ক্রেতাদের নজর কাড়ছে তরমুজ ও কাঁচা আমের জিলাপি - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

    ক্রেতাদের নজর কাড়ছে তরমুজ ও কাঁচা আমের জিলাপি

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক,লালসবুজের কণ্ঠ:


    খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার কৃষক মৃত্যুঞ্জয়ত তরমুজের গুড় তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন । ইফতারিতে ভিন্নতা আনতে এবার খুলনায় তৈরি হচ্ছে তরমুজের জিলাপি। মহানগরীর খালিশপুরে বিআইডিসি সড়কে চিত্রালি সিনেমা হলের সামনে ইসলামিয়া মিষ্টি ঘরে তৈরি করা হচ্ছে নতুন স্বাদের এ তরমুজের জিলাপি।

    শুধু তরমুজের জিলাপিই নয়, এখানে মিলছে কাঁচা আমের জিলাপি, শাহী জিলাপি ও রেশমি জিলাপি। সাধারণ জিলাপিতো আছেই। তবে ক্রেতাদের নজর কাড়ছে বাহারি রং আর নতুন স্বাদের তরমুজ ও কাঁচা আমের জিলাপি।

    শুক্রবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইসলামিয়া মিষ্টি ঘরকে ঘিরে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। সেখানে নানা ধরনের ইফতারির পসরা সাজানো। ক্রেতারা তাদের পছন্দের মিষ্টান্ন কিনছেন। যারা মিষ্টি জাতীয় খাবার পছন্দ করেন তারা ইফতারির জন্য জিলাপি কিনছেন। যার মধ্যে বেশি কিনছেন তরমুজ ও কাঁচা আমের জিলাপি।

    ইসলামিয়া মিষ্টি ঘরের মালিকের বড় ছেলে আবদুস সোবহান রিপন এ প্রতিনিধি কে জানান, এই প্রতিষ্ঠানটি তার বাবার। বাবার সহযোগী হিসেবে তিনি ও তার ছোট ভাই থাকেন। মিষ্টির ব্যবসা তাদের অনেক পুরাতন। সেই সঙ্গে জিলাপির ব্যবসাও অনেক দিন আগে থেকে। খুলনার মধ্যে তাদের জিলাপির বেশ সুনাম রয়েছে। আগে সাধারণ জিলাপি, শাহী জিলাপি ও রেশমী জিলাপি তৈরি করতাম। এটা দীর্ঘদিন থেকে চলে আসছে। এবার চিন্তা করলাম নতুন কী করা যায়? নতুন একটা আইটেম করা যায় কিনা? সেই থেকে তরমুজের একটা আইটেম আমার মাথায় আসলো।

    তিনি বলেন, দক্ষিণাঞ্চলে তরমুজের ব্যাপক চাষাবাদ হয়। দাকোপ, বটিয়াঘাটা, ডুমুরিয়া, পাইকগাছা, যশোর, নড়াইল এই অঞ্চলে প্রচুর তরমুজ হয়। তাই তরমুজ দিয়ে কিছু একটা করা যায় কিনা- এই চিন্তা থেকে ৪/৫ দিন আগে মাথায় আসলো তরমুজ দিয়ে আমি নতুন একটা আইটেম করতে পারি। সেই চিন্তা থেকে তরমুজের আইটেম শুরু করি আমরা। পরবর্তীতে আমরা এর সঙ্গে কাচা আমের আইটেমটা যোগ করি। দুইটা আইটেম বেশ সাড়া ফেলেছে। ক্রেতারা এসব খেয়েও খুব সন্তুষ্ট। যে নিচ্ছে সে বার বার নিতে আসছে। প্রতি কেজি ২৫০ টাকা দরে বিক্রি করছি। প্রতি পিস সাইজের ওপর দাম কমবেশি আছে।

    তিনি বলেন, মানুষ এটা সাদরে গ্রহণ করছে। যে কোনো অনুষ্ঠানে মানুষ এটা নিতে পারবে। যে কোনো পরিমাণ জিলাপি নিতে পারবে। এক কেজি, আধাকেজি, ২৫০ গ্রাম যে কোনো পরিমাণ।

    দোকানের কর্মচারি আবীর হোসেন জানান বাজার থেকে ফ্রেশ তরমুজ কেনা হয়। তরমুজের লাল অংশটুকু কেটে ব্লেন্ডারে মিহি করি। সাধারণ জিলাপির মিশ্রণে পানি দেওয়া হয়। কিন্তু তরমুজের জিলাপির মিশ্রণে শুধু তরমুজের রসই দেওয়া হয়ে থাকে। সাইড ইফেক্ট করবে এমন কিছু ব্যবহার করা হয় না। তরমুজের পিওর রস দিয়ে খামির তৈরি করি। কোনো কালার ব্যবহার করা হয় না। তরমুজ কেটে বিচি ও খোসা আলাদা করে তা ব্লেন্ডারে মিহি করে ময়দা ও বেসনের সঙ্গে মিশিয়ে খামির তৈরি করি।

    একইভাবে আমের খোসা ও আঁটি পৃথক করে ব্লেন্ডারে দিয়ে মিহি করা হয় এবং ময়দা ও বেসনের সঙ্গে মিশিয়ে তেলে ভেজে কাঁচা আমের জিলাপি তৈরি হয় বলে জানালেন দোকানের জিলাপি প্রস্তুতকারক আল আমিন।

    তিনি বলেন, তরমুজ ও আমের খামির তেলে ভেজে চিনির শিরায় কিছুক্ষণ রেখে জিলাপি তৈরি করা হয়। তরমুজের জিলাপি আগে কখনো বানানো হয়নি। এই রমজানে এটা প্রথম আবিষ্কার। ভালোই চলছে। ভালো সাড়া পাচ্ছি। দিন দিন কাস্টমার বাড়ছে। খাইতেও খুব টেস্টি।

    দোকানের কর্মচারীরা জানান, গত ১৩ এপ্রিল তরমুজের ১০ কেজি ও আমের ১৫ কেজি জিলাপি তৈরি করেন। ১৪ এপ্রিল তরমুজের ২০ কেজি ও আমের ২৫ কেজি জিলাপি তৈরি করেন। শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) তরমুজের ২০ কেজি ও আমের ২৫ কেজি জিলাপি তৈরির পর বিক্রি করেছেন। সব জিলাপিই বিক্রি হয়েছে।

    সরেজমিনে জিলাপি কিনতে আসা নগরীর খালিশপুর এলাকার বাসিন্দা মো. আহাদ বলেন, ফেসবুকে দেখেই চলে এসেছেন। দেখতে তো দারুন লাগছে। ইফতারির জন্য নিয়েছেন। খেলেই এর সম্পর্কে মন্তব্য করতে পারবেন।

    অন্য আর এক ক্রেতা জানান, খুলনায় তার শ্বশুড়বাড়ি। ফেসবুকে তরমুজের জিলাপি দেখে তার স্ত্রী নিয়ে যেতে বলল। দোকান খুঁজে বের করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। তবুও খুঁজে বের করেছেন। কাঁচা আম, তরমুজ এবং সাধারণ জিলাপি নিবেন। কাঁচা আমের জিলাপি ১৫ টাকা পিস এবং ২৫০ টাকা কেজিতে নিচ্ছে। তরমুজেরটাও একই দাম। প্রথমবারের মতো নিচ্ছেন তিনি।


    লালসবুজের কণ্ঠ/এস.আর.এম.

    22Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর