এস্কেভেটরে কর্মহীন সোনামসজিদ স্থলবন্দরের দেড় হাজার শ্রমিক - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

    এস্কেভেটরে কর্মহীন সোনামসজিদ স্থলবন্দরের দেড় হাজার শ্রমিক

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ২ অক্টোবর, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


    দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বন্দর হিসেবে পরিচিত চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থল বন্দর। এ বন্দরের ভিতর এবং বাইরে বছরখানেক আগেও নিয়মিত কাজ করত প্রায় আড়াই হাজার শ্রমিক। কিন্তু বর্তমানে পানামার মধ্যে প্রায় ১২শ শ্রমিকের কাজ থাকলেও কর্মহীন হয়ে পড়েছে বন্দরের বাইরে কাজ করা প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক। আবার কেউ কেউ প্রতিদিন কাজের সন্ধানে বন্দরে এসে কাজ না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন খালি হাতে। বর্তমানে তাঁরা কাজ হারিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এর মূল কারন হচ্ছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু)।

    বন্দরে প্রায় অর্ধশত এস্কেভেটর পাথরসহ অন্য মালামাল লোড আনলোডের কাজ করছে। কর্মহীন শ্রমিক কামালপুর এলাকার শরিফুল ইসলাম জানান,দীর্ঘ ১৪ বছর বন্দরে শ্রমিক হিসেবে কাজ করে পরিবার নিয়ে জীবন যাপন করতেন। কিন্তু গত ছয় মাস যাবৎ কোন কাজ পাচ্ছেন না। তিনি বলেন,বন্দরে শ্রমিকরে কাজ করে অ্যভাস্ত হওয়ায় অন্যকাজ করতে পারছেন না। কাজের সন্ধানে প্রতিদিন বাড়ী থেকে বন্দরে এসেও কাজ মিলছে না।

    বড়গাছী এলাকার আব্দুর রশিদ জানান,৯ বছর ধরে বন্দর এলাকায় বিভিন্ন পন্য লোড আনলোড হিসেবে শ্রমিকের কাজ করতেন তিনি। গত মৌসুমে ধান কাটার জন্য নওগাঁ যান। ২৫ দিন ধান কেটে ফিরে এসে দেখেন কাজ নাই। কাজ হারিয়ে এখন তিনি মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

    অপর শ্রমিক ইসরাইল হোসেন বলেন,৭/৮জন শ্রমিক মিলিয়ে বন্দর এলাকায় পাথর লোড আনলোডের কাজ করে জনপ্রতি ৪শ থেকে সাড়ে চারশ টাকা আয় করতেন। কিন্তু দুই মাস আগে দেশের বিভিন্ন স্থান হতে প্রায় অর্ধশত এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) মেশিন এসে পাথর লোড আনলোড করছে। এতে তিনিসহ অসঙ্খ্য শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন।

    ফেনী থেকে এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) নিয়ে এসেছেন সাকিল হোসেন ও সুমন নামে দুই ব্যক্তি। সাকিল হোসেন বলেন,প্রতিদিন তাঁর মেশিনে ২৬-২৮টি ট্রাকে পাথর লোড আনলোড করা হয়। প্রতিটি গাড়ী বাবদ ৭০০-৮০০ টাকায় আয় হয়। সব মিলিয়ে তাঁদের জমজমাট ব্যবসা চলছে।

    পানামা পোর্ট লিংক লিমিটেডের শ্রমিক ঠিকাদার সেনাউল ইসলাম জানান,এস্কেভেটর মেশিনের কারনেই শ্রমিকরা বেকার হয়ে পড়েছে। যে সময় এবং খরচে একটি ট্রাক লোড আনলোড করত শ্রমিকরা। ঠিক একই সময় এবং সম পরিমান মজুরি দিতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। তাপরেও শ্রমিকদের কাজ দেয়া হচ্ছে না। শ্রমিক বাঁচাতে তিনি আমদানি রপ্তানিকারকদের মানবিক হওয়ার আহবান জানান।

    সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি রপ্তানীকারক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান রাজু বলেন,ধান কাটা এবং আমের মৌসুমে শ্রমিক সঙ্কট দেখা দেয়। ফলে বাধ্য হয়ে পাথরের ট্রাক লোড আনলোডে এস্কেভেটর মেশিন (ভেকু) ব্যবহার হচ্ছে। এতে সময় এবং টাকা দুটোই শাশ্রয় হচ্ছে।

    সোনামসজিদ স্থলবন্দর পানামা পোর্ট লিংক লিমিটেডের পোর্ট ম্যানেজার মাইনুল ইসলাম বলেন,কাজের সন্ধানে বন্দরে প্রতিদিন শ্রমিকরা ভিড় করছে। কিন্তু পানামার মধ্যে ১২শ শ্রমিকের কাজের সুযোগ রয়েছে। এর বাইরে শ্রমিক নেয়া যাচ্ছে না।


    টিআর/এআর

    8Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর