আবার বাড়ছে চালের দাম - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন

    আবার বাড়ছে চালের দাম

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ,নিউজ ডেস্ক


    চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সরকার আমদানি শুল্ক কমালেও এতে কাজ হচ্ছে না। শুল্ক কমানোর এক সপ্তাহের মাথায় পণ্যটির দাম কিছুটা কমলেও এখন আবার বাড়তে শুরু করেছে। মূলত চাল রপ্তানিতে ভারত সরকারের ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপের প্রভাবে বাংলাদেশের বাজারে চালের দাম আবার বাড়ছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

    দেশে চালের অন্যতম বড় পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের পাহাড়তলী। সেখানে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে ৫০ কেজির এক বস্তা চালের দাম ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেড়েছে।

    চালের দাম বাড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে পাহাড়তলী বাজারের জিসান রাইস এজেন্সির পরিচালক শুধাংশু সাহা বলেন, ‘গত সপ্তাহের মাঝামাঝি থেকে চালের বাজার আবার বাড়তির দিকে। এখন বস্তায় ৫০ টাকার মতো বাড়ছে। গতকাল আমি চালের জন্য উত্তরবঙ্গের এক ব্যবসায়ীকে ফোন করেছিলাম। তিনি গত সপ্তাহে আমাকে যে দামে চাল দিয়েছেন, এখন এর চেয়ে ৫০ টাকা বেশি চাইছেন প্রতি বস্তায়।’

    বন্দরনগরী চট্টগ্রামের চাক্তাই ও পাহাড়তলী বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, সেখানে ৫০ কেজির প্রতি বস্তা জিরাশাইল বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৪০০ থেকে ৩ হাজার ৪৫০ টাকায়। এক সপ্তাহ আগেও এই চাল বিক্রি হয় ৩ হাজার ৩৫০ থেকে ৩ হাজার ৪০০ টাকায়।

    শুধু জিরাশাইল নয়, বাজারে এখন সব ধরনের চালের দাম ৫০ কেজির বস্তায় গড়ে ৫০ থেকে ১০০ টাকা বাড়ছে। প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) মোটা সিদ্ধ চাল বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ১৫০ টাকায়। স্বর্ণা সিদ্ধ প্রতি বস্তা ২ হাজার ৩৫০, পাইজাম সিদ্ধ ২ হাজার ৭০০, বালাম সিদ্ধ ২ হাজার ৫০০, বাসমতী সিদ্ধ ৩ হাজার ৪৫০, কাটারি সিদ্ধ ৩ হাজার ৮৫০, নাজিরশাইল প্রতি বস্তা ৩ হাজার ৮৫০ থেকে ৩ হাজার ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে, ইরি আতপ প্রতি বস্তা ২ হাজার ১০০ টাকা, বেতি আতপ ২ হাজার ৪০০ টাকা, মিনিকেট আতপ ২ হাজার ৭০০ টাকা, পাইজাম আতপ ২ হাজার ৫৫০ টাকা, কাটারি আতপ ৩ হাজার ৮৫০ টাকা এবং চিনিগুড়া প্রতি বস্তা ৬ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

    ব্যবসায়ীরা বলছেন, চাল আমদানিতে ভারত সরকার শুল্কারোপ করার পর চাল আমদানি কমিয়ে দিয়েছেন আমদানিকারকেরা। যে কারণে দেশীয় চালের বাজারে চাপ বাড়ছে। এ সুযোগে মিলাররাও দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

    তবে কমতির দিকে থাকা চালের দাম হঠাৎ বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না ক্রেতারা। তাঁরা বলছেন, এত দ্রুত দাম বাড়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই। আগের এলসি করা চাল তো এখনো আসছে। তাহলে এখন আবার দাম বাড়বে কেন? দেশে উৎপাদিত চালের মজুতও এখনো শেষ হয়নি।

    পাহাড়তলী বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন বলেন, চাল রপ্তানিতে ভারত সরকার ২০ শতাংশ কর আরোপ করেছে। এ কারণেই এখন আবার চালের দাম বাড়তে শুরু করেছে।

    ভারত আতপ চালের ওপর শুল্কারোপ করলেও সিদ্ধ চালের দাম বাড়ছে কেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখানে তো একটা কারসাজি আছেই। ভারতের করারোপের বিষয়টি সামনে এনে মধ্যস্বত্বভোগী ও মিলাররা দেশে চালের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন। না হলে তো সিদ্ধ চালের দাম বাড়ার কথা না। এখন মিলাররা দাম বেশি নেওয়ায় আমাদেরও বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।’

    নিউজ ডেস্ক/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর