খননের অভাবে মরা খালে পরিনত সরকারি বাঁওড় - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন

    খননের অভাবে মরা খালে পরিনত সরকারি বাঁওড়

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন, ২০১৯

    মহেশপুর (ঝিনাইদহ) সংবাদদাতা: মহেশপুরের ফতেপুর সরকারী বাঁওড়টি এখন গো-চরন ভূমি, মাছ চাষের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। দেখার কেউ নেই।

    ঝিনাইদহ জেলার উল্লেখযোগ্য হিসেবে পরিচিত ফতেপুর সরকারী বাওড়। কপোতাক্ষ নদের অংশ বিশেষ এই বাওড়টি পাকিস্থান আমল থেকে সরকারীভাবে মাছ চাষ করা হয়। এখান থেকে সরকার প্রচুর পরিমান রাজস্ব পেয়ে থাকে। তবে বর্তমানে শুকিয়ে মরা খালে পরিনত হয়েছে। কিছু অংশ ডাঙ্গা হওয়ায় গো-চরন ভূমিতে পরিনত হয়েছে। লক্ষমাত্রা অর্জনে সংশয় দেখা দিয়েছে। দীর্ঘদিন খনন না করায় মাছ চাষের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। ফতেপুর গ্রামে ব-দ্বীপ আকারে তৈরী হয়েছে ফতেপুর বাঁওড়, মধ্যে খানে গ্রামের নাম হয়েছে বেড়ের মাঠ। এটি ফতেপুর গ্রামের অংশ ১৭৯৪ সালের যশোর জেলার কালেক্টরের এক প্রতিবেদনে এই নদের মধ্যে চর সৃষ্টির উল্লেখ করা হয়েছে। নদের দুই মুখ বন্ধ করে দেওয়ায় বাঁওড় সৃষ্টি হয়েছে।

    বৃহত্তর যশোর ও কুষ্টিয়া জেলায় বাঁওড়ের আধিক্য দেখা যায়। বাঁওড়ের বৈশিষ্ট হচ্ছে সারা বছর অধিকাংশ সময় পানি থাকে এবং সে কারণে মৎস্য চাষ হয়। জানা গেছে, ঝিনাইদহের ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ৩৬টি বাঁওড় আছে। আর ফতেপুর সরকারি বাঁওড়সহ মহেশপুর উপজেলায় ১৩টি বাঁওড়। যার আয়াতন ৪৭ হেক্টর বা ১১৬ একর।

    ১৯৫২ সালের জমিদারী প্রথা উচ্ছেদের আগ পর্যন্ত এটি সুন্দরপুর জমিদারদের নিয়ন্ত্রনে ছিল। এই বংশের শেষ জমিদার খান সাহেব ফজলুর রহমান চৌধুরী ১৯৫৮ সালে মারা যাওয়ার পর এই বাওড়টি একটি প্রভাবশালী একটি সিন্ডিকেট মাছ চাষ করতো।

    এরা হলেন- একতারপুর গ্রামের ইজ্জত আলী কারীকার, খাইরুল্লাহ বিশ্বাস, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান তবিবর রহমান খান, ফতেপুর গ্রামের এরশাদ আলী ধাবক, কানাইডাঙ্গা গ্রামের খালেক মন্ডল। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালের দিকে সরকারী ভাবে মাছ চাষ হতে থাকে। বাঁওড় ম্যানেজার হিসাবে যারা দায়িত্ব পালন করেন এদের মধ্যে সহিদ সাহেব, মোশারেফ হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, নুরুন্নবী, জুড়োন সরকার, আবু সাইদ উদ্দিন সরকার , সিরাজুল ইসলাম, মাহবুব রহমান, আব্দুর রউফ, এটিএম আলী হাসান খসরু, আঃ খালেক, বশিউর জামান, আশরাফ উদ্দিন ইকবাল হোসেন, নাজিম উদ্দিন, আব্দুল মজিদ, রবিউল ইসলাম, হরিদাস কুমার দেবনাথ।

    বর্তমানে ম্যানেজারের দায়িত্বে রয়েছে রিপন হোসেনের নাম এক ব্যক্তি। এই বাঁওড়ের কোল ঘেষে বিখ্যাত নাম করা লোকজনের বাড়ী ছিল।

    এরা হলেন- শ্রী গোপাল চট্টোপাধ্যায় (জজ), শ্রী অমুল্যে গোপাল চট্টোপাধ্যায় (জজ), শ্রী বিহারী লাল মুখাজী (অ্যাডভোকেট) শ্রী নগেন্দ্রনাথ (কলকাতা কলেজের গণিতের শিক্ষক ) এক সময় এখান থেকে দুটি জাহাজ কলকাতা যাতায়াত করতো জাহাজ দুটি হলো- কলকাতা মার্টিন কোম্পানীর যোগেশ ও হুগলী জেলার জমিদারদের জ্ঞানেশ নামে দুটি জাহাজ চলাচল করত। বাওড়ের অফিস হিসাবে অমুল্য জজের বাড়ীটি ব্যবহার করা হতো। এখানে প্রায় ৮৮ শতক জমি রয়েছে।

    ১৯৮৩ সালে বিশ্বব্যাংক ২০ বছরের জন্য চুক্তি করলে এর উন্নয়ন ঘটে। সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ বলুহর ও ফতেপুর বাঁওড় উদ্বোধন করেন। তাদের মেয়াদ শেষ হলে মৎস্য অধিদপ্তর ও ভূমি মন্ত্রণালয়সহ স্থানীয় মৎস্য জীবীদের সমন্বয়ে কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন। এই বাঁওড়ে বিভিন্ন সরকারের আমলে মৎস্য মন্ত্রীর আগমন ঘটেছে।

    বর্তমানে মৎস্যজীবীরা হতাশা গ্রস্থ হয়ে পড়েছে। বাঁওড়টি এই অবস্থায় থাকলে লক্ষমাত্রা অর্জন করা সম্ভব নয় বলে মৎস্যজীবিদের নেতা শ্রী সুশান্ত হালদার জানিয়েছেন।

    বাঁওড় ম্যানেজার রিপন হোসেন বলেন- বাঁওড়ে অধিকাংশ জায়গা ডাঙ্গা হয়ে গেছে লক্ষমাত্রা অর্জন করা দূরহ ব্যাপার। তবে খনন কাজ করা হলে লক্ষমাত্রা বাড়ানো সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, এ বিষয়ে একাধিকবার মৎস্য অধিদপ্তরে চিঠি দিয়েও কোন সুরাহা মিলেনি।

    17Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর