দামে মিস্টির উপকরণ কিনে মিস্টি বানানোর ফলে মিস্টির স্বাদ আর আগের মত মিলছেনা। তবে দেশের অন্যান্য জেলায় তৈরী মিস্টির এখনও অপ্রতিদ্বন্দ্বি শিবগঞ্জের মিস্টি,দমমিস্টি ও চমচম। মিস্টি দোকানীরা জানান আগের মত আসল দূধের ছানা,ম্যাওয়া ও ক্ষিরসা পাওয়া যায়না,অনেক ভাল কারীগরদের মধ্যে অনেকে মিস্টি বানানো বাদ দিয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন।

677Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর