ঝুঁকিতে মানসিক স্বাস্থ্য, জেনে নিন ভালো রাখার কৌশল - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:২৯ অপরাহ্ন

    ঝুঁকিতে মানসিক স্বাস্থ্য, জেনে নিন ভালো রাখার কৌশল

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১০ অক্টোবর, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক,লালসবুজের কন্ঠ;


    আজ বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস ২০২২ পালিত হচ্ছে। বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস হলো পৃথিবীর সকলের মানসিক স্বাস্থ্যশিক্ষা, সচেতনতার দিন।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে, “মেকিং মেন্টাল হেলথ অ্যান্ড ওয়েল-বিয়িং ফর অল অ্যা গ্লোবাল প্রায়োরিটি।”

    অর্থাৎ “সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য ও সুস্থতাকে বিশ্বব্যাপী অগ্রাধিকার দিন।” ১৯৯২ সাল থেকে পৃথিবীব্যাপী বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উদযাপন হয়ে আসছে।

    সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা বেড়েছে। তবে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ব্যবস্থার অভাবে দেশে এখনও অবহেলিত মানসিক স্বাস্থ্যসেবা।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে বাংলাদেশে ৩ কোটি মানুষ মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। এখন পর্যন্ত দেশের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই; রয়েছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সংকটও।

    চলতি বছর জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য নীতি-২০২২ পাশ হওয়ায় মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে উদ্যোগ বাড়বে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

    জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য নীতি ২০২২-এর তথ্য বলছে, দেশে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার তুলনায় মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সংখ্যা খুবই কম। বাংলাদেশে প্রতি এক লাখ মানুষের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য কর্মীর সংখ্যা মাত্র ১.১৭ জন। এরমধ্যে ০.১৩ জন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, ০.০১ জন অন্যান্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, ০.৮৭ জন মানসিক স্বাস্থ্যবিষয়ক সেবিকা এবং ০.১২ জন মনোবিজ্ঞানী ও অন্যান্য পেশাদার মানসিক স্বাস্থ্যকর্মী।

    মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, অ্যাংজাইটি, বাইপোলার মুড ডিজঅর্ডার, সিজোফ্রেনিয়া, সাইকোসিস ডিজঅর্ডার, সাবস্টেন্স অ্যাবিউজ, হেলথ অ্যাংজাইটি, আর্থিক নিরাপত্তা, নিরাপত্তাহীনতা এসবে প্রতিনিয়ত ভুগছে মানুষ। যেকোনো বয়সের মানুষই মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

    মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মনের যত্ন না নেওয়া ও চিকিৎসকের শরণাপন্ন না হওয়ায়, সমস্যা আরও বাড়ছে। এর জন্য প্রয়োজন মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে সুস্থ-সুন্দর জীবনের নিশ্চয়তা। হতাশা, বিষণ্নতা, অপ্রাপ্তি, একাকিত্ব-মানুষের মনোজগতে এসবের রয়েছে প্রচণ্ড প্রভাব। শুধু গুরুতর মানসিক রোগী নয়, নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের যত্নের নেয় না বেশিরভাগ মানুষ।

    বিশেষজ্ঞরা আরও বলছেন, কোভিড-নাইনটিনের এর সময়ে ও এর পরবর্তীতে মানসিক রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। আত্মহত্যা করা ৫০ ভাগেরই মানসিক সমস্যায় ভোগেন।

    বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, মানসিক রোগের কারণ ও চিকিৎসা বিষয়ক কুসংস্কার দূর করা ও দুশ্চিন্তামূক্ত প্রাণোচ্ছ্বল জীবনযাপনেই এ অবস্থা থেকে উত্তরণ ঘটাবে।

    মানুষের স্বাস্থ্য ভালো রাখার মধ্যেই সুখের অনুভূতি পাওয়া যায়। তবে স্বাস্থ্য বলতে শুধু শারীরিক স্বাস্থ্যকেই বোঝায় না। শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মানসিক সুস্থতাও অত্যন্ত জরুরী। শরীর সুস্থ থাকলে মানসিকভাবে যদি কেউ অসুস্থ হয়ে পড়ে তাহলে তার জীবন যাপন অত্যন্ত ব্যাহত হবে।

    তাই শারীরিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি সকলের যত্নবান হওয়া উচিত। জীবনযাপনে সামান্য কিছু পরিবর্তন এনে সব মানসিক সমস্যা দূরে ঠেলে মনকে ফুরফুরে করে তুলতে পারেন। এ রকম সহজ কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে পারেন।

    পুষ্টিকর খাবার খান

    পুষ্টিকর খাবার শুধু শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং মনের জন্যও উপকারী। কিছু খনিজ যেমন- আয়রন ও ভিটামিন বি ১২ এর ঘাটতি মেজাজ পরিবর্তনের জন্য দায়ী। তাই সুষম খাবার খাওয়া জরুরি। আপনি যদি খিটখিটে মেজাজ, হতাশা বা উদ্বিগ্নতায় ভোগেন তাহলে কফি খাওয়া কমিয়ে আনুন। পুষ্টিমানসম্পন্ন ও সুষম খাবার খাবেন। খাবারের তালিকায় বেশি করে ফল আর সবজি রাখুন। মস্তিষ্ককে উদ্দীপিত রাখে এমন খাবার, বিশেষ করে বাদাম কিংবা পালংশাকের মতো খাবার খান।

    নিয়মমাফিক চলুন

    দৈনিক কাজের একটি নিয়ম দাঁড় করান। সময়ের কাজ সময়ে করুন। নিয়ম মেনে খাওয়া, ঘুম থেকে জাগা বা বিছানায় যাওয়ার বিষয়টি মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য দরকারি। যারা নিয়ম মেনে চলেন, তাদের মানসিক ও শারীরিক দিক থেকে সুস্থ থাকার হার বেশি বলেই গবেষণায় দেখা গেছে।

    শরীরচর্চা আবশ্যক

    মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে হবে। কারণ যত বেশি সক্রিয় থাকবেন, মস্তিষ্কের রাসায়নিক পদার্থগুলোও বেড়ে যায়। যা মেজাজ ভালো রাখতে সহায়তা করে। অন্যদিকে শরীরচর্চার অভাবে মেজাজ খারাপ হতে পারে। পাশাপাশি উদ্বেগ, চাপ, ক্লান্তি ও অলসতা বোধ করতে পারেন। তাই শরীর ও মন দু’টোই ভালো রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা করুন। নিয়মিত হাঁটাহাঁটি ও কায়িক পরিশ্রম করেও সুস্থ থাকতে পারবেন।

    পর্যাপ্ত ঘুমান

    ঘুম শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ঘুম মস্তিষ্কের রাসায়নিক পদার্থগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এই রাসায়নিকগুলো আমাদের মেজাজ ও আবেগ পরিচালনা করে। যদি আমরা পর্যাপ্ত না ঘুমায়, তাহলে মস্তিষ্কে বিভিন্ন অংশ ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। ফলে হতাশ ও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়া স্বাভাবিক। তাই পর্যাপ্ত ঘুমের বিকল্প নেই।

    যন্ত্রের ব্যবহার সীমিত করুন

    মানুষের হাতে হাতে মোবাইল ফোন কিংবা মনোযোগ কেড়ে নেওয়া নানা যন্ত্র রয়েছে। মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে যতটা সম্ভব যন্ত্রের ব্যবহার সীমিত করুন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার এক ঘণ্টা আগে মোবাইল ফোনসহ যন্ত্র ব্যবহার বাদ দিন। এমনকি দিনের বেলাতেও যন্ত্র যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন।

    সক্রিয় থাকুন

    সংবাদপত্র পড়ে, পাজল মেলানো, ক্রসওয়ার্ড সমাধান করার মতো নানা কাজে মস্তিষ্ককে ব্যস্ত রাখুন। মস্তিষ্ক সক্রিয় থাকলে স্মৃতিশক্তি উন্নত হবে, এমনকি শেখার দক্ষতা বাড়বে।

    অ্যালকোহল, ধূমপান ও মাদক পরিহার করুন

    অনেকেই হতাশ হয়ে ধূমপান ও মাদকের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। তবে জানেন কি, এগুলো হতাশা কাটায় না বরং শরীর ও মনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। দীর্ঘ সময় ধরে অতিরিক্ত মদ্যপানে শরীরে থায়ামিনের ঘাটতি হতে পারে। থায়ামিন মস্তিষ্কের কার্যকারিতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর ঘাটতি দেখা দিলে স্মৃতি বিভ্রাট, মনোযোগের অভাব, বিভ্রান্তি ও চোখের সমস্যা হতে পারে। আবার যদি আপনি ধূমপান করেন, এতে থাকা নিকোটিন শরীর ও মস্তিষ্ক উভয়েরই ক্ষতি করে। পরবর্তীতে ধূমপান বন্ধ করলে আপনি আরও বিরক্ত ও উদ্বিগ্ন হয়ে উঠতে পারেন। তাই মাদকমুক্ত জীবন গড়ুন।

    সূর্যের আলো গায়ে মাখুন

    সূর্যালোক ভিটামিন ডি এর একটি বড় উৎস। ভিটামিন ডি শরীর ও মস্তিষ্কের খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি মস্তিষ্কের ক্ষতিকর পদার্থ দূর করে। ফলে মেজাজ আরও উন্নত হয়। কারণ অ্যান্ডোরফিন ও সেরোটোনিন এর উৎপাদন বেড়ে যায়। তবে রোদে গেলে ত্বক ও চোখকে নিরাপদ রাখুন। প্রতিদিন অন্তত আধা ঘণ্টা থেকে ২ ঘণ্টা গায়ে সূর্যের আলো মাখুন। শীতের সময় অনেকেই হতাশ হয়ে পড়েন। কারণ তখন সূর্যের দেখা কম পাওয়া যায়। এটি সিজনাল অ্যাফেকটিভ ডিসঅর্ডার (এসএডি) নামে পরিচিত। তাই পর্যাপ্ত সূর্যের আলো গায়ে মাখুন, এতে মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটবে।

    দুশ্চিন্তা দূরে রাখুন

    সবার জীবনেই কাজের চাপ আছে। তাই বলে এ নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তা করা উচিত নয়। এ সমস্যা সমাধানে আপনাকে জানতে হবে কীভাবে আপনি চাপ সামলাবেন। যদি না পারেন তাহলে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়বেন। এজন্য দৈনন্দিন জীবনের কোনো না কোনো সমস্যার তালিকা তৈরি করুন। এরপর তা সমাধানের উপায় খুঁজুন। অযথা অলীক কল্পনায় ডুবে থাকবেন না। যখন দেখবেন আপনার ঘুমাতে সমস্যা হচ্ছে, তার অর্থ হলো আপনি বেশি দুশ্চিন্তা করছেন!

    মিশুক হওয়ার চেষ্টা করুন

    অন্যদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা করুন। যখনই সুযোগ পাবেন মানুষের সঙ্গে কথা বলুন। গবেষণায় দেখা গেছে, অন্যদের সঙ্গে মাত্র ১০ মিনিট কথা বলা স্মৃতিশক্তি ও পরীক্ষার স্কোর উন্নত করতে পারে! তাই মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ান ও মিশুক হওয়ার চেষ্টা করুন।

    হঠাৎ রেগে যাবেন না

    মাঝে মাঝে আমরা রেগে গিয়ে কিংবা অন্যের কোনো কথা বা কাজের বিপরীতে নিজেরা কিছু চিন্তা না করেই প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে ফেলি। যার ফলে স্ট্রেস হরমোন বৃদ্ধি পায় অর্থাৎ ক্ষতিটা নিজেরই হয়। যদি আপনার পরিকল্পনামাফিক কাজ না হয় তাহলে আপনি শান্তভাবে এবং যুক্তিযুক্তভাবে সম্ভাব্য বিকল্প উপায় খুঁজুন।

    ধর্মীয় অনুশাসন

    যার যার ধর্মীয় হুকুম আহকাম ও রীতিনীতি মেনে চলুন। তাহলে আপনি মানসিকভাবে প্রশান্তি লাভ করবেন। বিশেষ করে ইসলাম ধর্মে উল্লেখ রয়েছে ক্ষণস্থায়ী জীবনের কথা চিন্তা না করে পরকালের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন। আল্লাহর দেওয়া হুকুম-আহকাম এবং হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর তরিকায় জীবনযাপন করুন। তাহলে আপনি ইহকালে ও পরকালে ভালো থাকতে পারবেন এবং মানসিকভাবে সুস্থ থাকতে পারবেন।

    মানসিকভাবে অসুস্থ বোধ করলে অন্যের সাহায্য নিন। মুখ বুজে থাকবেন না। নিজের অসুবিধার কথা সবার সঙ্গে শেয়ার করুন।

    মানুষের শরীর যেমন সবদিন ভালো যায় না, ঠিক তেমনই মনও সব সময় ভালো থাকে না। তাই মানসিকভাবে চাপ অনুভব করলে কাউন্সিলিং করুন বা মনোবিদ চিকিৎসকের সাহায্য নিন। তার আগে পরিবারের সঙ্গে শেয়ার করুন।


    লালসবুজের কন্ঠ/তন্বী

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর