টানা তিন দিনের ছুটি থাকলেও সমুদ্রসৈকতে পর্যটকের সংখ্যা কম - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:২৪ পূর্বাহ্ন

    টানা তিন দিনের ছুটি থাকলেও সমুদ্রসৈকতে পর্যটকের সংখ্যা কম

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট, নিউজ ডেস্ক


    পয়লা বৈশাখ ও সাপ্তাহিক ছুটির তিন দিনে পর্যটকসমাগমের আশা করেছিলেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু এবারের নববর্ষ বরণের ছুটিতে পর্যটননগরী কক্সবাজারে পর্যটকের সংখ্যা কম। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, পবিত্র রমজান ও অতিরিক্ত গরমের কারণে পর্যটক কমেছে। এতে বেশির ভাগ হোটেল-মোটেল বুকিং নেই। সৈকতও একেবারে ফাঁকা।

    কক্সবাজার শহরের সমুদ্রসৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট। এই স্থানে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি পর্যটকের সমাগম হয়। গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় ফুল ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন সৈকতের বালিয়াড়িতে দাঁড়িয়ে এক হাতে রঙিন ফুল এবং আরেক হাতে মোবাইলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কাটছে তাঁর সময়।

    জসিম উদ্দিন জানান, সকাল থেকে ৩০০ টাকার মতো বেচাবিক্রি হয়েছে। পর্যটক নেই। স্থানীয় কিছু আদিবাসী তরুণ-তরুণী ঘুরতে এসেছেন। তাঁদের কাছেই ফুলগুলো বেচতে পেরেছি।

    এই সৈকতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে হাজারখানেক পর্যটক। কেউ নোনাজলে গোসল করছেন, কেউ ওয়াটার বাইকে চড়ছেন। ঢাকা থেকে আসা এক নারী পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মেয়েকে নিয়ে ঘুরতে এসেছেন। ফাঁকা সৈকত। বেশ আনন্দ পাচ্ছেন তিনি। তবে নববর্ষ উপলক্ষে কোনো আয়োজন দেখতে না পেয়ে মেয়ে অবাক হয়েছে বলে জানান তিনি।

    পাঁচ-ছয়টি ঘোড়া এদিক-ওদিক ঘুরছে। ঘোড়াগুলোর মালিকেরা পর্যটকদের পিঠে চড়িয়ে আনন্দ দেন। এতে যে বকশিশ পান, তা দিয়ে ঘোড়ার খাবার জোগাড়ের পাশাপাশি মালিকের সংসারও চলে। ঘোড়ার মালিকের কাছে চুক্তিতে থাকে আরমান নামের এক কিশোর। সে জানায়, রোজার শুরু থেকে সৈকতে ঘোরাঘুরি করে সময় কাটছে। কিন্তু পর্যটক না থাকায় রোজগার নেই।

    পয়লা বৈশাখ মানে সমুদ্রসৈকতে অন্য রকম আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন পর্যটকেরা। কোথাও তিল পরিমাণ ঠাঁই থাকত না। কিন্তু এই প্রথম সুনসান নীরবতায় বর্ষবরণ হলো কক্সবাজার সৈকতে। এর দু-একটি পয়েন্টে স্থানীয় কিছু পর্যটক দেখা গেলেও দেশের অন্য জেলা থেকে পর্যটক আসেননি বললেই চলে। তবে ঈদে বিপুলসংখ্যক পর্যটক আসবেন বলে আশাবাদী পর্যটনসংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

    কলাতলীর একটি হোটেলের মালিক মোহাম্মদ সোহেল বলেন, ‘পর্যটকের অভাবে অধিকাংশ হোটেল, মোটেল, কটেজ ও রেস্তোরাঁর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অলস সময় কাটাচ্ছেন। বেশির ভাগ হোটেল বুকিংশূন্য।

    সরেজমিনে সুগন্ধা পয়েন্ট, লাবণী ও কলাতলীতে দেখা গেছে, পর্যটকনির্ভর শামুক, ঝিনুক, শুঁটকিসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্যের দোকানপাটও বন্ধ। সৈকতের বালিয়াড়িতে চেয়ার-ছাতা বিছানো থাকলেও খালি পড়ে রয়েছে।

    সৈকতের ফটোগ্রাফার মো. নেজাম (২৫) বলেন, ‘পয়লা বৈশাখে সৈকতে লাখো মানুষ ছুটে আসে। কিন্তু এবার রোজার কারণে ব্যতিক্রম দেখা গেছে। যারা এসেছে তারা স্থানীয় পর্যটক। কেউ ছবি তুলতে চায় না। এ রকম নিরানন্দের বৈশাখ আর দেখিনি।’

    কক্সবাজার কলাতলী হোটেল, মোটেল ও রিসোর্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুকিম খান বলেন, ‘এবারের বর্ষবরণ পবিত্র রমজান মাসে হওয়ায় পর্যটক আসেননি। এতে হতাশ হোটেল, মোটেল ব্যবসায়ীরা। অবশ্যই ঈদে বিপুলসংখ্যক পর্যটক আসার সম্ভাবনা রয়েছে।’

    পর্যটকদের আরও সেবা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলার উন্নতি প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

    কক্সবাজার হোটেল-মোটেল, গেস্টহাউস মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম সিকদার বলেন, ‘রমজান মাসে পর্যটক একটু কম আসে। কিন্তু এভাবে পয়লা বৈশাখ উদ্‌যাপনেও পর্যটকশূন্যতা দেখা দেবে, তা আশা করিনি। তবে ঈদে বিপুল পর্যটক আসবেন বলে আশা করছি। এ জন্য হোটেল, মোটেল, গেস্টহাউস কর্তৃপক্ষ পর্যটকদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।’

    ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘এবার পয়লা বৈশাখে পর্যটক আসেননি বললেই চলে। সমুদ্রসৈকতসহ জেলার বিনোদনকেন্দ্রগুলোও ফাঁকা ছিল। তারপরও ট্যুরিস্ট পুলিশ সমুদ্রসৈকতে পর্যটকদের সেবায় প্রস্তুত রয়েছে।’


    নিউজ ডেস্ক/শান্ত

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর