চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


    যথাযোগ্য মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে।

    এ উপলক্ষে আজ রোববার সকাল ৯ টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী ও জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান বেলুন উড়িয়ে র‌্যালির উদ্বোধন করেন।

    জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে র‌্যালিটি বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ সাটু হল মোড়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে প্রথমে জেলা প্রশাসক, পরে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা পুষ্পার্ঘ অর্পন করেন। দিবসটি উপলক্ষে শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

    জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম ফজল-ই-খোদা, বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. আব্দুস সামাদ প্রমুখ। ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের পটভূমি নিয়ে স্বাগত বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ জাকিউল ইসলাম। বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ ও বাঙালীর স্বাধীনতাসহ মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে এই দিনটি চির অম্লান, চির স্মরণীয়।

    এদিন মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার ছায়া সুনিবিড় আম্রকাননে বাংলাদেশের যুদ্ধকালীন সরকার শপথ গ্রহণ করে এবং পঠিত হয়েছিল স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র। শপথ গ্রহণের পর স্থানটির নামকরণ করা হয় মুজিবনগর। সেই থেকে দিনটি ইতিহাসে পরিচিতি লাভ করে ‘মুজিবনগর দিবস’ হিসেবে। ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। ঐতিহাসিক মুজিবনগরেই রচিত হয়েছিল স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের ভিত্তি।

    জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ঘোষিত স্বাধীনতাকে বাস্তবে রূপ দিতে তৎকালীন আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ মুজিবনগরে একত্রিত হয়েছিলেন।

    বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী থাকায় অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিয়ে দায়িত্ব গ্রহণ করেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তাজউদ্দীন আহমদ।

    এছাড়াও এম মনসুর আলী, এএইচএম কামারুজ্জামান শপথ নেন মন্ত্রী হিসেবে। এই সরকারই ৯ মাসের স্বাধীনতা যুদ্ধ ও মুক্তি সংগ্রামে নেতৃত্ব দেন। ‘মুজিবনগর সরকার’ হিসেবেও এই সরকারের একটি পরিচয় রয়েছে। তাদের সুযোগ্য নেতৃত্বেই জাতি ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানী হানাদারদের বিরুদ্ধে অর্জন করে চূড়ান্ত বিজয়। বিশ্বের বুকে জন্ম নেয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। শিক্ষার্থীদের মাঝে মুজিবনগর সরকার ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের চেতনা ছড়িয়ে দেবার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান বক্তারা।


    কামাল/এস.আর.এম.

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর