1. [email protected] : News room :
চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশের উপস্থিতিতেই লুট করছে ডাকাতরা - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১১:০২ অপরাহ্ন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশের উপস্থিতিতেই লুট করছে ডাকাতরা

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,লালসবুজের কণ্ঠ-চাঁপাইনবাবগঞ্জ:
ডাকাতের যন্ত্রনায় অতিষ্ট হয়ে উঠেছে শিবগঞ্জ ও গোমস্তাপুর উপজেলার বাসিন্দারা। প্রায় দিনই ডাকাতির ঘটনা ঘটছে শিবগঞ্জ উপজেলার আড়গাড়া হাট- বেলালবাজার সড়ক ও কানসাট চৌডালা সড়কের বেশ কয়েকটি স্পটে। স্থানীয়দের অভিযোগ-প্রতিদিন ওই আঞ্চলিক সড়ক দুটি দিয়ে দুর দুরান্তসহ এলাকার লোকজন যাতায়াত করে থাকেন। কিন্তু সন্ধ্যা নামলেই ঘটে বিপত্তি। সড়কগুলোতে বেড়ে যায় ডাকাতের উৎপাত। কিছু ডাকাত দলের সদস্য পুলিশের চোখ ফাঁকি দিলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তালিকায় থাকা একাধীক ডাকাতি মামলার আসামী বাহিনী প্রধান কারিমুল ইসলাম ওরফে কারেন্ট ডাকাত পুলিশের সাথে থেকেই চালিয়ে যাচ্ছে ডাকাতি।

যার প্রমান হিসেবে স্থানীয়রা জানিয়েছেন-২৬ শে সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার কথা। ভুক্তভোগী রানিবাড়ী চাঁদপুর এলাকার পল্লী চিকিৎসক সোহেল আহমেদ জানান,২৬ শে সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় তিনি আড়গাড়া হাট হতে মোটরসাইকেল যোগে চৌডালার দিকে যাচ্ছিলেন। বেলার বাজারে পৌঁছলে গোমস্তাপুর থানা পুলিশের সঙ্গে থাকা এক ব্যক্তি তার মোটরসাইকেল থামানোর জন্য বলেন। সবাই সাদা পোষাকে থাকায় তার মনে ডাকাত সন্দেহ থাকায় তিনি না দাড়িয়ে চলে যাবার চেষ্টা করেন। এসময় পুলিশের সঙ্গে থাকা এক ব্যক্তি মোটরসাইকেলের সামনে আসলে ধাক্কা লেগে পড়ে যান।

এসময় পুলিশ এগিয়ে গিয়ে মোটরসাইকেল চালক কে ধরে থানায় নিয়ে যান। সেখানে উপস্থিত লোকজন সনাক্ত করেন আহত ব্যক্তি ডাকাত সর্দ্দার কারেন্ট। পল্লী চিকিৎসক সোহেল আহমেদ আরও জানান,প্রায় দিনই আড়গাড়া-বেলাল বাজার সড়কে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া আমাকে দাড়াতে বলা ব্যক্তি ডাকাত সদস্য হওয়ায় আমি মোটরসাইকেল জোরে টান দিয়ে চলে যাবার চেয়া করি। কিন্তু উল্টো পুলিশ আমাকে থানায় ধরে নিয়ে হেনেস্তা করে। পরে পরিবারের সদস্যসহ গ্রামবাসী থানায় হাজির হলে আমাকে থানা হতে ছেড়ে দেয়া হয়। একই সময় আরও একটি ডাকাতির চেষ্টা করা হয় বেলাল বাজার এলাকায়।

বিষয়টি জানতে পেরে আড়গাড়া হাট,চাকলা ও বেলাল বাজারের বাসিন্দারা বাঁশের লাঠি নিয়ে বিক্ষোভ করে ও রাত জেগে রাস্তা পাহারা দেন। রাস্তা পাহারা অবস্থায় কথা হয় স্থানীয়দের সঙ্গে। তারা জানান,পুলিশ ও র‌্যাবের অভিযানে বেশ কিছু ডাকাত মারা যায়। আবার কেও কেও আটক হয়ে কারাগারে যায়। কারাগারে যাওয়া ডাকাতরা ছাড়া পেয়ে আবারও ডাকাতিতে জড়িয়ে পড়ছে । সাধারন মানুষ কে মারপিট করে টাকা পয়সা,মোবাইল ও মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিচ্ছে। ডাকাতদের হাত থেকে কেও রেহাই পাচ্ছেনা। ফলে বাধ্য হয়ে বাঁশের লাঠি হাতে রাস্তা পাহারা দিতে হচ্ছে তাদের। তাদের অভিযোগ-ডাকাত সদস্যরা এতটাই শক্তিশালী যে-মানুষ তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুল্লেই তাদের কে বিভিন্নভাবে হয়রানীতে পড়তে হয় । জড়ানো হচ্ছে মামলা হামলায়।

জানাগেছে,চৌডালা বেলাল বাজারের হুমায়ুন কবিরের ছেলে কারিমুল ইসলাম ওরফে কারেন্ট ডাকাত চলতি বছরের ৭ই মার্চ শিবগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে আটক হয়ে বেশ কিছুদিন কারাগারে থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে আবারও ডাকাতিতে জড়িয়ে পড়ে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে দাইকুখুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল ইসলাম জুয়েল জানান,ডাকাতির বিষয়টি একাধাীকবার আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় জানানো হয়েছে। পুলিশ ও র‌্যাবের অভিযানে বেশ কয়েকজন মারাও গেছে। তার পরেও বন্ধ হচ্ছেনা ডাকাতি। যার কারনে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে এলাকার লোকজন।

শিবগঞ্জ থানার ওসি শামসুল আলম জানান,ঘটনাটি আমার জানা ছিলনা। ডাকাত নির্মূলে দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে সাদা পোষাকে পুলিশের সঙ্গে থেকে সড়কে ডাকাতির অভিযোগ প্রসঙ্গে গোমস্তাপুর থানার ওসি মো.জসিম উদ্দীন বলেন,পুলিশ ডাকাতি প্রতিরোধে কানসাট সড়কে ডিউটি পালন করে। সেক্ষেত্রে ডাকাত পুলিশের সঙ্গে থাকার কথা নয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

1.5K+Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর