অস্ট্রেলিয়া-বধের দিন আজ? - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন

    অস্ট্রেলিয়া-বধের দিন আজ?

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯

    লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:
    বিশ্বাসে মিলায় বস্তু, তর্কে…। শক্তি আর সামর্থ্যরে বিচারে ক্রিকেটে তর্কাতীতভাবে বাংলাদেশের থেকে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া। তাই দুই দল যখন লড়াইয়ের ময়দানে মুখোমুখি, অস্ট্রেলিয়া তখন পরিষ্কার ফেবারিট, বাংলাদেশ আন্ডারডগ। কিন্তু সবসময় ফেবারিটরাই জেতে না, কখনও কখনও আন্ডারডগরাও ছাড়িয়ে যায় তাদের। সে কারণেই তো ক্রিকেট গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা। সেখানে নির্দিষ্ট দিনটি যার, বিজয়মাল্যও বরাদ্দ থাকে তার জন্য। একবুক বিশ্বাস আর নিজেদের সামর্থ্যে পূর্ণ আস্থা রেখে ট্রেন্ট ব্রিজে আজ তেমন দিনেরই অপেক্ষায় মাশরাফি বিন মর্তুজার বাংলাদেশ।

    অস্ট্রেলিয়া পরাক্রমশালী। তবে অজেয় নয়। বাংলাদেশের কাছেও নয়। ২০০৫ সালেই অজিদের হারানোর স্বাদ নিয়ে রেখেছে টাইগাররা। এ ইংল্যান্ডের মাটিতেই, কার্ডিফে। বিশ^ ক্রিকেটে বাংলাদেশ তখন ছিল ‘পুচকে’ এক দল। এখন? উদীয়মান শক্তি। নিজেদের দিনে যারা প্রতিপক্ষের ত্রাস। ওয়ানডেতে এমন দিন এখন নিয়মিতই আসে, যা আরও মজবুত করেছে টাইগারদের বিশ্বাসের বুনিয়াদ। প্রতিটি ম্যাচই তারা খেলে জয়ের তাড়না নিয়ে। প্রতিপক্ষ নিয়ে মাথা ঘামায় না। মহাপরাক্রমশালী অস্ট্রেলিয়াও তাদের ভাবনার দুয়ারে পরিবর্তন আনতে পারছে না। নিজেদের সামর্থ্যে বিশ্বাস রাখছে টাইগাররা, আর বিশ্বাসেই মেলায় বস্তু।

    ‘জয়’ নামের ওই বস্তু ম্যাচের পর ম্যাচে মিলবে, এ বিশ্বাস নিয়েই যাযাবরের মতো আজ এখনও তো কাল ওখানে চক্কর কাটছে টিম বাংলাদেশ। লন্ডন, কার্ডিফ, ব্রিস্টল আর টনটন ঘুরে মাশরাফি ব্রিগেডের নতুন ঠিকানা এখন নটিংহাম। এ শহরের মাঠ ট্রেন্ট ব্রিজে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে তারা। সেই অস্ট্রেলিয়া, বিশ^কাপে যারা সব থেকে সফল। অন্যদের যেখানে দুবারের বেশি বিশ্বকাপ জয়ের নজির নেই, সেখানে তারা জিতেছে পাঁচবার। বর্তমান চ্যাম্পিয়নও তারা। শিরোপা ধরে রাখার মিশনে অ্যারন ফিঞ্চের নেতৃত্বাধীন দলটি খেলছেও দুর্দান্ত। পাঁচ ম্যাচের চারটিতে জিতেছে, ৮ পয়েন্ট নিয়ে তারা এখন টেবিলের ওপরের দিকে আছে।

    সেমিফাইনালে খেলার দাবিটা দিনকে দিন জোড়াল করছে অস্ট্রেলিয়া। এক আফগানিস্তান বাদে অন্যরাও ছুটছে শেষ চারে চোখ রেখে। তাতে শুধু মাঠের লড়াই নয়, পয়েন্ট টেবিলের লড়াইটাও হয়ে উঠেছে জমজমাট। সবমিলিয়ে দিন যত যাচ্ছে, এবারের বিশ^কাপ রোমাঞ্চ ছড়াচ্ছে ততই। সবশেষ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুমড়ে-মুচড়ে দিয়ে সেই রোমাঞ্চে শামিল হয়েছে বাংলাদেশ। পাঁচ খেলায় পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে তারা এখন পয়েন্ট তালিকার পাঁচে। তবে আরেকটু যতœবান হলে এবং বিশ্বকাপটা ‘বৃষ্টিকাপ’ না হয়ে উঠলে মাশরাফির দল হয়তো সেরা চারেই অবস্থান করত।

    বাগে পেয়েও নিউজিল্যান্ডকে হারানো যায়নি। সেটা এখন বড্ড পুড়াচ্ছে বাংলাদেশকে। পুড়াচ্ছে বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়া শ্রীলঙ্কা ম্যাচটি। বৃষ্টির কারণে ভারত-নিউজিল্যান্ড ম্যাচটি না হওয়াটাও ছিল হতাশার। কারণ, ওই ম্যাচে ভারতই ছিল ফেবারিট। বিরাট কোহলির দলের কাছে নিউজিল্যান্ড হারলে আখেরে লাভ হতো বাংলাদেশের। এ নিউজিল্যান্ডকে টপকেই যে সেরা চারে জায়গা করে নেওয়ার সুযোগ দেখছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ইংল্যান্ড, ভারত আর অস্ট্রেলিয়া তো সবার চোখেই এ বিশ্বকাপে সেরা চারে ‘অটোমেটিক চয়েজ’!

    হতাশাটা আজ ঘুচে যেতে পারে, বিশ্বকাপটা বাংলাদেশের কাছে হয়ে উঠতে পারে আরও রোমাঞ্চকর, যদি তারা আজ অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারে। সেমিফাইনালে যাওয়ার লক্ষ্যপূরণে আজকের ম্যাচে জেতাটা অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছে। কিন্তু দলটির বিপক্ষে অতীত সুখকর নয়। ২০ বারের মুখোমুখি লড়াইয়ে জয় একটিই, সেই ২০০৫ সালে কার্ডিফে পাওয়া। মাঠে থেকে সেই জয়ের একমাত্র সাক্ষী মাশরাফি, তার নেতৃত্বেই পরাজয়ের বৃত্ত ভাঙার আশায় টাইগাররা।

    আশা পূরণে আত্মবিশ্বাসী টিম বাংলাদেশ। আত্মবিশ্বাস দিচ্ছে এ বিশ্বকাপের পারফরম্যান্স। প্রথম ম্যাচেই ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ পুঁজির (৩৩০) রেকর্ড নতুন করে লিখে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২১ রানে হারিয়েছে তারা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সবশেষ ম্যাচে জিতেছে সর্বোচ্চ রান তাড়ার নতুন রেকর্ড গড়ে। সোমবার সাকিব আল হাসান আর লিটন দাসের বীরত্বে ৭ উইকেটে পাওয়া ওই জয়ের রেশটা এখনও কাটেনি। তবে পা মাটিতেই রাখছে টাইগাররা। অস্ট্রেলিয়াকে দেখছে সমীহের চোখে। তবে ভয় পাচ্ছে না। তা ফিঞ্চ-স্মিথ-ওয়ার্নাররা ব্যাট হাতে যতই তাÐব চালাক, স্টার্ক-কামিন্সরা গতিঝড়ে নাকাল করে থাকুক প্রতিপক্ষকে।

    ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে দেওয়ার পরই তো সাকিব আর লিটন বলে দিয়েছেন, স্টার্ক-কামিন্সদের নিয়ে মোটেও আতঙ্কিত নন তারা। সাইফউদ্দিন-মোস্তাফিজরাও তৈরি ওয়ার্নার-স্মিথদের চ্যালেঞ্জ জানাতে। দুরন্ত ছন্দে থাকা সাকিব তো এখন টাইগারদের তুরুপের তাস। প্রতিপক্ষের দুশ্চিন্তার নাম। অস্ট্রেলিয়াও চিন্তিত তাকে নিয়ে। এ বিশ^কাপে মোটে ৫ উইকেট নিয়েছেন সাকিব। তাতেই তাকে সামলানোর জন্য আলাদা পরিকল্পনা করেছেন অজি কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার। বাঁহাতি স্পিনার অ্যাশটন অ্যাগারকে এনে নেটে বল করিয়ে ফিঞ্চ-ওয়ার্নার-স্মিথদের হাত পাকিয়েছেন।

    এত গেল বোলার সাকিবের কথা। ব্যাটসম্যান সাকিব তো এ বিশ^কাপের বিজ্ঞাপন। ৩৮৪ রান করে এখন পর্যন্ত তিনিই সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। তাই ব্যাটসম্যান সাকিবকে থামানোর কৌশল ঠিক করতে কত কি যে করছেন ল্যাঙ্গার, কে জানে! শুধু সাকিব নন, বাংলাদেশ দলকে নিয়েই সতর্ক অস্ট্রেলিয়া। দলের শক্তি বাড়াতে ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করে চলা মার্কাস স্টয়নিসকেও এ ম্যাচে খেলানোর পরিকল্পনা করছে তারা। দলের ভারতীয় ভিডিও অ্যানালিস্ট শ্রীনিবাসের দেওয়া তথ্য-উপাত্ত নিয়ে বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডসও সাজিয়ে ফেলেছেন পরিকল্পনা। বুধবার সেই পরিকল্পনা মেনেই অনুশীলনে নিজেদের ঝালিয়ে নিয়েছে টাইগাররা।

    রোডস তার পরিকল্পনায় অনেকটাই নির্ভার থাকতে পেরেছেন। কারণ, রানে ফেরার আভাস দিয়েছেন তারকা ওপেনার তামিম ইকবাল। মিডল অর্ডারে মোহাম্মদ মিঠুনের ফর্মহীনতায় যে শূন্যতা তৈরি হয়েছিল, প্রথম সুযোগেই সেই শূন্যতা পূরণ করে দিয়েছেন লিটন। দুশ্চিন্তা যতটুকু, তা শুধুই মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে। এখনও স্বরূপ দেখাতে পারেননি এ কিপার-ব্যাটসম্যান। তবে তার সামর্থ্য নিয়ে সংশয়ের অবকাশ নেই। টিম ম্যানেজমেন্টও নির্ভার। তাদের বিশ্বাস, ঠিক সময়ে জ¦লে উঠবে মুশফিকের ব্যাট। চেনা ছন্দে শাসন করবে প্রতিপক্ষের বোলারদের।

    অস্ট্রেলিয়া-বধের আশায় আগের ম্যাচজয়ী একাদশের ওপরই বিশ্বাস রাখছে টাইগার টিম ম্যানেজমেন্ট। বিশ্বাসেই তো বস্তু মেলে। তাহলে তো আজ অস্ট্রেলিয়া বধের দিনই!

    77Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর