ছেলের প্রেমের অপরাধে কারাগারে দুই পুলিশের বৃদ্ধ মা - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৪৫ পূর্বাহ্ন

    ছেলের প্রেমের অপরাধে কারাগারে দুই পুলিশের বৃদ্ধ মা

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৭ জুন, ২০১৯

    নিজস্ব প্রতিবেদক
    এক ছেলের প্রেমের অপরাধে প্রায় ৩৫ ঘন্ঠা ধরে হাজতে আটক রাখার পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে দুই পুলিশ সদস্যের মা’কে। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে। আটক খাদিজা বেগমের বড় ছেলে মাসুদ রানা (নায়েক) বর্তমানে নাটোর জেলার বাগাতিপাড়া থানায় কর্মরত। অপর ছেলে সোহেল রানা (কন্সটেবল) রাজশাহী মেট্রোপলিটনে কর্মরত।

    হাজতে আটক খাদিজা বেগমের ছেলে রাজশাহী মেট্রোপলিটনে কর্মরত (কন্সটেবল) সোহেল রানা জানান,তার ছোট ভাই পাঁকা ইউনিয়নের বাবপুর গ্রামের মাইনুল ইসলামের ছেলে রিপনের সঙ্গে বাবপুর বিশ্বাসপাড়ার প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক নজরুল ইসলামের মেয়ে মো.মাহমুদা রওশন কথার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে দুজনে গত ১৪ জুন অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমায়।

    সোহেল রানা আরও জানান,আমার মা খাদিজা বেগম খুবই অসুস্থ্য। একা চলাফেরা করতে পারেনা। তার পরেও বাড়ী হতে তুলে এনে হাজতে ২৪ ঘন্ঠারও বেশি সময় আটক রাখা হয়েছে। আমাদের দাবি-ছোট ভাই রিপন যদি অপরাধী হয় তবে তার বিচার হোক। কিন্তু বিনা অপারাধে মাকে হাজতে আটক করে রাখা অমানবকি।

    এনিয়ে মেয়ের বাবা স্কুল শিক্ষক নজরুল ইসলাম ১৫ই জুন রাতেই শিবগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের সূত্র ধরে থানার এসআই রনি সাহা ১৬ই জুন ভোর ৪টার দিকে পুলিশ সদস্য মাসুদ রানা ও রিপনের মা খাদিজা বেগম কে নিজ বাড়ী হতে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এর পর হতে হাজতে আটক রেখে মেয়ে ও ছেলে উদ্ধারে চেষ্টা চালাই পুলিশ। তারপরেও ছেলে-মেয়ে উদ্ধার না হওয়ায় রোববার (১৬জুন রাতে অভিযোগটি মামলা হিসেবে অর্ন্তভূক্ত করা হয়।

    মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শিবগঞ্জ থানার এসআই রনি সাহা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,বাদী নজরুল ইসলাম খাদিজা বেগম তার স্বামী মাইনুল ইসলামসহ রিপনের আরও বন্ধুকে আসামী করে অপরহণ মামলা দায়ের করেছেন। এর মধ্যে আটক খাদিজা বেগম কে আজ সোমবার (১৭ জুন) বিকালে আদালতে পাঠানো হয়। তিনি আরও বলেন,অন্য আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে এবং ভিকটিম কে উদ্ধারে তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

    192Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর