টাঙ্গাইলে ধর্ষন ও হত্যা মামলায় তিন যুবকের মৃত্যুদন্ড - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:১৯ অপরাহ্ন

    টাঙ্গাইলে ধর্ষন ও হত্যা মামলায় তিন যুবকের মৃত্যুদন্ড

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০২২

    টাঙ্গাইল প্রতিনিধি


    টাঙ্গাইলে এক স্কুল ছাত্রী অপহরন, ধর্ষন ও হত্যা মামলায় তিন যুবকের মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত।বৃহস্পতিবার দুপুরে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় প্রদান করেন। রায়ে দোষী সাব্যস্ত না হওয়া একজনকে খালাস দেয়া হয়।

    দন্ডপ্রাপ্তরা হলো- টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার ভেঙ্গুলা গ্রামের মৃত নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে কৃষ্ণ চন্দ্র দাস, ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহম্মেদ ওরফে হৃদয় এবং মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান।

    মামলায় খালাশ প্রাপ্ত হলেন- টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মো: গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মো: মেহেদি হাসান ওরফে টিটু (২৮)। টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিষেশ পিপি আলী আহম্মেদ জানান, টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার জয় নগর গ্রামের মো: খোকন মিয়ার মেয়ে খোদেজা খাতুন ২০২১ সালের ২ আগষ্ট দুপুরে গোপালপুর উপজেলার মনতলা গ্রামে নানীর বাড়ীতে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়।

    খোদেজা বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন বিভিন্নস্থানে খোজাখোজি করে। পরে ৪ আগষ্ট ভূঞাপুর থানা পুলিশ ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের পাশ থেকে একটি অজ্ঞাত মেয়ের লাশ উদ্ধার করে। পরিচয় সনাক্ত না হওয়ায় লাশের সুরতহাল ও ময়না তদন্ত শেষে ছাব্বিশা গ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয়।

    ৫ আগষ্ট খোদেজার বাবা ভূঞাপুর খানায় গিয়ে ছবি দেখে তার মেয়ের লাশ হিসেবে সনাক্ত করে। পরে ভূঞাপুর থানায় ৬ আগষ্ট অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) মামলাটি তদন্ত করে হত্যার রহস্য উদঘাটনসহ চারজন আসামীকে গ্রেফতার করে। ৮ আগষ্ট গ্রেফতারকৃত চারজনই অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তীমূলক জবানবন্দি দেয়। দন্ডিত আসামী কৃষ্ণ চন্দ্র দাস মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নিজেকে মুসলিম পরিচয় দিয়ে খোদেজার সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তুলে।

    পরে ঘটনার দিন রেস্টুরেন্টে খাওয়া দাওয়া ও মার্কেট করে দেওয়া কথা বলে ডেকে নিয়ে দন্ডিত আসামী হৃদয় ও মিজানের সহযোগীতায় ডিসিষ্টের সাথে একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে খোদেজাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করার পর বস্তাবন্দি অবস্থায় ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের পাশে খোদেজার লাশ ফেলে চলে যায়।

    শোভন/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর