একশ টাকায় পুলিশের চাকরি পেল ওরা - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:১৫ অপরাহ্ন

    একশ টাকায় পুলিশের চাকরি পেল ওরা

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই, ২০১৯

    নাটোর সংবাদদাতা:
    পুলিশের কনস্টেবল পদে আগে থেকেই বিনা টাকায় নিয়োগ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন। মাত্র একশ টাকার বিনিময়ে চাকরি পাওয়া যাবে পুলিশের এমন ঘোষণার পর অনেকেই বিষয়টিকে হাস্যকর বলেছেন। কিন্তু বিনা টাকায় চাকরি দিয়ে সে কথা রেখেছেন পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন। এ দিকে চাকরি পেয়ে হতদরিদ্র ওই পরিবারগুলোতে চলছে আনন্দের বন্যা। বিনা টাকায় পুলিশের চাকরি পেয়েছে এমন কয়েকটি হতদরিদ্র পরিবারের গল্প তুলে ধরা হলো পাঠকদের জন্য।

    ‘বিনা টাকায় চাকরি হয়? এটা কোনো মানুষই বিশ্বাস করবে না। তাও আবার পুলিশের চাকরি। কখনো এটা বিশ্বাস হচ্ছিল না যে, বিনা টাকায় আমার চাকরি হবে। পুলিশের সার্কুলার দেওয়ার পর আবেদন করার টাকাও ছিল না আমার কাছে। বড় দুলাভাই দুইশ টাকা দেওয়ার পর সে টাকা দিয়েই আবেদন করি পুলিশ কনস্টেবল পদে। যেদিন লাইনে দাঁড়াব, সে দিন মায়ের অন্যের বাড়ি থেকে কাজ করে আনা দুইশ টাকা নিয়ে যাই। এখন চাকরিটা পাওয়ার পর পরিবারের সবার মুখে হাসি ফুটেছে। হতদরিদ্র পরিবারের মেয়ে হিসেবে বিনা টাকায় চাকরিটা পাওয়া মানে আমার কাছে পৃথিবী হাতের মুঠোয় পাওয়ার মতো।’ চোখে আনন্দ অশ্রু আর শত কষ্ট ছাপিয়ে এভাবেই পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি পাওয়ার বর্ণনা দিচ্ছিলেন, নাটোরের সিংড়া উপজেলার পাকুরিয়া গ্রামের হত দরিদ্র জবদুল প্রামাণিকের মেয়ে সাদিয়া সুলতানা।

    সিংড়ার প্রত্যন্ত এলাকা পাকুরিয়া গ্রাম। গ্রামের মাটির ঘরেই বেড়ে ওঠা সাদিয়া সুলতানার। বর্তমানে সাদিয়া চলনবিল মহিলা ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। চার বোনের মধ্যে সাদিয়া সবার ছোট। সাদিয়ার বাবার দুই স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীর ঘরে সাদিয়ার মাসহ পাঁচজনের বসবাস। আর তার বাবা দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকায় বসবাস করেন। তেমন একটা খোঁজ রাখেন না তাদের। মা হাজেরা বেগম অন্যের বাড়িতে কাজ করে তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। বাড়িতে বাড়িতে কাজ করে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার আর সাদিয়ার পড়াশুনার খরচ বহন করেন তিনি।

    সাদিয়া সুলতানার মা হাজেরা বেগম বলেন, প্রথমে যখন পুলিশ নিয়োগের সার্কুলার হয়, তখন আমার বড় মেয়ের জামাই ইসমাইল হোসেন ফোনে সাদিয়াকে আবেদন করতে বলেন। এ সময় সাদিয়া তখন তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে আবেদন করতে চায় না। দুলাভাইকে বলে, টাকা ছাড়া চাকরি হবে না, শুধু শুধু আবেদন করে কী লাভ। তারপরও দুলাভাইয়ের কথা অনুযায়ী সাদিয়া জামাইয়ের কাছ থেকে দুইশ টাকা নিয়ে আবেদন করে। পরে লাইনে দাঁড়ালে তার চাকরিটা হয়। এখন বিশ্বাসই হচ্ছে না টাকা ছাড়াও সরকারি চাকরি হয়।

    নাটোর শহরতলীর দিঘাপতিয়া ইউনিয়নের বেজপাড়ার দিনমুজুর আমিরুল ইসলামের ছেলে রাসেল আলী। বর্তমানে এনএস সরকারি কলেজে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র সে। আমিরুল ইসলাম অন্যের মিলে কাজ করে যা আয় হয়, তা দিয়েই সংসার চালান। আর ছেলে রাসেল আলী প্রাইভেট পড়িয়ে নিজের পড়াশুনার খরচ চালাতেন। এবারের কনসস্টেবল রিক্রুটে বিনা টাকায় তারও চাকরি হয়েছে। এখন পরিবারে চলছে আনন্দের বন্যা।

    রাসেল আলী বলেন, চাকরি মানে ৭ থেকে ৮ লাখ টাকার ব্যাপার। কিন্তু আমার পরিবারের পক্ষে এত টাকা দেওয়ার ক্ষমতা নেই। একেতো বাবা দিনমজুরি করে সংসার চালান, সেখানে আবার ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা কোথায় পাব? একদিন পত্রিকায় কনস্টেবল পদের সার্কুলার দেখে নিজেই ১০৩ টাকার বিনিময়ে আবেদন করি। পরে সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি। বিনা টাকায় চাকরি পাব, কখনো কল্পনাতেও ছিলনা।

    রাসেল আলীর মা রানু বেগম বলেন, যেদিন ছেলে লাইনে দাঁড়াবে, সেদিন তার হাতে একশ টাকাও তুলে দিতে পারিনি। বিশ্বাসই হচ্ছিল না টাকা ছাড়া আমার ছেলের চাকরি হবে। এখন ছেলের চাকরিটা পাওয়ার কারণে আমরা আশায় বুক বাঁধছি।

    নাটোরের উত্তরা গণভবনের পিছনে জেলে পাড়া। এই জেলে পল্লীর দীনেশ হালদারের ছেলে দিপন কুমার হালদার। দীনেশ হালদার মাছ ব্যবসা করে সংসার চালান। রাস্তার পাশের টিনের আধপাকা বাড়িতেই দিপন কুমারের বসবাস। দুই ভাইয়ের মধ্যে সে বড়। বর্তমানে এমকে কলেজের অর্নাস দ্বিতীয় বর্ষে পড়াশুনা করছে সে। এবারের পুলিশ নিয়োগে বিনা টাকায় অন্যান্যদের মতো তারও চাকরি হয়েছে। ছেলের চাকরি পাওয়ার কারণে আত্মহারা দিপনের পরিবারে।

    শুধু সাদিয়া, রাসেল আলী বা দিপন হালদার নয়। এবারের পুলিশ রিক্রুটে বিনা টাকায় চাকরি হয়েছে অনেকের। এদের মধ্যে বাগাতিপাড়া উপজেলার ডুমরাই ঢাকা পাড়া গ্রামের জাফর আলীর মেয়ে লিজা খাতুন, সদর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের বাছেদ শেখের মেয়ে রুনা খাতুন, মোহনপুর এলাকার দিনমজুর আব্দুস সামাদের ছেলে রাজেকুল ইসলাম এবং লালপুর উপজেলার বিলমাড়িয়া নাগষোশা গ্রামের আমিরুল ইসলামের ছেলে শিমুল ইসলামের চাকরি হয়েছে বিনা টাকায়। এসব পরিবারে চলছে এখন আনন্দের বন্যা।

    57Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর