1. [email protected] : News room :
ইমরান খানকে যা বললেন ট্রাম্প - লালসবুজের কণ্ঠ
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

ইমরান খানকে যা বললেন ট্রাম্প

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
আবারো কাশ্মীর সংকট সমাধানে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বললেন, যদি ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই চায় তাহলে কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতা করতে প্রস্তুত তিনি। জাতিসংঘের ৭৪তম বার্ষিক সাধারণ সম্মেলনের আগে তার সঙ্গে সোমবার সাক্ষাৎ করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এ সময় ট্রাম্প ওই মন্তব্য করেন। সাক্ষাৎ শেষে তিনি ইমরান খানকে পাশে রেখে সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানেই নতুন করে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দেন ট্রাম্প। কাশ্মীর ইস্যুতে তিনি বলেন, যদি আমি সাহায্য করতে পারি তাহলে অবশ্যই তা করবো। যদি (ভারত ও পাকিস্তান) উভয়েই চায় তাহলে আমি স্বেচ্ছায় সহায়তা করতে প্রস্তুত আছি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। ট্রাম্প আরো বলেন, কাশ্মীর একটি জটিল ইস্যু। এ সঙ্কট দীর্ঘদিন ধরে চলছে। তবে এর সমাধান সম্ভব হবে না, যদি উভয়পক্ষ এতে সম্মত না হয়। তিনি আরো জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে অত্যন্ত চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে তার। একই রকম সম্পর্ক রয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরানের সঙ্গে। ট্রাম্প আরো বলেন, অতীতে কোনো উদ্যোগ নিয়ে তিনি ব্যর্থ হননি। তাই যদি তাকে বলা হয়, তাহলে তিনি এই সমস্যা নিয়ে অগ্রসর হতে পারেন।

উল্লেখ্য, এর আগের দিন রোববার টেক্সাসে বিশাল এক জনসভায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে উপস্থিত হন ট্রাম্প। সেখানে দুই নেতা একে অন্যের ভূয়সী প্রশংসা করেন। মোদিকে এ সময় বন্ধু বলে উল্লেখ করেন ট্রাম্প। বিনিময়ে মোদি, যুক্তরাষ্ট্রে ‘আরো একবার দরকার, ট্রাম্প সরকার’ স্লোগান দেন। এ জন্য ভারতের বিরোধী কংগ্রেস পার্টি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে। তারা বলেছে, মোদি অন্য দেশের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে ভারতের পররাষ্ট্রনীতি লঙ্ঘন করেছেন। এর পরের দিন সোমবারই ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ইমরান খান।

সংবাদ সম্মেলনে কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘে রেজুলিউশন সংক্রান্ত এক প্রশ্নের সরাসরি উত্তর এড়িয়ে যান ট্রাম্প। উল্টো তার পুরনো বক্তব্যে ফিরে যান। তিনি বলেন, যদি ভারত ও পাকিস্তান রাজি থাকে তাহলে তিনি দক্ষিণ এশিয়ায় ভূমিকা পালনের জন্য প্রস্তুত। যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তান সম্পর্ক নিয়ে তিনি বলেন, আমার অবস্থানে থাকা মানুষ পাকিস্তানের সঙ্গে খুব খারাপ আচরণ করেছে। আমি পাকিস্তানের ওপর আস্থা রাখি। কিন্তু আমার পেছনে যেসব মানুষ আছেন তারা বিশ্বাস করেন না। তারা জানেন না তারা কি করছেন। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে দেখিয়ে ট্রাম্প বলেন, এখানে দাঁড়ানো এই ভদ্রলোকের প্রতি আমার আস্থা আছে। নিউ ইয়র্কে আমার পাকিস্তানি অনেক বন্ধু আছেন। তারা খুব স্মার্ট, ভালো মধ্যস্থতাকারী। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের অগ্রগতির বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, শুনেছি তারা বড় ধরনের অগ্রগতি করেছে। আমি আশা করি, ইমরান ভালো অগ্রগতি করবে।

ভারত দখলীকৃত কাশ্মীরের মানবাধিকার পরিস্থিতিতে তিনি কি উদ্বিগ্ন? এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, অবশ্যই। আমি দেখতে চাই সবকিছু কাজ করছে। আমি চাই সবার সঙ্গেই ভালো ব্যবহার করা হোক। নির্দিষ্ট না করে হলেও ট্রাম্প বলেন, রোববার তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পক্ষ থেকে খুব আগ্রাসী একটি বিবৃতির কথা শুনেছেন। এ কথা উল্লেখ করে ট্রাম্প বলেন, আমি আশা করি এই দুটি দেশ একত্রিত হবে। তারা এমন কিছু স্মার্ট কাজ করবে, যা উভয়ের জন্য মঙ্গলজনক হয়। সব সময়ই এ সমস্যার সমাধান আছে। আমি বিশ্বাস করি, এর সমাধান আছে।
অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলনে কাশ্মীর ইস্যুর দিকে ইঙ্গিত করে ইমরান খান বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর দেশের প্রধান ট্রাম্প। তাদের বিরোধ মীমাংসার দায়বদ্ধতা আছে। আমি চাই, বিশ্বজুড়ে যে আগুন জ্বলছে তা নিভিয়ে ফেলুক যুক্তরাষ্ট্র। ইমরান আরো বলেন, ট্রাম্প মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দেয়া সত্ত্বেও পাকিস্তানের সঙ্গে সংলাপ প্রত্যাখ্যান করেছে ভারত। এই অবস্থায়, আমি মনে করি এটা হলো একটি সংকটের সূচনা। আমি সততার সঙ্গে মনে করি, এই সংকট আরো বড় আকার ধারণ করবে, যা কাশ্মীরে ঘটছে।

21Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর