‘অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে বড় সংকটে পড়তে পারে দেশ’: (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

    ‘অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে বড় সংকটে পড়তে পারে দেশ’: (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট, নিউজ ডেস্ক


    মানবদেহে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্সের কারণে পঁচিশ বছর পর করোনাভাইরাসের চেয়েও বড় ধরনের সংকটে পড়তে পারে বাংলাদেশ। সোমবার বেলা ১১টায় জাপানি তোমাকিই বায়ো লিমিটেড, তোমাকিই ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানি লিমিটেড ও ওকোহামা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শারফুদ্দিন আহমেদ এ কথা বলেছেন।

    ডা. মোহাম্মদ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘অ্যান্টিবায়োটিকের এই অতিরিক্ত ব্যবহার সকলের স্বার্থে রোধ করতে হবে। এ জন্য যত তত্র অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ করতে হবে। নিবন্ধিত চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া যাতে কোনো ফার্মেসি অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ বিক্রি করতে না পারে, সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গকে এগিয়ে আসতে হবে।’ এ সময় তিনি, মাত্রাতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ফলে আগামী ২০৫০ সালে দেশে করোনায় চেয়ে মৃত্যু দ্বিগুণ হতে পারে বলেও জানান।

    ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে জাপানের দীর্ঘকালের বন্ধুত্ব। জাপান বাংলাদেশের উন্নয়নের সঙ্গী। জাপান সরকারের সহায়তায় বর্তমানে স্বপ্নের মেট্রোরেল চালুর অপেক্ষায় রয়েছে। গাজীপুর থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত দ্বিতীয় মেট্রোরেলও জাপানের সহায়তায় নির্মাণ হবে।’ এ সময় জাপান ও বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালসহ নানাবিধ বিষয়ে গবেষণা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। তবে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেলে বিএসএমএমইউ উপাচার্য সংশ্লিষ্ট বিভাগ নিয়ে জাপানের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী বলে জানান।

    এ সময় বিএসএমএমইউয়ের পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিক্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মারুফ হক খান, জাপানি প্রতিনিধি দলের পক্ষে ওকোহামা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. মেহরুবা, তোমাকিই ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানি লিমিটেডের নির্বাহী ব্যবস্থাপক নাকাহার সন্তোষী, তোমাকিই বায়ো লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার ইমাই জুনইয়া উপস্থিত ছিলেন।

    সৌজন্য সাক্ষাৎকালে উভয় দেশের ঐতিহ্য, পারস্পরিক সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বের অতীত ইতিহাস উঠে আসে। উভয় দেশের চিকিৎসা উন্নয়নের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ভূমিকা রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন উপাচার্য।


    লালসবুজের কণ্ঠ/শান্ত

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর