ঝালকাঠিতে মাদক নিয়ন্ত্রণে তৎপর রয়েছে জেলা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

    ঝালকাঠিতে মাদক নিয়ন্ত্রণে তৎপর রয়েছে জেলা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২

    ঝালকাঠি প্রতিনিধি :


    মাদকবিরোধী অভিযান ও মাদক ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণের পরও মাদক সরবরাহ থামছে না। বরং মাদক পাচারে নিত্য নতুন কৌশল অবলম্বন করছে কারবারীরা। অনেক সময় পাচারকারীদের নিত্য নতুন ও ঝুঁকিপূর্ণ কৌশল দেখে চমকে যান আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিভিন্ন সংস্থার সদস্যরা।

    সবজি, পরিবহনের মধ্যে বিশেষ চেম্বার তৈরি, বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী বহনকারী নৌ-যান, শুকনো মরিচ, জুতা, ইলিশ মাছ, ও নারীদের অন্তর্বাসসহ নানা কায়দায় ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক সরবরাহ করছে মাদক ব্যবসায়ীরা। পুলিশ, পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) র‍্যাব, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর মাদক বিরোধী অভিযানে তৎপর রয়েছে। ৩১ মার্চ থেকে ১৭ এপ্রিল রাত পর্যন্ত ১১৬৫ পিস ইয়াবা, ১২ কেজি গাজা ও ৪ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ (উদ্ধার) করেছে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) ও র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‍্যাব)। আটক করা হয়েছে ৭ মাদক কারবারীকে।

    তাদের নামে দেয়া হয়েছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা। বর্তমানে আটককৃতরা ঝালকাঠি কারাগারে বন্ধী আছে। তথ্যানুসন্ধানে জানাগেছে, ১৭ এপ্রিল রোববার সকালে ঝালকাঠি শহরের কাঠপট্টি এলাকা থেকে ইয়াবাসহ রফিকুল ইসলাম খলিফা (৫২)কে গ্রেফতার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)। এসময় তার কাছ থেকে ১ হাজার ২৫ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। রফিক কাঠপট্টি এলাকার আব্দুল মালেক খলিফার ছেলে।

    শনিবার (১৬ এপ্রিল) সকাল সোয়া ১১টার দিকে ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিনয়কাঠি ইউনিয়নের ইউনুস মার্কেট এলাকা থেকে ৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ খায়রুল থলপহরী নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে ঝালকাঠির ডিবি পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়েছে। খায়রুল ইসলাম ঢাকার ব্যবসায়ী মনির হোসেন থলপহরীর ভাই। ডিবি পুলিশ পরিদর্শক মো. মাইনুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে খায়রুল থলপহরীকে ৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক করা হয়েছে। তাকে ঝালকাঠি সদর থানায় হস্তান্তর করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দেয়া হয়েছে। শনিবার বিকেলেই তাকে আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে সোপর্দ করে। শুক্রবার (১৫এপ্রিল) রাতে ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া জিরোপয়েন্ট এলাকা থেকে ১২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান র‍্যাব-৮। আটককৃতরা হলো- বরিশাল কোতোয়ালি থানার দৌলতপুর এলাকার খোকন মীরের ছেলে রহিম মীর (৩৪) ও কুমিল্লার ঘোষগাঁও এলাকার মৃত কাজী নূরুল ইসলামের ছেলে মো. মাহফুজুল ইসলাম সবুজ (৩১)। তাদের শনিবার সকালে আদালতের মধ্যেমে কারাগারে পাঠানো হয়। র‍্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার দপদপিয়া জিরোপয়েন্ট এলাকায় অভিযান চালায় বরিশাল র‍্যাব-৮ এর একটি দল।

    এ সময় তিন লাখ ৬০ হাজার টাকার মূল্যের ১২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করা হয়। তারা দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা কিনে বরিশাল ও ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে আসছিল। আটককৃতদের রাতেই নলছিটি থানায় সোপর্দ করা হয়। এ ঘটনায় র‍্যাব-৮ এর ডিএডি মো. আব্দুল্লাহ নলছিটি থানায় বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেন। নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান বলেন, শনিবার সকালে তাদের ঝালকাঠি জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ১০এপ্রিল (রবিবার) শহরের পালবাড়ি ছাইকারী এলাকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা (ডিবি) সদস্যরা আল আমিন হাওলাদার (১৯)কে ৪০পিচ ইয়াবাসহ আটক করে।

    আল আমিন নলছিটি উপজেলার কান্ড পাশা এলাকার মৃত মনির হাওলাদারের পুত্র। ৭এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) শহরের বিকনা এলাকা থেকে ৩০ পিচ ইয়াবাসহ মো. আরিয়ান সরদার (২২)কে আটক করে ডিবি। সে কৃষ্ণকাঠি এলাকার মো. আঃ হালিম সরদারের পুত্র। ৩ এপ্রিল (রবিবার) নলছিটি উপজেলার রায়াপুর এলাকা থেকে মো. সানজিদ সরদার (২৫)কে ২০ পিচ ইয়াবাসহ আটক করে ডিবি। সে ওই এলাকার মো. হুমায়ুন কবীরের পুত্র। ৩১ মার্চ (বৃহস্পতিবার) ঝালকাঠি শহরের কাঠপট্টি এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনায় ৫০ পিচ ইয়াবাসহ মো. সুজন (৪০)কে আটক করে ডিবি। সে ওই এলাকার মো. মজিবুর রহমানের পুত্র। সূত্র জানায়, প্রায় দিনই স্থল ও জল পথে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে বিভিন্ন ধরনের মাদক সরবরাহ করা হচ্ছে। ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদক কারবারীরা ধরা পড়লে অবৈধ মাদক জব্দ করা হচ্ছে। এর মধ্যে ইয়াবাই সবচেয়ে বেশি। আর ইয়াবা সরবরাহে বাহকদের অদ্ভুত কৌশলে বিস্মিত সংশ্লিষ্টরা।

    আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিতে মাদক ব্যবসায়ীরা নানা কৌশলে এসব মাদক সরবরাহের চেষ্টা চালাচ্ছে। এসব কৌশলের মধ্যে রয়েছে লাউ, মিষ্টি কুমড়া, সিএনজি চালিত অটোরিকশা, জিআই পাইপ, পানির কলসিতে, মহিলাদের অন্তর্বাস, ইলিশ মাছ ও শুকনো মরিচ।ঝালকাঠি শহর, শহরতলী এবং প্রত্যন্ত এলাকায় এসব কৌশলে মাদক সরবরাহ করছে কারবারীরা। অনেক মাদক ব্যবসায়ী নিজেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নজর ফাঁকি দিতে রমজানের কয়েকমাস পূর্ব থেকে নিজ স্থানের বাইরে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করলেও ঈদ উপলক্ষে তারা এলাকায় ফিরেছে। নিজেকে অন্য ব্যবসায়ী পরিচয় দিয়ে তারা আড়ালে মাদকের ব্যবসা করছে। শহরে বিভিন্ন সংস্থার কড়া নজরদারী থাকায় প্রত্যন্ত এলাকায় নিরাপদ স্থান হিসেবে ব্যবহার করছে। ঝালকাঠি সদর উপজেলার মধ্য দিয়ে বহমান সুগন্ধা নদী। উত্তরে জেলা শহর ও দক্ষিণে পোনাবালিয়া ইউনিয়ন এবং নলছিটির কুলকাঠি ইউনিয়ন।

    যোগাযোগ ব্যবস্থা দুর্গম হওয়ার সুবাদে মাদকের নিরাপদ রুট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। পোনাবলিয়া ইউনিয়নের ইটেরপোল, গুচ্ছগ্রাম, পোনাবালিয়া বাজার, নাইওর বাড়ি (সিকদারবাড়ি) এলাকায় রিপন খলিফা, হাসিব মল্লিক, ফয়সাল সিকদার, আকাশ গাজী, লিটন মাতবার মাদক ব্যবসা পরিচালনা করছে বলে এলাকায় তথ্যানুসন্ধানে গিয়ে জনশ্রুতি পাওয়া গেছে। ঝালকাঠি জেলা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) অফিসার ইন চার্জ মাইনুদ্দিন জানান, জেলা পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিনের নির্দেশনায় ঝালকাঠি জেলাকে মাদকমুক্ত করতে কাজ করছে পুলিশ।

    প্রায়ই গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মাদক উদ্ধার ও কারকারী আটক করা হয়। মাদক ব্যবসায় জড়িতদের আটক করার পরেও এদের নিয়ন্ত্রণে আনা বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাদক ব্যবসায়ীরা নতুন নতুন কৌশলে মাদক পরিবহন করলেও আমরা এ সব কৌশলের সাথে পাল্লা দিয়ে এদের আইনের আওতায় আনার জন্য কাজ করছি।

    মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ এবং মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীর পাশাপাশি সমাজের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। সমাজের সকলের সহযোগিতায় মাদক নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব বলে তিনি এ মন্তব্য করেন।


    নাঈম/ঝালকাঠি/শান্ত

    25Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর