চাঁপাইয়ে এখনো মিলছে আশ্বিনা আম, মণ ১২ হাজার - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

    চাঁপাইয়ে এখনো মিলছে আশ্বিনা আম, মণ ১২ হাজার

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক লালসবুজের কণ্ঠ:


    আমের রাজধানীখ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ৪ মাস আগেই শেষ হয়েছে আশ্বিনা আমের মৌসুম। তবে ব্যতিক্রমী এক পদ্ধতিতে জেলার গোমস্তাপুরে উপজেলার আব্দুল করিম নামে এক আম চাষির বাগানে এখনো দুলছে আশ্বিনা জাতের আম। এ আম দেখতে আসছেন অনেকে। বর্তমানে আশ্বিনা আম বিক্রি হচ্ছে ১০-১২ হাজার টাকা মণ দরে। আর কৃষি বিভাগ বলছে, এ আমে নতুন দ্বার খুলবে বাণিজ্যিক সম্ভাবনার।

    উপজেলার শিমুলতলা এলাকায় আব্দুল করিমের বাগানে গিয়ে দেখা যায়, সারিসারি পেয়ারার গাছ। বাতাসে দুলছে হাজার হাজার সুমিষ্ট পেয়ারা। একটু ভেতরে যেতেই চোখে পড়ল আশ্বিনা আমের গাছ। বাতাসে দুলছে সুস্বাদু আম। এসময়ে আশ্বিনা আম চোখে না দেখতে বিশ্বাস যোগ্য নয়। আর এ আমের পরিচর্যায় ব্যস্ত রয়েছেন আম চাষি আব্দুর করিম।

    আম চাষি আব্দুল করিম বলেন, গত ১০ বছর থেকেই আম ব্যবসার সঙ্গে আমি জড়িত। কয়েকবছর লাভবান হলেও। ৫ বছর থেকে লোকশান শুনছি। তাই আম গাছের জমিতেই রোপণ করেছি পেয়ারা গাছ। এই পেয়ারা বিক্রি করে ভালোই লাভবান হচ্ছি এখন। তবে যেহুতু আম গাছ রয়েছে। আমের সময়ে মুকুর আসে। কিন্তু এবার আমের সিজিনে মুকুলগুলো ভেঙে দিয়েছিলাম। কিন্তু পরিচর্যার কমতি করিনি। এবার আগস্ট মাসে হঠাৎ দেখি গাছগুলোতে মুকুল চলে এসছে। মুকুল দেখে পরিচর্যা আরও বাড়িয়ে দেয়। কিছুদিন পরেই দেখছি গাছে আম চলে এসছে। এই আম বড় হয়ে এখন বিক্রি করছি ১০-১২ হাজার টাকা মণ দরে।

    তিনি আরও বলেন, জেলার খুব অল্প স্থানে এই আশ্বিনা আম আছে। তাই আমাকে এই আম নিয়ে আর বাজারে জেতে হয়না। ক্রেতারা আমার বাগানে এসে কিনে নিয়ে যায়। আর পরিচর্যা করার জন্যও ভালো হয়েছে। এক সঙ্গে আম ও পেয়ারা বাগানের পরিচর্যা করতে পারছি। এবার লাভবান হয়ে বুঝলাম। আশ্বিনা আমের সিজিনাল সময়ে যদি মুকুলগুলো ভেঙে দেয়া হয়। তাহলে এই সময় আম আসবে। তাই আমি উদ্দোগ নিয়েছি আমাগী বছর প্রায় ২০ বিঘা জমির আশ্বিনা আমের মুকুল ভেঙে দিব। আর এসময় আম বিক্রি করব।

    হাসিব নামে এক কলেজ ছাত্র বলেন, এই নভেম্বর মাসে আশ্বিনা আম দেখে অসম্ভব হয়ে গেছি। আমি জানতাম যে এসময় কাটিমন ও বারি-১১ জাতের আম পাওয়া যায়। তবে জানতাম না যে আশ্বিনা আমও পাওয়া যাচ্ছে এসময় তাই দেখতে এসেছে।

    গোমস্তাপুর উপজেলার কৃষি কর্তকর্তা তানভির আহমেদ সরকার বলেন, এই উপজেলার কিছু কিছু স্থানে এখনো পাওয়া যাচ্ছে আশ্বিনা আম। আমের সিজিনাল সময়ে মুকুল ভেঙে দিয়ে । বেশি পরিচর্যা করে এ আম ধরিয়েছেন চাষিরা। এটা উপজেলার জন্য অবশ্যয় বাণিজ্যিক সম্ভাবনার। বতমানে সিজিনাল আমের দাম পাচ্ছেননা চাষিরা। তাই এভাবে যদি অসময়ে চাষিরা আম ধরাতে পারেন তাহলে অনেক বেশি লাভবান হবেন।


    লালসবুজের কণ্ঠ/এস এস

    35Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর