আওয়ামী লীগকে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই : মেয়র লিটন - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন

    আওয়ামী লীগকে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই : মেয়র লিটন

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


    আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাসিক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, বিএনপি খোয়াব দেখছে তারা আবার ক্ষমতায় যাবে। আবার হাওয়া ভবন হবে, আবার চম্পা ভবন হবে। আবার সেখানে মানুষ আসবে, লক্ষ কোটি টাকা দিয়ে তাদের বাক্স ভরে দিয়ে যাবে তারা সে স্বপ্ন দেখছে। আর কেয়ারটেকার সরকারের দরকার নেই।

    আপনাদের ফর্মূলানুযায়ী বাংলার মাটিতে নির্বাচন হবে না। উন্নত গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে যে পদ্ধতিতে নির্বাচন হয়, সেভাবে নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। আওয়ামী লীগকে খেলার ভয় দেখিয়ে লাভ নেই, আ.লীগ চোরাপথে গলি দিয়ে হঠাৎ করে ঝটিকা মিছিল করে ক্ষমতায় আসেনি। হঠাৎ করে রাতে ট্যাংক আর বন্দুক বের করে কাউকে হত্যা করে ক্ষমতা নেয়নি। আওয়ামী লীগের জন্য কোটি কোটি জনতা আছে। বিএনপির দয়ায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসেনি।

    আজ সোমবার বিকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা পার্কে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত শোক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

    জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুহঃ জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল ওদুদ, সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রুহুল আমিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য ফেরদৌসি ইসলাম জেসি, রাজশাহী মহানগরী আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ মোখলেসুর রহমান প্রমুখ।

    প্রধান অতিথি আরো বলেন, বিএনপি আগামী মাস থেকে তারা সারাদেশে অরাজকতা সৃষ্টি করার জানান দিবে। তাই নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থেকে তাদের দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিতে হবে। বিএনপির দয়ায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসেনি। জনগণকে নিয়ে ক্ষমতায় এসেছি। আ.লীগ সরকার জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একের পর এক সমস্যার সমাধান করে যাচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, একদিনের ষড়যন্ত্রে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড সংগঠিত হয়নি।

    এ হত্যাকান্ড ছিল পূর্ব ও সুপরিকল্পিত। কেননা পিছনে ছিল বাঙালি জাতীয়তাবাদ ধ্বংস করার চক্রান্ত। ১৯৭৩ সাল থেকে দেশদ্রোহীরা এদেশকে ফের পাকিস্তানের রূপ দিতে পরিকল্পনা শুরু করেছিল। অবশেষে ’৭৫-এ সম্মিলিতভাবে বাঙালির ভাগ্যকে পিছনে ঘুরে দিতে নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে সক্ষম হয় ঘাতকরা। খন্দকার মোশতাক ছিল মীরজাফর, ঘরের ভেতরের খবর তিনি পৌঁছে দিতেন জিয়াউর রহমানের কাছে। আর জিয়াউর রহমানের নির্দেশনায় সেনাবাহিনী থেকে বহিস্কৃত কর্ণেল ফারুক ও রশিদগং ৭৫’র ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করে।

    বাঙালি জাতি হারিয়েছিল সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নদ্রষ্টাকে। এস এম কামাল হোসেন বলেন, দেশে চরম উগ্রবাদ, বাংলাভাই জেএমবি’র মত উগ্র সাম্প্রদায়িকতার সৃষ্টি হয়েছিল। ঠিক তখনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব উগ্রবাদ এবং বাংলাভাইদের কঠোর হাতে দমন করে বাংলাদেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তিনি বলেন, জামায়াত-বিএনপি আ.লীগ সরকারের বিরুদ্ধে নানামুখি গুজব রটিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সাধারন মানুষকে বিভ্রান্ত করার প্রয়াস চালাচ্ছে। তিনি সর্বক্ষেত্রে উন্নয়নের কথা তুলে ধরে দেশের মানুষকে ওইসব কুচক্রীমহল থেকে সচেতন থাকার আহবান জানান।


    কামাল/এআর

    26Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর