চাঁপাইনবাবগঞ্জে জাল সনদে ১২ বছর আইনজীবী! - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে জাল সনদে ১২ বছর আইনজীবী!

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট,নাচোল:


    জাল সনদে দীর্ঘ ১২ বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জ কোর্টে আইন পেশা চালিয়ে যাবার অভিযোগ উঠেছে আব্দুর রহমান নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। তিনি নাচোল পৌর এলাকার শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল গফুর ডাক্তারের ছেলে। এনিয়ে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন নাচোল পৌর এলাকার বাবুল আক্তার নামে এক ব্যক্তি।

    এদিকে প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় তাঁকে জেলা আইনজীবি সমিতি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেছেন আব্দুর রহমান।

    অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে,আব্দুর রহমান ১৯৯৮ সালে দাখিল পাশের পর নাচোল ডিগ্রি কলেজ থেকে ২০০০ সালে এচএসসি পাশ করেন। ২০০৩ সালে নাচোল ডিগ্রি কলেজ বর্তমানে (নাচোল সরকারি ডিগ্রি) কলেজ থেকে স্নাতক/বি এ পরীক্ষায় (রোল নং ছিল ৭০৫৫২২)অকৃতকার্য হন। কিন্তু তিনি ওই বছরেই রোল নং-১২৬২৯৩, রেজিস্ট্রেশন নং-৬৬৮৬৩৭ ও ০০২১০৩৪ নং সার্টিফিকেটে উত্তীর্ণ দেখিয়ে ২০০৭ সালে রাজশাহী আইন কলেজ থেকে এলএলবি পরীক্ষা দেন।

    সেখানে উত্তীর্ণ হয়ে বাংলাদেশ বারকাউন্সিলের অধীনে আইনজীবি হিসেবে তালিকাভূক্তির পরীক্ষা দেন। ১৫/১২/২০১০ইং তারিখে আইনজীবি হিসেবে বাংলাদেশ বারকাউনিসলের তালিকাভূক্ত হয়ে ২৫৯নং লাইসেন্স পান। লাইসেন্স পেয়ে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ বারকাউন্সিলে গত ০২/০১/২০১১ইং তারিখে আইনজীবি হিসেবে আইনপেশা শুরু করেন।

    আব্দুর রহমানের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন রেকর্ড থেকে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাদরুজ্জামান স্বাক্ষরিত ডাউনলোড কপিতে দেখা যায়, নাচোল কলেজ (কোর্ড নং-২৬০৪), রোল নং-৭০৫৫২২, রেজিস্ট্রেশন নং-০১৪৬২০৩, অনিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে ২০০৩ সালের ডিগ্রি পাশ ও সার্টিফিকেট কোর্স’র সনদে তিনি ফেল (অকৃতকার্য) উল্লেখ রয়েছে।

    ওই মার্কসীটে ইংরেজি(আবশ্যিক) বিষয়ে ২২নম্বর , ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞানের ১ম পত্রে ২৬, ২য়পত্রে ২৫ ও ৩য় পত্রে ৩২ নম্বর পেয়ে অকৃতকার্য হয়েছেন। আব্দুর রহমান ২০০৩ সালে অকৃতকার্য হয়ে ওই বছরেই অন্য পরীক্ষার্থীর রোল নং-১২৬২৯৩, রেজিস্ট্রেশন নং-৬৬৮৬৩৭ ও ০০২১০৩৪ নং সার্টিফিকেট নিজের নামে জাল করে ২০০৭ সালে রাজশাহী আইন কলেজে এলএলবি পরীক্ষা দিয়েছেন।

    সম্প্রতি বাবুল আক্তার সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে আব্দুর রহমানের বিএ পাশের জালিয়াতির বিরুদ্ধে আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ১৪ সেপ্টেম্বর চাঁপাইনবাবগঞ্জ আইনজীবি সমিতির প্রতিনিধিদল নাচোল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের কাছে আব্দুর রহমানের বি এ পাশের তথ্য চাইলে সেখানে কলেজ কর্তৃপক্ষ “২০০৩ সালে আব্দুর রহমান বি এ পরীক্ষার্থী ছিলেন, তবে উত্তীর্ণ হতে পারেননি” মর্মে প্রত্যয়ন প্রদান করেন। এরই প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সকালে আইনজীবি সমিতির পক্ষ থেকে আব্দুর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করে তাঁকে ৭ দিনের মধ্যে আইনজীবি সমিতির নিকট হাজির হয়ে সন্তোষজনক জবাব দানের জন্য নোটিশ জারি করেন।

    এ বিষয়ে আব্দুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে সার্টিফিকেট জালিয়াতির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এক বিষয়ের জন্য তিনি তাঁর রেজাল্ট চ্যালেঞ্জ করলে তিনি ওই বছর উত্তীর্ণ হন। কিন্তু সংশোধিত রেজাল্ট নাচোল সরকারি কলেজে পৌঁছেনি বলে দাবি করেন।

    এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আইনজীবি সমিতির সভাপতি মো.জোবদুল হক জানান,প্রাথমিকভাবে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় আব্দুর রহমান কে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করা হয়েছে। তিনি সন্তোষজনক জবাব দিতে পারলে পরবর্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


    জিলানী/এআর

    125Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর