অযত্নে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে দেড় হাজার খেজুর গাছ - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

    অযত্নে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে দেড় হাজার খেজুর গাছ

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৮ জুন, ২০১৯

    নওগাঁ সংবাদদাতা:
    নওগাঁর আত্রাইয়ে সঠিক পরিচর্যার অভাবে বেড়ে উঠতে পারছে না প্রায় দেড় হাজার খেজুর গাছ। উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের বিভিন্ন রাস্তায় লাগানো এসব খেজুর গাছ ঝোপ জঙ্গলের কবলে পড়ে বেড়ে উঠতে না পারায় এসব গাছ থেকে এলাকাবাসীও কোন সুফল ভোগ করতে পারছে না। উপরন্তু এসব রাস্তা রাতের আঁধারে নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে।

    জানা যায়, উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের মাড়িয়া-নওদুলী, মাড়িয়া-জালুপৌঁতা ও নওদুলী- গুলিয়া রাস্তায় প্রায় দেড় হাজার খেজুর গাছের বীজ বপন করা হয় ৮-৯ বছর পূর্বে। আত্রাই পূর্ণিমা পল্লী উন্নয়ন সংস্থা নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান এলাকাবাসীর উপকারে নিজস্ব অর্থায়নে ওই রাস্তাগুলোর দুই পাশে দুই হাজার খেজুরের বীজ বপন করে। পরে গাছ উঠার পর প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অনেক গাছই বিনষ্ট হয়ে যায়।

    তারপরও বর্তমানে রাস্তাগুলোর পাশে রয়েছে প্রায় দেড় হাজার খেজুর গাছ। গাছগুলো অনেকটা দর্শনীয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু সঠিক পরিচর্যার অভাবে এগুলো বেড়ে উঠতে পারছে না। এ গাছগুলোর সঠিক পরিচর্যা করলে শীত মৌসুমে এলাকাবাসী প্রচুর পরিমাণ রস সংগ্রহ করে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

    পূর্ণিমা পল্লী উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক এস এম হাসান সেন্টু বলেন, ২০০৯ সালের দিকে আমরা ওই রাস্তাগুলোতে খেজুরের বীজ বপন করি। কয়েক বছরের মধ্যেই গাছগুলো রস দানের উপযোগী হয়ে উঠে। কিন্তু অর্থের অভাবে এ গাছগুলোর প্রয়োজনীয় পরিচর্যা করা সম্ভব হয় না। ফলে গাছগুলো থেকে রস সংগ্রহ করতে না পারায় এলাকাবাসী এর সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সরকারি সহায়তা পেলে আমরা গাছগুলোর নিয়মিত পরিচর্যা করতে পারতাম। এতে করে এলাকাবাসী অনেক উপকৃত হত।

    এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এবাদুর রহমান বলেন, আমি রাস্তার গাছগুলো দেখেছি। বৃহত্তর এ গাছগুলোর পরিচর্যা বিশেষ প্রয়োজন। বিষয়টি উপজেলার সমন্বয় কমিটির সভায় আলোচনার মাধ্যমে বন বিভাগকে দায়িত্ব দিয়ে গাছগুলো পরিচর্যার ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টা করছি।

    73Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর