ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং হতে পারে সফল ক্যারিয়ারের সেরা চাবিকাঠি - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন

    ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং হতে পারে সফল ক্যারিয়ারের সেরা চাবিকাঠি

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৭ জুন, ২০১৯

    লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:
    বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় তাত্ত্বিক বিষয়ভিত্তিক পড়াশোনায় পছন্দের চাকরি পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। পছন্দের বিষয়ে গ্রাজুয়েশন শেষ করেও মিলছে না পছন্দের কর্মক্ষেত্র। যার ফলে বেকার সমস্যা দিনদিন বেড়েই চলেছে। দক্ষ জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে পৃথিবীর সব দেশেই কারিগরি শিক্ষাকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া হয়। উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে বাংলাদেশও এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি আমাদের দেশে রয়েছে অনেক কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এসএসসি পাসের পর এসব প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন কোর্সে ভর্তির সুযোগ পাওয়া যায়। দেশে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের রয়েছে অপার সম্ভাবনা। প্রতি বছর হাজার হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি হচ্ছে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। চলুন জেনে নেওয়া যাক ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পর্কে বিস্তারিত…

    ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কি?
    প্রকৌশল বা ইঞ্জিনিয়ারিং হচ্ছে মানুষের সমস্যাবলী সমাধান এবং জীবনকে সহজ করার জন্য বৈজ্ঞানিক এবং প্রযুক্তিগত জ্ঞানের প্রয়োগ। প্রকৌশলীগণ বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, গণিত এবং বাস্তব অভিজ্ঞতা প্রয়োগ করুনবার জন্য তাঁদের কল্পনাশক্তি, বিচারক্ষমতা এবং যুক্তিপ্রয়োগক্ষমতা ব্যবহার করেন। এর ফলাফল হচ্ছে উন্নততর নিত্যপ্রয়োজনীয় বস্তু ও নিত্যব্যবহার্য কর্মপদ্ধতির আবির্ভাব যেটি প্রতিদিনের জীবনকে সহজ করে দেয়।

    আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে হলে এইচএসসি (HSC) বা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা পাশের পর যে কেবল প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি হলেই বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং সম্ভব।

    ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং হতে পারে সফল ক্যারিয়ারের চাবিকাঠি

    দেশের প্রথম সারির ইন্সটিটিউট এনআইইটি -তে শিক্ষার্থীরা

    তুলনামূলক কম সময়ে কোর্স সমাপ্তি আর কোর্স শেষে ন্যূনতম চাকরির নিশ্চয়তা থাকে এখানে। এ দুয়ে মিলে ডিপ্লোমা প্রকৌশলের চাহিদা হালের শিক্ষার্থীদের কাছে সবচেয়ে বেশি। চার বছর মেয়াদি এই কোর্সে ভর্তি হতে হয় এসএসসি (ssc) বা মাধ্যমিকের পর। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতায় পরিচালিত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে বিভিন্ন জেলা শহরে অবস্থিত সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাড়াও ইনস্টিটিউট অব গ্লাস অ্যান্ড সিরামিক, গ্রাফিক আর্টস ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ সার্ভে ইনস্টিটিউটে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তির জন্য আবেদন করতে চাইলে গণিত বা উচ্চতর গণিত বিষয়ে জিপিএ ৩.০০সহ কমপক্ষে জিপিএ ৩.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। এছাড়া বেসরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তির জন্য গণিতে জিপিএ ২.০০ পেলেই চলবে।

    ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কেন পড়বেন?
    বিশ্বের যে সব দেশ কারিগরি শিক্ষাকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে সেই সব দেশ তত বেশি অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হয়েছে। উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশের উন্নয়নের কর্মধারা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, দেশের সকল শ্রেণির শিক্ষিত জনগোষ্ঠি সমন্বিত অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখলেও এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে কারিগরি শিক্ষা।

    বিশেষ করে মধ্যমস্তরের কারিগরি শিক্ষা। অর্থাৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নের এটি সরাসরি কারিগরি ও দক্ষ জনশক্তি ব্যবহারের সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত। কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত জনগোষ্ঠির সম্পৃক্ততার হারের উপর গড় বাৎসরিক মাথাপিছু আয় নিবিড়ভাবে নির্ভরশীল। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কারিগরি শিক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করায় আজ তারা উন্নত বিশ্বের কাতারে অবস্থান নিশ্চিত করেছে।

    যে প্রতিষ্ঠানে পড়ানো হয় :
    কর্মমুখী শিক্ষা নিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে আপনাকে পড়তে হবে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটগুলোতে। বর্তমানে বাংলাদেশে ৫০টি সরকারি ও ৪৩৯টি বেসরকারি পলিটেনিক ইনস্টিটিউটে ৩৫টির বেশি বিষয়ে প্রায় ৭৩ হাজার আসনে ছাত্রছাত্রীরা ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির সুযোগ পায়। এছাড়া ছাত্রীদের জন্য ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনায় রয়েছে চারটি আলাদা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট। এ ছাড়া দেশে ১৩টি কৃষি ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউট, তিনটি টেক্সটাইল, ৩৯টি হেলথ টেকনোলজি ইনস্টিটিউট, একটি গ্রাফিক্স আর্টস ইনস্টিটিউট ও একটি গ্লাস অ্যান্ড সিরামিকস ইনস্টিটিউট রয়েছে। এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় পাসের পর ছাত্রছাত্রীরা চার বছর মেয়াদি বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হতে পারে।

    যে বিষয়ে পড়তে পারেন :
    কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে অধীনে সেমিস্টার ভিত্তিতে বিভিন্ন বিষয়ের ওপর পড়ানো হয়। উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো হচ্ছে- সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্কিটেকচার ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং, এনভায়রনমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং, রিফ্রিজারেশন অ্যান্ড এয়ার কন্ডিশনিং ইঞ্জিনিয়ারিং, ইন্সট্রমেন্টশন অ্যান্ড প্রসেস কন্ট্রোল ইঞ্জিনিয়ারিং, টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং। এ বিষয়গুলোতে পড়ালেখা করে বসে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম।

    ভর্তি সংক্রান্ত তথ্যাদি :
    ভর্তি সংক্রান্ত সব তথ্যের জন্য কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইট www.bteb.gov.bd অথবা www.techedu.gov.bd ভিজিট করতে পারেন পলিটেকনিকে ভর্তি হতে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা।

    চাকরির বাজার :
    হাতে-কলমে বাস্তবমুখী শিক্ষার নাম কারিগরি শিক্ষা। এটি সময় উপযোগী শিক্ষা, এতে শিক্ষিত হয়ে গড়তে পারেন স্বপ্নের ক্যারিয়ার। ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ালেখা করে দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজের সুযোগ রয়েছে। তবে চাকরির ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো কর্মদক্ষতা। আপনি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করে চাকরিতে ঢুকে শুরুতেই আট হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পেতে পারেন। পাওয়ার হাউস, বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি, টেক্সটাইল, সিরামিকের বিভিন্ন কলকারখান, টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি, হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিংস রিচার্স ইন্সটিটিউট, জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ, রাজউক, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে চাকরির সুযোগ রয়েছে। পেশা জীবনে সফলতার পূর্ব শর্ত হল কর্মদক্ষতা, কাজের অভিজ্ঞতা ও কাজের প্রতি মনোযোগ। এসব গুণ নিয়ে একজন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ধাপে ধাপে উন্নতি করতে পারে। এখানে পড়ালেখা করে উপ-সহকারী প্রকৌশলী থেকে প্রধান প্রকৌশলী পর্যন্ত যেতে পারেন।

    নিতে পারবেন উচ্চ শিক্ষা :
    পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করার পরে রয়েছে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ। দেশে-বিদেশে বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে নিতে পারেন বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি। চাইলে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট) থেকে নিতে পারেন বিএসসি বা এমএসসি ডিগ্রি। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও বিদেশের বিভিন্ন খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন।

    পড়াশোনার খরচ :
    সরকারী প্রতিষ্ঠানে বিনা খরচে অধ্যায়ন করতে পারবে শিক্ষার্থীরা। বেসরকারি পলিটেকনিকে পড়াশোনার খরচও অভিভাবকদের নাগালের মধ্যে। সেখানে প্রতিষ্ঠান ও বিষয়ভেদে খরচ পড়বে আলাদা আলাদা। সে ক্ষেত্রে ৯০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২ লাখ টাকার মতো খরচ হবে। এ ছাড়া গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের আর্থিক সুবিধার জন্য বিশ্বব্যাংক ও কানাডার যৌথ উদ্যোগে বিশেষ বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে বেসরকারি পলিটেকনিক গুলোতে।

    সেরা প্রতিষ্ঠানসমূহ :
    সরকারির প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বেসরকারি যেসব প্রতিষ্ঠানে এ চার বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ানো হয় সেগুলোর মধ্যে ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি (এনআইইটি), বিজিআইএফটি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (বিআইএসটি), ন্যাশনাল প্রফেশনাল ইনস্টিটিউট (এনপিআই), ওয়েস্টার্ন আইডিয়াল ইনস্টিটিউট (ডাব্লিওআইআই) অন্যতম।

    ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং হতে পারে সফল ক্যারিয়ারের চাবিকাঠি

    দেশের প্রথম সারির ইন্সটিটিউট এনআইইটি -তে শিক্ষার্থীরা

    সাফল্যের ধারাবাহিকতায় প্রতি বছর এসকল ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট’র ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারী শিক্ষার্থীরা চাকরির ক্ষেত্রে দেশের খ্যাতনামা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে যোগদান করছেন। বিশেষ করে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা ও এর উপযোগিতা সময়ের সঙ্গে পরিবর্তিত হওয়ার ফলে সেই পরিস্থিতির সঙ্গে দ্রুত খাপ খাইয়ে নিতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। অর্থনীতির আকার দিন দিন প্রসারিত হচ্ছে। সে সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ছে বহির্বিশ্বের সঙ্গে। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে নিজেকে অন্যের কাছে তুলে ধরা বা যেকোনো নতুন সুযোগকে কাজে লাগাতে তথ্যপ্রযুক্তির ছেলেমেয়েরাই এগিয়ে থাকে। নিজেকে তুলে ধরতে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারেও তারা অনেক বেশি পারদর্শী হয়।

    রাজধানীর গ্রীনরোডে এবং রুপগঞ্জের রূপসী বাস স্ট্যান্ডে অবস্থিত এনআইইটি (NIET), গাজীপুরের চন্দনা চৌরাস্তায় অবস্থিত বিআইএসটি (BIST), মহাখালীতে অবস্থিত এনপিআই (NPI), গ্রীনরোডে অবস্থিত ডাব্লিওআইআই (WII) ক্যাম্পাসে রয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত সুসজ্জিত ল্যাব। এছাড়া এসকল প্রতিষ্ঠানে ছেলে ও মেয়েদের জন্য পৃথক হোস্টেলে আবাসিকের সুবিধাও রয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য আরও রয়েছে সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে (STEP) প্রকল্পের আওতায় সকল ছাত্রী এবং মনোনীত ছাত্রদের প্রতি সেমিষ্টারে ৪৮০০ টাকা বৃত্তি প্রাপ্তির সুযোগ। জব প্লেসমেন্ট সেল থেকে চাকরির ব্যবস্থা। পাশ করার পর সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উপসহকারী প্রকৌশলী পদে চাকরির সুযোগ। এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক ইভেন্টে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে শীর্ষস্থান অর্জনসহ সুনাম ছড়াচ্ছে। যার ফলে শিক্ষার্থীদের দক্ষতা এবং আত্মবিশ্বাস উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

    এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অর্জনসমূহ :

    ডিজিটাল সায়েন্স ফেয়ার ২০১৫-তে প্রথম স্থান
    সায়েন্স ফেয়ার ২০১৬-তে প্রথম স্থান
    ঢাকা বিভাগীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা ২০১৬-তে প্রথম স্থান
    এসটিইপি স্কিল কম্পিটিশন ২০১৬-তে ২য় স্থান
    জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৮-তে শ্রেষ্ঠ কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
    ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০১৮-তে প্রথম স্থান
    জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা ২০১৮-তে দ্বিতীয় স্থান

    প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে এবং পরিবর্তিত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষার্থীদের বাস্তবমুখী শিক্ষাদান করে আসছে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যার ফলশ্রুতিতে তারা প্রতিনিয়ত সফলতার পথে এগোচ্ছে। সার্টিফিকেট নির্ভর পড়াশোনার বাইরে গিয়ে এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক ক্ষেত্রে দক্ষ করে গড়ে তোলা হচ্ছে। ফলে একজন শিক্ষার্থী তার ক্যারিয়ার গড়তে এই ব্যবহারিক দক্ষতার শতভাগ প্রয়োগ করে নিজেকে এবং দেশকে সমৃদ্ধ করছে।

    শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে উপরে উল্লেখিত বাংলাদেশের কয়েকটি সেরা বেসরকারী কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগের বিস্তারিত তুলে ধরা হলো :

    ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি (এনআইইটি)
    ঠিকানা (নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পাস) : রূপসী বাস স্টান্ড, রূপগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ
    মোবাইল : ০১৮৭৮-১০১০১০, ০১৭৩১-০০৬৯৮৯, ০১৯৭১-২২০০৯৯

    ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি (এনআইইটি)
    ঠিকানা (ঢাকা ক্যাম্পাস) : ৬৯/ই, পান্থপথ, গ্রীনরোড, ঢাকা
    মোবাইল : ০১৮৪১-৫৫১১৬৬, ০১৭৯৯-১২৩৪৫৬

    বিজিআইএফটি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (বিআইএসটি)
    ঠিকানা : চন্দনা চৌরাস্তা, গাজীপুর
    মোবাইল : ০১৯৯২০-৭৭০৪১ থেকে ৪৫, ০১৯২২-০৬৫১১১, ০১৯৬৮-৮৭৮৭৭৩, ০১৯৬৮-৮৭৮৭৭৪, ০১৭৬০-২৯২৯২৯

    ন্যাশনাল প্রফেশনাল ইনস্টিটিউট (এনপিআই)
    ঠিকানা : ৭০ শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ স্মরনী, মহাখালী, ঢাকা
    মোবাইল : ০১৬৭৮-৬৬৬৬২৫, ০১৯৫৫-৫২৯৭০৪, ০১৯৯৪-৩৭৭০৫৫, ০১৭৩১-২২০০৯৯

    ওয়েস্টার্ন আইডিয়াল ইনস্টিটিউট (ডাব্লিওআইআই)
    ঠিকানা : ১৪৭/এ/১, গ্রীনরোড, তেজগাঁও, ঢাকা-১২১৫
    মোবাইল : ০১৬৭৮-৬৬৬৬২০ থেকে ২২, ০১৯৯২-০৫৭৭৭৭

    144Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর