চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মার চিরচেনা রূপ এখন রাক্ষসীতে পরিণত - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মার চিরচেনা রূপ এখন রাক্ষসীতে পরিণত

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


    নদীর এপার ভাঙ্গে ওপার ভাঙ্গে এই তো নদীর খেলা। এ খেলায় মত্ত হয়ে উঠেছে পদ্মা, নদীর চিরচেনা রূপ এখন যেন রাক্ষসীতে পরিণত হয়েছে।

    গত দশ বছরে র হাজার হাজার একর জমি, বাড়িঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। ভাঙন কবলিত এলাকায় পদ্মার পাড়ে গেলেই শোনা যায় ভাঙনের শব্দ। ভিটে-মাটি হারানো মানুষের আকুতি জরুরি ভিত্তিতে নদী ভাঙ্গন রোধে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলে নারায়নপুর ও পাঁকা ইউনিয়ন রক্ষা পাবে। নয়তো একসময় অস্তিত্বই হারিয়ে ফেলবে এ দু’টি ইউনিয়ন ।

    জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার প্রত্যন্ত চর নারায়নপুর ইউনিয়ন ছিল একসময় সমৃদ্ধ। সে সময় গোয়ালভরা গরু আর গোলা ভরা ধান ছিল। তাদের সুখময় জীবনে এখন ভাঙনের সুর দেখা দিয়েছে। ইতিপূর্বে কয়েকটি গ্রাম নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এখন নতুনভাবে শিবগঞ্জের দূর্লভপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর থেকে শুরু করে নারায়নপুর ইউনিয়নের জহুরপুর পর্যন্ত প্রায় ৩ কি.মি জুড়ে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে।

    বিশেষ করে বত্রিশরশিয়া, ডাকাতপাড়া, খলিফাচর গ্রামে পদ্মার ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। প্রায় ২৫০/৩০০ ঘরবাড়ি নদী গর্ভে চলে যাওয়ায় তারা অন্যত্র চলে গেছে। আর ভাঙনের চরম ঝুঁকিতে রয়েছে ইউনিয়নের চরের বাতিঘর খ্যাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নারায়নপুর আদর্শ মহাবিদ্যালয়, ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আশ্রয়কেন্দ্র, ২টি উচ্চ বিদ্যালয়, মাদরাসা, সদ্য নির্মিত বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন, সোলার প্ল্যান্ট, স্থানীয় হাটবাজারসহ কয়েকশ একর ফসলি জমি।

    নদী ভাঙন কবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ বাদল রহমান জানান, বত্রিশরশিয়ায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছিলাম, এখানে আমাদের বাপ-দাদার জমিজমা ছিল।

    পদ্মার ভাঙনে সবকিছ্ইু চলে গেছে। সরকারের পক্ষ থেকে ভাঙনকবলিত মানুষের দিকে হাত বাড়ানো দরকার। সমাজসেবী আব্দুল মোমিন জানান, কয়েকবছর ধরে এ ইউনিয়নে ভাঙনের তীব্রতা দেখা দেওয়ায় বাড়িঘর ও জমি নদী গর্ভে চলে গেছে। ভাঙনরোধে জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন, নাহলে মানচিত্র থেকে এ ইউনিয়ন হারিয়ে যাবে। এমনকি যেসব স্থাপনা রয়েছে সেগুলোও হুমকির মুখে পড়বে।

    নারায়নপুর ইউনিয়নের ৪নং ইউপি সদস্য মোঃ আব্দুল আলিম ও সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য জাহানারা খাতুন জানান, বত্রিশরশিয়া, খলিফাচর ও ডাকাতপাড়া গ্রাম নদী গর্ভে বিলীন হতে চলেছে। এখনও যারা আছে তাদের নির্ঘূমে দিন কাটছে। এ মুহুর্তে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেললে ভাঙন রোধ করা সম্ভব হবে।

    অপরদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের মাঝিপাড়া, জামাইপাড়া ও নরিশয়া গ্রাম ভাঙনের কবলে পড়েছে। এদিকে গতকাল সোমবার পাঁকা ও নারায়নপুর ইউনিয়নের ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, ফেরদৌসী ইসলাম জেসি এমপি।

    এসময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মোখলেছুর রহমান ও উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ ময়েজ উদ্দিন সফরসঙ্গী ছিলেন। নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মোখলেছুর রহমান জানান, ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে ভাঙনের বিষয়ে অবহিত করা হয়েছে। মাননীয় সংসদগণ ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন এবং মহান জাতীয় সংসদে ভাঙনের বিষয় নিয়ে উত্থাপন করবেন।


    কামাল/এআর

    23Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর