দুর্গাপুরে মসজিদে মোয়াজ্জিনকে বেধড়ক মারপিট, হাসপাতালে ভর্তি - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন

    দুর্গাপুরে মসজিদে মোয়াজ্জিনকে বেধড়ক মারপিট, হাসপাতালে ভর্তি

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২ আগস্ট, ২০২২

    নিজস্ব প্রতিবেদক:


    রাজশাহীর দুর্গাপুরে মসজিদে প্রবেশ করে মোয়াজ্জিনকে বেধড়ক মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গুরুতর আহত মুয়াজ্জিম সাহাদ আলী (৬০) কে দুর্গাপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

    সোমবার (১ আগষ্ট) এশার নামাজ শেষে ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পাচুঁবাড়ী পাঁচগম্বুজ জামে মসজিদে।

    এঘটনায় দূর্গাপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

    প্রত্যক্ষদর্শী ও থানায় লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দুর্গাপুর উপজেলার পাচুঁবাড়ী পাঁচ গম্বুজ জামে মসজিদে গতকাল সোমবার আছরের নামাজ আদায় মূহুর্তে মুয়াজ্জিম ট্রাকিংতে পানি লোড করার উদ্দেশ্যে মটরের সুইচ দিয়ে নামাজ আদায় করতে থাকেন। এ সময় পানির টাংকিতে লোড হয়ে ওভারফ্লো হলে পানি পড়তে থাকে, এ ঘটনায় মসজিদে উপস্থিত মুসল্লি বাহার আলী মসজিদ মসজিদ কে গালিগালাজ করে। বিষয়টি ভুল হয়েছে বলে মসজিদ মুয়াজ্জিম সাহাদ আলী ভূল স্বীকার করে বাহার আলীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। কিন্তু তাতেও বাহার আলীর মন নরম হয়নি। পরবর্তীতে এশার নামাজ শেষে বাহার আলী মসজিদ মুয়াজ্জিমকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে মসজিদ থেকে বের করে দিতে চাইলে মোয়াজ্জেমের বড় ভাই প্রতিবাদ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাহার আলী বাড়িতে খবর পাঠিয়ে তার তিন ছেলে রেজাউল, আঃ রাজ্জাক ও রনিকে ডেকে এনে মসজিদের ভিতরে মুয়াজ্জিম সাহাদআলী (৬০) কে বেধড়ক মারপিট করে।

    এ সময় উপস্থিত মসজিদে উপস্থিত মুসল্লি জহুরুল মাস্টার, মোহাম্মদ আলী, আফজাল হোসেন সহ কয়েকজন এগিয়ে এসে তাদের হাত থেকে মুয়াজ্জিম সাহাদ আলীকে উদ্ধার করে দ্রুত দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় দূর্গাপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

    এ বিষয়ে ইউপি সদস্য আবু খায়ের বলেন, এটি একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। আমি নিজে আহত মুয়াজ্জিমকে নিয়ে দূর্গাপুর থানায় গিয়ে পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা বলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

    এ বিষয়ে পাচুঁবাড়ী পাঁচ গম্বুজ জামে মসজিদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল হোসেন ইনসান বলেন, গতকাল সোমবার এশার নামাজ শেষে মসজিদের ট্রাকিংর পানি ওভারফ্লো হয়ে পড়ার অভিযোগে একই গ্রামের একটি পরিবারের লোকজন মসজিদে প্রবেশ করে মুয়াজ্জিম কে মারপিট করেছে। বিষয়টি তিনি দুর্গাপুর থানার ওসি মহোদয়কে জানিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

    এ ঘটনায় জড়িত দুষ্কৃতিকারী পরিবারের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেছেন এলাকার মুসল্লিসহ সকল পেশার জনসাধারণ।

    এ বিষয়ে দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাজমুল হক বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


    লালসবুজের কণ্ঠ/এআর

    22Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর