আন্দোলনে গতি ধরে রাখতে মাঠে মন বিএনপির - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৩৬ অপরাহ্ন

    আন্দোলনে গতি ধরে রাখতে মাঠে মন বিএনপির

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ,নিউজ ডেস্ক


    ২০২৩ সালকে ‘চূড়ান্ত আন্দোলনের বছর’ ধরে পরিকল্পনা ও কৌশল ঠিক করছে বিএনপি। এর অংশ হিসেবে চলমান আন্দোলনের গতি ধরে রাখতে দেওয়া হয়েছে বিশেষ মনোযোগ। মাঠে থেকেই গতি বাড়িয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ে যাওয়ার পরিকল্পনা বিএনপির। এর পাশাপাশি সমমনাদের সঙ্গে বোঝাপড়ার ঘাটতি নিরসনে কাজ চলছে সমানতালে।

    সব ঠিক থাকলে আগামী জানুয়ারিতেই সমমনাদের নিয়ে যুগপৎ আন্দোলন শুরু করতে চায় দলটি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তাঁর দল আওয়ামী লীগের কাছ থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত কোনো পর্যায়েই কোনো ছাড় মিলবে না—এমনটি ধরে নিয়েই মাঠের ছক সাজাচ্ছে ১৬ বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি।

    বিএনপিকে নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতির সর্বশেষ রাজনৈতিক বক্তব্য থেকে দলটি কী বার্তা পেল—এমন প্রশ্নের জবাবে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল শুক্রবার বলেছেন, ‘উনারা (শেখ হাসিনা) তো চানই বিরোধী দল নির্বাচনে না আসুক। ফাঁকা মাঠে গোল দেওয়ার অভ্যাস হয়ে গেছে উনাদের।’

    বিএনপির নির্বাচনে যাওয়া না-যাওয়া প্রশ্নে শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘বিএনপি তো জনগণের কাছে যেতেই ভয় পায়। জনগণের সামনে ভোট চাইতে গিয়েও ভয় পায়।’

    বিএনপির কয়েকজন নেতা বলেছেন, নির্বাচনকালে নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে যে আন্দোলন শুরু হয়েছে, তা নস্যাৎ করতে সরকারের তরফে নানামুখী কৌশল নেওয়া হয়েছে। অতীতের মতো একই কায়দায় বিএনপিকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বাইরে রেখে চতুর্থবারের মতো ক্ষমতায় আসতে চায় আওয়ামী লীগ। কর্মসূচি ঘিরে হামলা-মামলা ও গ্রেপ্তার অব্যাহত রয়েছে। এমনকি বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য চাওয়া হচ্ছে। সামনে চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হলে আওয়ামী লীগ আরও বেপরোয়া হয়ে উঠবে বলে তাঁরা মনে করছেন।

    অন্যদিকে বর্তমান সরকারের অধীনে বিএনপিকে নির্বাচনে আনার চেষ্টাকে ‘ফাঁদ’ বলে মনে করছেন দলটির নেতারা। এসব বিষয় বিবেচনায় রেখেই এবার হার্ড লাইনে যাওয়ার চেষ্টা বিএনপির নীতিনির্ধারকেরা। কোনো অবস্থাতেই যেন মাঠ থেকে সরে যেতে না হয়, সেটা নিশ্চিত করতে তৎপর রয়েছেন তাঁরা। ছোট-বড় নানা কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে নেতা-কর্মীদের প্রস্তুতির পরীক্ষা নিয়ে আরেক ধাপ এগিয়ে নিতে বিভাগীয় পর্যায়ে গণসমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। ১২ অক্টোবর চট্টগ্রামে শুরু হয়ে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশের মধ্য দিয়ে এই কর্মসূচির সমাপ্তি ঘটবে। ঢাকার মহাসমাবেশ থেকে চূড়ান্ত আন্দোলনের কর্মসূচির ঘোষণা আসার সম্ভাবনা রয়েছে।

    একই সঙ্গে চূড়ান্ত আন্দোলনের জন্য সরকারবিরোধী সমমনা দলগুলো কতখানি প্রস্তুত, তা জানতে এবং বোঝাপড়ার ঘাটতি দূর করতে তাদের সঙ্গে দ্বিতীয় দফা সংলাপ চলছে বিএনপির। একদিকে সংলাপ শেষে আন্দোলনের চূড়ান্ত দাবিনামা হবে। আর অন্যদিকে বিভাগীয় গণসমাবেশের কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে দেশব্যাপী নেতা-কর্মীরা পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে যাবে। এই দুইয়ের সমন্বয়ে শক্তি ক্ষয় না করে একটু একটু করে আগে বাড়ার চিন্তা দলটির।

    অবশ্য বিএনপির নেতাদের মধ্যেই ভিন্নরকম মতও আছে। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী মনে করেন, চূড়ান্ত আন্দোলন বলে কিছু নেই।

    আন্দোলনের গতি-প্রকৃতি অনুযায়ীই সিদ্ধান্ত আসবে জানিয়ে তিনি বলেন, আন্দোলনের নিজস্ব গতি-প্রকৃতি আছে। সময়মতো আন্দোলন তার পথ বেছে নেয়।

    সমমনাদের সঙ্গে বোঝাপড়ার ঘাটতি আছে কি না—জানতে চাইলে আমীর খসরু বলেন, ‘লক্ষ্য তো একটাই, এই সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না। এই জায়গায় কোনো দ্বিমত নাই।’

    দলের নেতারা জানান, বিভাগীয় পর্যায়ে গণসমাবেশের কর্মসূচি সফল করতে সাংগঠনিক বিভাগ ধরে প্রস্তুতি চলছে যুক্তরাজ্যে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের তত্ত্বাবধানে। জেলা, উপজেলা-থানা-ইউনিয়ন পর্যায়ে এ বিষয়ে কর্মী সভার আয়োজন আছে। কর্মীদের উজ্জীবিত করার পাশাপাশি কর্মসূচিতে জনগণকে কীভাবে অধিকসংখ্যায় সম্পৃক্ত করা যায়, সে বিষয়ে চেষ্টা চলছে।

    খুলনার দলনেতা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বিএনপির আন্দোলনে গতি এসেছে। বিভাগীয় পর্যায়ে গণসমাবেশের কর্মসূচি এই গতিকে জোরালো করবে।

    রংপুরের দলনেতা বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুন-উর-রশিদ বলেন, আন্দোলনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নানা চ্যালেঞ্জ আসবে, এটা বিবেচনায় আছে। এসব মোকাবিলা করেই সামনে এগিয়ে যেতে প্রস্তুত রয়েছেন নেতা-কর্মীরা।

    নিউজ ডেস্ক/স্মৃতি

    27Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর