অধিকাংশই ফার্মেসিতে বিক্রি করছে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন
    শিরোনাম

    অধিকাংশই ফার্মেসিতে বিক্রি করছে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২১ জুন, ২০১৯

    ঢাকা সংবাদদাতা:
    রোগ নিরাময়ের জন্য ওষুধ সেবনের বিকল্প নেই। কিন্তু জীবন রক্ষাকারী এই ওষুধ যদি মেয়াদোত্তীর্ণ হয়? তাহলে নিরাময় নয়, হবে মরণ। এমনই মরণ ফাঁদে ফেলছেন ওষুধ ব্যবসায়ীরা। বাড়তি মুনাফার লোভে ফার্মেসিতে দেদার বিক্রি করছেন মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। ওষুধ প্রশাসনের লাইসেন্স এবং নিবন্ধিত ফার্মাসিস্ট ছাড়া অধিকাংশ ফার্মেসিতে ওষুধ বিক্রি হচ্ছে। ফার্মেসিতে যে তাপমাত্রায় ওষুধ রাখার কথা, সেই তাপমাত্রায় রাখা হচ্ছে না, ফলে ওষুধের গুণাগুণ নষ্ট হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানগুলো আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রমরমা বাণিজ্য করছে। এই ওষুধ সেবনে বিপুলসংখ্যক রোগী নিরাময়ের বদলে স্বাস্থ্যগত নানা জটিলতার শিকার হচ্ছেন। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ এসব ওষুধ বিক্রি করা দÐনীয় অপরাধ। এসব ওষুধ অসুস্থ রোগীকে সুস্থতার বদলে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতে পারে। ইতোমধ্যে ফার্মেসির মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের মধ্যে সরিয়ে ফেলে ধ্বংস করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

    তবে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের বিষয়ে দেওয়া তথ্য সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের ৯৩ শতাংশ ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রির তথ্য সঠিক নয়। ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করে। সরকারের পক্ষ থেকে আমরা বিষয়টি দেখভাল করতে সচেষ্ট রয়েছি। মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের বিক্রি বন্ধে আমরা কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছি। এ ব্যাপারে ফার্মেসি কাউন্সিল এবং ওষুধ প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। কোনো ক্রেতার হাতে যদি মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ চলে আসে, সে বিষয়টি আমাকে ও ওষুধ প্রশাসনকে অবহিত করলে আমরা কঠোর ব্যবস্থার নেব।

    ঢাকা শহরের ৯৩ শতাংশ ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা হয় বলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের এক পর্যালোচনা প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। গত ছয় মাস নিয়মিত বাজার তদারকি করে তারা এ রিপোর্ট তৈরি করেছে। এতে দেখা গেছে, ১০০টি ফার্মেসির মধ্যে ৯৩টি ফার্মেসিতেই মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা হয়। আবার কোনো কোনো ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণের দীর্ঘদিন পরেও সেটি বিক্রি করা হচ্ছে। এসব অপরাধে সংস্থাটি অন্তত দুই শতাধিক ফার্মেসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। কিছু কিছু ফার্মেসি সাময়িক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল বলেও জানান ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

    এ প্রসঙ্গে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুব সাংবাদিকদের বলেন, দেশে ১ লাখ ৩০ হাজার লাইসেন্সপ্রাপ্ত ফার্মেসি রয়েছে। এসব ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখার জন্য আলাদা বাক্স রয়েছে। সেখানে পরিষ্কারভাবে লেখা থাকে ‘এগুলো মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ, বিক্রির জন্য নয়’। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত এসব বিষয়ে অভিযান পরিচালনা করছি। গত ৬ মাসে পাঁচজনকে জেল দিয়েছি, ৩৭০টি মামলা দায়ের হয়েছে ও ৫৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছি।

    অন্যদিকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে সাধারণ জনগণকে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, ওষুধ মেয়াদোত্তীর্ণ হতেই পারে। এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তিনি বলেন, অনেক ওষুধ নষ্ট হয়, কিন্তু নষ্ট হলে দোকানিদের কোনো ক্ষতি নেই। কোম্পানিকে ফেরত দিলে তারা ওষুধ পেয়ে যায়। কিন্তু তারা যদি সেই ওষুধ বিক্রি করে, তাহলেই সমস্যা। আমার জানা মতে, দোকানিরা এসব ওষুধ বিক্রি করার কথা নয়। ওষুধ উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ মন্তব্য করে তিনি বলেন, দেশের ৯৫ শতাংশ ওষুধের চাহিদা পূরণ করে থাকি, এটা বিশ্বে বিরল। শুধু উন্নত দেশ হলে হয় না, সিঙ্গাপুর কত উন্নত দেশ, তারপরও তারা ৮৮ শতাংশ ওষুধ বিদেশ থেকে আমদানি করে। তিনি বলেন, ৯৩ শতাংশ দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের কথা বলা হচ্ছে, মনে হয় না এত শতাংশ হবে। তবে ওষুধ মেয়াদোত্তীর্ণ হবে, এটা স্বাভাবিক। কিন্তু মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ দোকানে রাখার কথা নয়।

    জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর গ্রিন রোডের মডেল ফার্মেসি বেস্ট ওয়ান ফার্মাতে তিন মাস আগের ওষুধ ও মলম পাওয়া গেছে। অভিযানে শুরুতে বেস্ট ওয়ান ফার্মার ফার্মেসিতে এসবি মেট-৮৫০ নামের একটি ওষুধের বাক্স পাওয়া যায়। সেটির মেয়াদ মার্চ মাসেই শেষ হয়েছে। কিন্তু তিন মাস পেরিয়ে গেলেও ওষুধটি দোকানে রাখা ছিল। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাবের) ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম বলেন, হাইকোর্টের এক আদেশে ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গ্রিন রোডের বিভিন্ন ফার্মেসিতে অভিযান চালানো হয়েছে।

    এর আগে মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডি, কলাবাগান, মোহাম্মদপুর, বাড্ডা এলাকায় ২১টি ফার্মেসিতে অভিযান চালায় সংস্থাটি। এর মধ্যে ২০টিতেই পাওয়া যায় মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। অর্থাৎ এক দিনের অভিযানে ৯৫ শতাংশের বেশি প্রতিষ্ঠানে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ পাওয়া যায়। বাড্ডার সাঁতারকুল এলাকার মারিয়া ফার্মেসিকে ২০ হাজার টাকা, হ্যাপি মেডিকেল হলকে ৫ হাজার, লিভা ফার্মেসিকে ৩০ হাজার, তাকওয়া ফার্মেসিকে ১০ হাজার এবং হোসনিয়ারা ফার্মেসিকে ২০ হাজার টাকা। এ ছাড়া ধানমন্ডি, কলাবাগান ও মোহাম্মদপুর এলাকার তাহিম ফার্মাকে ২৫ হাজার টাকা, ড্রাগ ফার্মাকে ২০ হাজার, মেসার্স ঠাকুরগাঁও ফার্মাকে ২০ হাজার, আল মদিনা ফার্মাকে ১৫ হাজার, এস ফার্মাকে ৩০ হাজার, আল রাজি ফার্মাকে ৫ হাজার, মেডিসিন ওয়ার্ল্ডকে ২৫ হাজার, বিল্লাহ ফার্মাকে ১৫ হাজার, ডে নাইটকে ১২ হাজার, এইচ আর ফার্মাকে ১০ হাজার, ঠাকুরগাঁও মডেল ফার্মাকে ২০ হাজার, যমুনা ফার্মাকে ১৫ হাজার, ডিসেন্ট ফার্মাকে ১৫ হাজার, এনএস ফার্মাকে ১৫ হাজার, মেডিসিন ফার্মাকে ১৫ হাজার, লিভা ফার্মেসিকে ৩০ হাজার, তাকওয়া ফার্মেসিকে ১০ হাজার এবং হোসনিয়ারা ফার্মেসিকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

    ঢাকা মেডিকেল কলেজের (ঢামেক) অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ওষুধের একটা মান বজায় রাখতে হয়। ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির কাছে যখন ওষুধ থাকে তখন ওষুধের একটা জীবন থাকে। কিন্তু বাইরে আসলে সেটা অনেক সময় নষ্ট হয়ে যায়। বাংলাদেশের ৯০ শতাংশ ফার্মেসি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয়। কেমিক্যালের সঙ্গে তাপমাত্রার একটা সম্পর্ক আছে। তাপমাত্রার কারণে ওষুধের অনেক কিছু নষ্ট হয়ে যায়। ঢামেক অধ্যক্ষ আরও বলেন, প্রধান বৈজ্ঞানিক তথ্য হচ্ছে একটা ওষুধ তৈরির পর ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলো পরীক্ষা করে সেটার বয়স নির্ধারণ করে কোন ওষুধ থেকে কত দিন উপকার পাওয়া যাবে। এর বাইরে যারা এসব ওষুধ বিক্রি করছে তারা অপরাধ করছে। কোনো অবস্থাতেই এ রকম করা যাবে না। যদি করে থাকে তবে তারা হত্যাকারী। তারা মানুষ হত্যা করছে। তিনি বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ যুবকদের কম ক্ষতি করলেও একজন বৃদ্ধ অসুস্থ ব্যক্তির মারাত্মক ক্ষতি করে। তিনি বলেন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, বিচার বিভাগীয় সংস্থা, ওষুধ প্রশাসন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং সাধারণ জনগণ এক হয়ে তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে।

    55Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর