কাশিয়ানীতে চুরি ডাকাতি বন্ধে নির্ঘুম ‘রাতের প্রহরায়’ গ্রামবাসী - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন

    কাশিয়ানীতে চুরি ডাকাতি বন্ধে নির্ঘুম ‘রাতের প্রহরায়’ গ্রামবাসী

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২

    গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:


    চুরি, ডাকাতি ও মাদক পাচার প্রতিরোধ
    এবং এলাকাকে নিরাপদ রাখতে পুলিশ ও
    গ্রাম পুলিশের পাশাপাশি সম্মিলিতভাবে
    রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসী


    ‘হুঁশিয়ার সাবধান, জাগো জাগো গ্রামবাসী জাগো’ এমন হাঁকডাক দিয়ে রাতে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসী। শুক্রবার (৫ আগস্ট) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রাতইল ইউনিয়নের শ্যামবাজার এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে এমন দৃশ্য।

    চুরি, ডাকাতি ও মাদক পাচার প্রতিরোধ এবং এলাকাকে নিরাপদ রাখতে পুলিশ ও গ্রাম পুলিশের পাশাপাশি সম্মিলিতভাবে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসী।

    সম্প্রতি চুরি-ডাকাতির উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার প্রতিটি এলাকার গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে এমন পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাত ১০ টার পর থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত দলবেঁধে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসী।

    উপজেলার জয়নগর এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে- বাঁশের লম্বা লাঠি, বাঁশি ও টর্চলাইট নিয়ে দলবদ্ধ হয়ে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসী। সন্দেহভাজনক কাউকে দেখা গেলে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গ্রামবাসী এভাবে রাতে বাজার পাহারা দেওয়ায় কোন চুরি-ডাকাতি সংঘটিত হচ্ছে না। অবৈধ কোন কিছু বাজারে প্রবেশের সুযোগও পাচ্ছে না। এভাবে প্রত্যেকটি গ্রামের মানুষ সজাগ থাকলে চুরি-ডাকাতিসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ড বন্ধ হয়ে যাবে মনে করছেন স্থানীয়রা।

    উপজেলার শ্যামবাজারের ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাজারে গ্রামবাসী পাহারা দেওয়ায় এখন আর চুরি-ডাকাতি হয় না। আমরা ব্যবসায়ীরা রাতে দোকানপাট বন্ধ করে অনেকটা নিরাপদ ও নিশ্চিন্তে থাকি।’

    কাশিয়ানী সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আলী খোকন বলেন, এলাকাবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে হাট-বাজার, পাড়া-মহল্লার প্রবেশদ্বারসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পয়েন্টে পাহারা বসানো হয়েছে। তাদের সঙ্গে পুলিশ ও গ্রাম পুলিশ কাজ করছেন। এভাবে সজাগ থাকলে শুধু চুরি ডাকাতি নয়, মাদক পাচারও বন্ধ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন তিনি।

    কাশিয়ানী থানার ওসি মো. সওগাতুল আলম বলেন, চুরি-ডাকাতি ও মাদক পাচার প্রতিরোধে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় প্রতিটি ইউনিয়নে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গ্রামবাসীর সমন্বয়ে বৈঠক করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি এলাকায় রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন তারা। গ্রামবাসীর অংশগ্রহণে রাতের বেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজ অনেক সহজ হয়েছে। এভাবে প্রত্যেকটি গ্রামের মানুষ সজাগ থাকলে চুরি-ডাকাতি বন্ধ অনেকটা সহজ হবে। কমে আসছে অপরাধমূলক কর্মকান্ড। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।


    দুলাল/এআর

    32Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর