1. [email protected] : News room :
খাল-বিলে হাঁস পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে রাজশাহীর যুবকরা - লালসবুজের কণ্ঠ
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

খাল-বিলে হাঁস পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে রাজশাহীর যুবকরা

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৩ জুলাই, ২০১৯

আসাদুজ্জামান মিঠু,বরেন্দ্রঅঞ্চল: রাজশাহী অঞ্চলে অসংখ্য খাল-বিল ও নদী-নালা অবস্থিত। এসব নদী-নালা খরার মৌসুমে শুকিয়ে গেলেও বর্ষা মৌসুমে যৌবন ফিরে পায়। এসব জায়গায় হাঁসের খামারিরা গড়ে তুলেছেন তাদের স্বপ্নের হাঁসের খামার। রাজশাহী অঞ্চলে প্রায় কয়েকশ’ হাঁসের খামার গড়ে উঠেছে। এসব খামারে অল্প খরচে যেমন হাঁস পালন করা সম্ভব হচ্ছে তেমন লাভবান হচ্ছে খামারিরা। অপর দিকে বেকারত্ব দুরিকরণেও রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।

নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলা। জেলার অন্য সব উপজেলার চেয়ে মান্দায় খাল-বিল নদী- নালা সংখ্যা অনেকটা বেশি। জেলার এ উপজেলায় অনেক বেকার যুবক গড়ে তুলেছেন তাদের হাঁসের খামার। হাঁসগুলো সারা দিন নদী বা খালে-বিলেই চরে বেড়ায়। রাতে নেয়া হয় নদী ও বিলের পাড়ের অস্থায়ি খামারে। দিনভর নদীতে ঘুরে ঘুরে প্রাকৃতিক খাবার খায়। বাড়তি খাবার দেয়ার তেমন প্রয়োজন লাগে না। মান্দা উপজেলার মতো রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোরসহ আশেপাশের বিভিন্ন উপজেলায় খাল-বিলগুলো গড়ে উঠেছে হাঁসের খামার।
খামারিরা জানান, আমাদের দেশের আবহাওয়া হাঁস পালনে খুবই উপযোগী। এ ছাড়া নদীও বিল কেন্দ্রিক খামারিদের হাঁস পালনে তেমন একটা খরচ নেই বললেই চলে। অল্প পুঁজি খাটিয়েই এই ব্যবসা করা যায়। লাভও ভাল। সমস্যা হচ্ছে হাঁসের মাংস ও ডিম মুরগির চেয়ে জনপ্রিয় কিছুটা কম। তবে, বর্তমানে এটি অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এখন হাঁস চাষ লাভজনক একটি প্রযুক্তি। অনেকেই বাণিজ্যিকভাবে হাঁস চাষে এগিয়ে আসছেন এবং প্রধান পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছেন হাঁস চাষ।


মান্দা উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্য মতে, ছোট নদী ও খাল-বিলে ছোট-বড় মিলে ১৬০টি হাঁসের খামার রয়েছে। এসব একেকটি খামারে ৪০০ থেকে দুই হাজার পর্যন্ত হাঁস রয়েছে। সব মিলিয়ে এক লাখের বেশি হাঁস রয়েছে খামারগুলোতে। খামার থেকে প্রতিদিন গড়ে ডিম পাওয়া যায় ৩০ হাজার থেকে ৪০ হাজার। শুধু মান্দা নয়, জেলার সাপাহার, নিয়ামতপুর উপজেলায় খাল-বিলের গড়ে উঠেছে অনেক খামার।
মান্দা উপজেলায় দিয়ে বয়ে যাওয়া বাকাপুর, কুরফুসি, ঘনা,উত্তরাল, আনধাসুফ বিলে নৌকায় ঘুরলে ও চৌবাড়ীয়া-দেওলাবাড়ী রাস্তায় চলাচল করলে বিলগুলোতে চোখে পড়বে হাঁসের পাল। এক বা একাধিক লোক নৌকায় বসে বা পায়ে হেঠে হাঁসের ঝাঁক নিয়ন্ত্রণ করছেন।


চৌবাড়ীয়া-দেলাবাড়ী রাস্তার পাশ ঘেষা উত্তরাল বিল। রাস্তার পাশে অস্থায়ি খামার করে হাঁস চাষ করেছেন সাপাহার উপজেলার হাফানিয়া ঘাট গ্রাম থেকে আসা কয়েক জন যুবক। সেখানে কথা হয় তাদের সঙ্গে। তাদের মধ্যে দেলোয়ার নামের এক যুবক জানালেন, হাঁস পালনের সফলতার কথা। প্রায় ৭ বছর আগে হাফানিয়াঘাট গ্রামের তিন বন্ধু দেলোয়ার, সাহালাল ও আব্দুর গাফার মিলে নিজেদের বাড়িতে ২০০টি হাঁস কিনে পালন করতে শুরু করেন। সে সময় গ্রামের পুকুর মাঠে-ঘাটে ছেড়ে চরাতেন। সেই শুরু আর পেছনে ফিরতে হয়নি। বছর বছর বাড়তে থাকে তাদের হাঁসের সংখ্যাও। বর্তমানে তাদের খামারে হাঁসের সংখ্যা এক হাজার ৮০০টি।
দেলোয়ার আরো জানান, তারা তিন বন্ধু প্রতিদিন সকাল হলে প্রাকৃতি থেকে খাবার সংগ্রহ করে খাওয়ার জন্য বিলে হাঁস ছেড়ে দেয়। তারা শুধু দেখাশোনা করেন। রাত হলে তাদের খামারে উঠানো হয়। প্রতিদিন গড়ে তার খামারে ৬০০ থেকে ৭০০ ডিম পাড়ে। প্রতিদিন বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা খামারে এসে ডিম কিনে নিয়ে যায়। ডিম বিক্রি করে কিছু টাকা হাতে রাখেন খামার পরিচালনার জন্য। বাকি টাকা পরিবারের কাছে পাঠায় দেয় তারা।
দেলোয়ার বলেন, আমরা একসময় খুব অভাবি ছিলাম। অন্যের জমি বর্গা করতাম। হাঁসের খামার করে দিন ফিরেছে। হাতে সব সময় টাকা থাকে।


একই উপজেলার চৌবাড়ীয়া ভারশো বিলে নান্নু ও জসিম নামের দুই জন খামার করেছেন চার বছর আগে। তারা জানান, পরিবার নিয়ে অভাব-অনটনের মধ্যে দিন কাটাতেন। এলাকায় কাজ না থাকলে রাজশাহী গিয়ে রিকশা চালাতেন। বছর পাঁচেক আগে একবার রাজশাহী থেকে বাড়িতে এসে অন্যদের হাঁসের খামার দেখে হাঁস পালনে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। টাকা-পয়সা জোগাড় করে তিনি ১৫০টি হাঁস কিনে শুরু করেন খামার। বর্তমানে তার খামারে হাঁসের সংখ্যা এক হাজার।
জসিম বলেন, বিলে হাঁস পালন করতে বেশি খরচ হয়না। পুঁজিও লাগে কম। মাত্র ৩০ টাকা দরে হাঁসের বাচ্চা কেনার পররেই শুরু করা যায় খামার। এখন আমি হাঁসের খামার ছাড়াও দুই লাখ টাকার মালিক। সংসারে কোনো অভাব নেই। ভালো আছি।’

সাধারণত বাড়ির আশপাশে খামার করে হাঁস পালন করলে মোট খরচের একটা বড় অংশ চলে যায় খাবারের পেছেন। এতে লাভ কমে যায়। কিন্তু নদীর পাড়ে খামার করলে এত খরচ হয় না। নদীতে পর্যাপ্ত খাবার পাওয়া যায়, হাঁসগুলো সারা দিন ঘুরে সেই সব খবার খায়। আলাদা খাবার দিতে হয় সামান্যই। এ ছাড়া উন্মুক্ত পরিবেশে ও নদী থেকে প্রাকৃতিক খাবার খাওয়ায় আগাম ডিম দেওয়াসহ ডিমের পরিমাণ বেড়ে যায়। সব মিলিয়ে খরচ কম, লাভ বেশি বলে নদীর তীরে খামারের সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে ।
তবে খামারিদের অভিযোগ, হাঁস খামারে ঠিকমত প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের পরামর্শ পাওয়া যায়না। ভ্যাকসিনও বাজার থেকে কিনে এসে নিজেদেরই দিতে হয়।
মান্দা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আনিসুর রহমান জানান, সরকারিভাবে ভ্যাকসিন ফ্রি দেয়ার কোন সুযোগ নেই।। আর জনবল কম থাকায় অনেক সময় খামারগুলোতে সঠিক সময়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। নদী বা বিলে প্রকৃতিতে খাবার খাওয়ানো যায় বলে খরচ কম। সে কারণে হাঁস পালন ও খামারের সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে। হাঁস পালন করে অনেকে স্বাবলম্বীও হয়েছেন।
তিনি আরো জানান, কার্তিক থেকে জৈষ্ঠ পর্যন্ত আট মাস টানা ডিম দেয় হাঁস। তবে আষাঢ় থেকে আশ্বিন চার মাস ডিম উৎপাদন অর্ধেকে নেমে আসে। তখন নদীতে খাবারের সংকট থাকে।

120Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর